প্রতিবেদন

১২৯ ডলারের মাথাপিছু আয় ৪৪ বছরে বেড়ে ১ হাজার ৬০২ ডলারে উন্নীত

নিজস্ব প্রতিবেদক : নানা বাধা-বিপত্তি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, রাজনৈতিক অস্থিরতা, আন্তর্জাতিক প্রতিকূলতা, হাজারো রকমের দুর্নীতির মধ্যেও বাংলাদেশ ১২৯ ডলারের মাথাপিছু আয় ৪৪ বছরে ১ হাজার ৬০২ ডলারে উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছে। স্বাধীনতার পর যে বাংলাদেশকে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ নামে আখ্যায়িত করা হয়েছিল, সে দেশকেই এখন অনেক েেত্র অনুকরণীয় বলে স্বীকৃতি দিচ্ছে বিশ্বের অনেক প্রভাবশালী দেশসহ জতিসংঘ। এগিয়েছে দেশের অর্থনীতি। বেড়েছে প্রবৃদ্ধির হার। এর সঙ্গে বেড়েছে মাথাপিছু আয়ের পরিমাণ। ১৯৭২-৭৩ অর্থবছরে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু গড় আয় ছিল মাত্র ১২৯ মার্কিন ডলার। চলতি অর্থবছরে মাথাপিছু আয় বেড়ে হয়েছে ১ হাজার ৬০২ ডলার। এ হিসাবে গত ৪৪ বছরের ব্যবধানে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু গড় আয় বেড়েছে প্রায় ১১ গুণ। তবে মাথাপিছু আয় বাড়লেও সমাজের মধ্যে ধনী-দরিদ্রের ব্যবধানও কিছুটা বেড়েছে। দরিদ্রশ্রেণি দারিদ্র্যের সীমা থেকে বেরিয়ে এলেও তাদের জীবনযাত্রার মান খুব একটা বাড়ছে না। এখনো দেশের অনেক মানুষ অতি দারিদ্র্যের মধ্যেই রয়েছে। ফলে সম্পদের সুষম বণ্টন হচ্ছে না। সম্পদ কেন্দ্রীভূত হচ্ছে একটি গ্র“পের হাতে। এতে আয় বাড়ার সুফল সব মানুষ পাচ্ছে না। তবে মাথাপিছু আয় বাড়ার কারণে দেশ স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে নিম্নমধ্যম আয়ের দেশের কাতারে উঠে এসেছে।
নিম্নমধ্যম আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে যেতে হলে বাংলাদেশকে তিনটি শর্ত পূরণ করতে হবে। এর মধ্যে মাথাপিছু আয় ১ হাজার ২৪২ ডলারে উন্নীত করতে হবে। বর্তমানে আছে ১ হাজার ৬০২ ডলার। এ খাতে বাংলাদেশ শর্ত পূরণে সম হয়েছে। তবে জাতিসংঘ বা বিশ্বব্যাংক এ হিসাব মানছে না। তারা বলছে, যেহেতু জিডিপির প্রবৃদ্ধির হার কম, সে কারণে মাথাপিছু আয়ের পরিমাণও কম হবে। এ নিয়ে বিতর্ক রয়ে গেছে। মানবসম্পদে বাংলাদেশের সূচক ৬৬-তে নামিয়ে আনতে হবে। বর্তমানে আছে ৭০। শিশু, মাতৃমৃত্যু, দ মানবসম্পদ ও উৎপাদন সমতার ওপর এ সূচক নির্ভর করে। অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতায় বাংলাদেশের সূচক ৩২-এ উন্নীত করতে হবে। বর্তমানে এটি আছে ২৫ দশমিক ৩ এ। অর্থনৈতিক ঝুঁকি মোকাবিলায় সমতার ভিত্তিতে এ সূচক তৈরি করা হয়। এসব সূচকে নির্ধারিত ল্যমাত্রা অর্জন করলেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশের কাতারে উঠে আসবে। জাতিসংঘের বিধি অনুযায়ী, যেসব দেশের মাথাপিছু জাতীয় আয় ১ হাজার ৪৫ ডলার বা তার নিচে, তাদের বলা হয় নিম্ন আয়ের দেশ। বাংলাদেশ স্বাধীনতার পর থেকে এ তালিকাতেই ছিল। আর ১ হাজার ৪৬ ডলার থেকে শুরু করে যেসব দেশের মাথাপিছু জাতীয় আয় ১২ হাজার ৭৩৬ ডলার, তারা মধ্যম আয়ের দেশের অন্তর্ভুক্ত। এর মধ্যে আবার আয় ১ হাজার ৪৬ ডলার থেকে শুরু করে ৪ হাজার ১২৫ ডলার পর্যন্ত হলে তা হবে মধ্যম আয়ের দেশ এবং আয় ৪ হাজার ১২৬ ডলার থেকে শুরু করে ১২ হাজার ৭৩৬ ডলার হলে দেশগুলোকে বলা হয় উচ্চমধ্যম আয়ের দেশ। এর চেয়ে বেশি মাথাপিছু জাতীয় আয় হলে সেই দেশগুলোকে বলা হয় উচ্চ আয়ের দেশ।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য থেকে দেখা যায়, যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশে ১৯৭২-৭৩ অর্থবছরে মাথাপিছু আয় ১২৯ ডলার হলেও ১৯৭৩-৭৪ অর্থবছরে মাথাপিছু আয় কমে দাঁড়ায় ১২০ ডলার। অর্থনৈতিক মন্দাসহ নানা কারণে ওই বছরে এর পরিমাণ কমে যায়। তবে ১৯৭৪-৭৫ অর্থবছরে তা বেড়ে দাঁড়ায় ১৬০ ডলারে। এ বৃদ্ধির ধারাবাহিকতা চলে ১৯৭৫-৭৬ ও ১৯৭৬-৭৭ অর্থবছরে। তখন মাথাপিছু আয় বেড়ে হয় যথাক্রমে ২০০ ও ২১০ ডলার। তবে ১৯৭৭-৭৮ ও ১৯৭৮-৭৯ অর্থবছরে ধারাবাহিকভাবে আয় কমে যায়। ওই দুই অর্থবছরে এ আয় কমে দাঁড়ায় যথাক্রমে ১৭০ ও ১৬০ ডলারে। ১৯৭৯-৮০ অর্থবছরে মাথাপিছু আয় আবার বেড়ে দাঁড়ায় ১৯০ ডলারে। ১৯৮০-৮১ অর্থবছরে এ আয় আরও বেড়ে দাঁড়ায় ২৩০ ডলারে। ১৯৮১-৮২ অর্থবছরে বেড়ে দাঁড়ায় ২৬০ ডলারে।
মাথাপিছু আয়ে সব সময় ধারাবাহিকতা থাকেনি। প্রাকৃতিক দুর্যোগ, রাজনৈতিক আন্দোলন, আন্তর্জাতিক মন্দাসহ নানা কারণে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকা- বাধাগ্রস্ত হয়েছে। ফলে ১৯৮২ থেকে ১৯৮৬ অর্থবছরগুলোয় মাথাপিছু আয়ে ওঠানামা করেছে। এ সময় যথাক্রমে মাথাপিছু আয় হয় ২২০, ২১০, ২২০ ও ২৪০ ডলার। ১৯৮৭, ১৯৮৮, ১৯৮৯ সালের মাথাপিছু আয় আবার বাড়তে শুরু করে। এ সময় ২৭০, ২৮০, ২৯০ ডলার হয়। আর নব্বইয়ের দশকে এসে মাথাপিছু আয় কিছুটা ধীরগতিতে অগ্রসর হয়। ১৯৯০, ১৯৯১ সালে মাথাপিছু আয় হয় ৩১০ ডলার। আর ১৯৯২, ১৯৯৩, ১৯৯৪ সালে মাথাপিছু আয় ৩২০ ডলারের মধ্যেই আটকে ছিল। তবে ১৯৯৫ সালে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৩৩০ ডলার হয়। আর ১৯৯৬, ১৯৯৭, ১৯৯৮, ১৯৯৯ সালে ধারাবাহিকভাবে বাড়তে থাকে মাথাপিছু আয়। যথাক্রমে তখনকার সময়ের মাথাপিছু আয় ৩৬০, ৩৯০, ৪০০, ৪১০ ডলার।
বিশ্বব্যাংকের মতে, ২০০০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত মাথাপিছু আয় যথাক্রমে ৪২০, ৪৩০, ৪২০, ৪৫০, ৪৯০ ও ৫৪০ ডলার হয়। আর ২০০৬ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত মাথাপিছু আয় বেড়ে যথাক্রমে ৫৬০, ৫৯০, ৬৫০, ৭১০ ও ৭৮০ ডলারে দাঁড়ায়। তবে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয়ের বড় পরিবর্তন শুরু হয় ২০১১ সালে। ওই সময় মাথাপিছু আয় বেড়ে দাঁড়ায় ৮৭০ ডলারে। ২০১২ সালে এ আয় বেড়ে ৯৫০ ডলারে উন্নীত হয়। ২০১৩ সালে ১০১০ ডলার ও ২০১৪ সালে মাথাপিছু আয় হয় ১০৮০ ডলার। ২০১৫ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়ায় ১ হাজার ১৯০ ডলারে। সর্বশেষ ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বাংলাদেশে মাথাপিছু আয় দাঁড়ায় ১ হাজার ৪৬৫ ডলার।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর চূড়ান্ত হিসাবে গত অর্থবছর বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ছিল ১ হাজার ৪৬৫ ডলার। ১ বছরের ব্যবধানে প্রায় ১৩৭ ডলার মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া চলতি বছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধির ল্যমাত্রা ৭ দশমিক ২ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। সরকার আশা করছে এই লক্ষ্য পূরণ হবে।