প্রতিবেদন

১৫ বিশিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের হাতে স্বাধীনতা পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

স্বদেশ খবর ডেস্ক : এ বছর ১৫ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীকে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৩ মার্চ এক অনুষ্ঠানে পদকপ্রাপ্তদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে ৩ লাখ টাকার চেক, ১৮ ক্যারেট স্বর্ণের একটি পদক ও সনদপত্র দেয়া হয়। মুক্তিযুদ্ধ, সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং উন্নয়নসহ জাতীয় জীবনের বিভিন্ন েেত্র অসামান্য অবদানের জন্য এই পদক প্রদান করা হয়।
স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এ বছর স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হয়েছেন : গ্র“প ক্যাপ্টেন শামসুল আলম (অব.) বীরউত্তম, স্বাধীন বাংলা বেতারের কর্মকর্তা আশরাফুল আলম, শহীদ নাজমুল হক, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী, শহীদ এন এম নাজমুল আহসান, শহীদ ফয়জুর রহমান আহমেদ, চিকিৎসাশাস্ত্রে অধ্যাপক ডা. এএইচএম তৌহিদুল আনোয়ার চৌধুরী, সাহিত্যে রাবেয়া খাতুন ও মরহুম গোলাম সামদানী কোরায়শী, সংস্কৃতি েেত্র প্রফেসর ড. এনামুল হক ও নৃত্যকলায় ওস্তাদ বজলুর রহমান বাদল, সমাজকল্যাণে খলিল কাজী (ওবিই), গবেষণা ও প্রশিণে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান এবং প্রয়াত অধ্যাপক ড. ললিত মোহন নাথ এবং জনপ্রশাসনে প্রফেসর মো. আসাদুজ্জামান।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন এবং পদকপ্রাপ্তদের সাইটেশন পাঠ করেন। পদকপ্রাপ্তদের পে অধ্যাপক ড. এনামুল হক নিজস্ব অনুভূতি ব্যক্ত করে বক্তব্য রাখেন। পদকপ্রাপ্তরা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পদক গ্রহণ করেন। আর বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আবু এসরার বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর পে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে স্বাধীনতা পদক গ্রহণ করেন।
মরণোত্তর পদকের েেত্র মো. নাজমুল হকের পে ছেলে ইঞ্জিনিয়ার শহীদুল ইসলাম হক, সৈয়দ মহসিন আলীর পে স্ত্রী সৈয়দা সায়রা মহসিন এমপি, এন এম নাজমুল আহসানের পে ছোট ভাই এম এন সদরুল আহসান, ফয়জুর রহমান আহমেদের পে কন্যা মিসেস সুফিয়া খাতুন, গোলাম সামদানী কোরায়শীর পে পুত্র গোলাম ইয়াজদানী কোরায়শী এবং ড. ললিত মোহন নাথের পে স্ত্রী আরতি নাথ প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পদক গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে ডেপুটি স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, সংসদ সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত, চিফ হুইপ ও হুইপ, সুপ্রিমকোর্টের বিচারক, সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা, তিন বাহিনী প্রধান, ডিপ্লোমেটিক কোরের ডিন, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিক, উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার প্রতিনিধি এবং আমন্ত্রিত অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী পুরস্কারপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘স্বাধীনতা পুরস্কার’ দেশের সর্বোচ্চ জাতীয় পুরস্কার। যারা পুরস্কার অর্জন করেছেন, আপনারা সমাজের অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব। আমাদের সমাজে যারা নিজেদের জীবনকে উন্নত করে গড়ে তুলতে চায় তারা আপনাদের পথ অনুসরণ করবে। আপনাদের মেধা-মনন দিয়ে একটি প্রগতিশীল সমাজ আমরা গড়ে তুলতে চাই।