ফিচার

রেসিপি

১ থেকে ২২ অক্টোবর বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণে ইলিশ মাছ পাওয়া যাবে না। এই সময়ে নদী থেকে ইলিশ মাছ ধরা, বাজারজাতকরণ ও ক্রয়-বিক্রয় সরকারের পক্ষ থেকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মাছে-ভাতে বাঙালির প্রতি বেলায় মাছ না হলে চলেই না। বাজারে পর্যাপ্ত ইলিশ নেই তো কী হয়েছে, চিংড়ি তো আছে। চিংড়ি যেভাবেই রান্না করা হোক না কেন সেভাবেই খেতে ভালো লাগে। স্বদেশ খবর পাঠকদের জন্য চলতি সংখ্যার আয়োজনে থাকছে চিংড়ি দিয়ে তৈরি কয়েকটি মজাদার খাবারের রেসিপি। এই খাবারগুলো তৈরির সময় উপকরণের পরিমাণের সঙ্গে মশলার পরিমাণের সঠিক সন্নিবেশ ঘটান। দেখবেন চিংড়ির মালাইকারি, কালিয়া ও দোপিঁয়াজা কেমন সুস্বাদু হয়ে উঠেছে।

মালাইকারি
উপকরণ : গলদা চিংড়ি আধা কেজি, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, বাটা মরিচ ১ চা-চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, পিঁয়াজ বাটা ১ চা-চামচ, আদা বাটা আধা চা-চামচ, কাঁচা মরিচ বাটা আধা চা-চামচ, ভিনেগার আধা চা-চামচ, মরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, সরিষার তেল পরিমাণমতো, শুকনা মরিচ টালা গুঁড়া আধা চা-চামচ, জিরা আধা চা-চামচ, নারিকেলের দুধ ৭-৮ টেবিল চামচ ও পিঁয়াজ কুচি ২টি।
প্রস্তুত প্রণালি : রসুন বাটা, আদা বাটা, পিঁয়াজ বাটা, লবণ ও হলুদ গুঁড়া দিয়ে মাখিয়ে চিংড়ি মেরিনেট করতে হবে। একটি ফ্রাইপ্যানে জিরা ফোড়ন দিয়ে চিংড়ি ভেজে নিতে হবে। আরেকটি ফ্রাইপ্যানে শুকনা মরিচ ফোড়ন দিয়ে পিঁয়াজ কুচিগুলো গোল্ডেন ব্রাউন কালার করে ভেজে ১ চামচ পিঁয়াজ বাটা, আদা বাটা, রসুন বাটা, মরিচ গুঁড়া, লবণ, কাঁচা মরিচ দিয়ে ভালো করে মশলা কষিয়ে নিয়ে ভাজা নারিকেলের দুধ দিয়ে দিতে হবে। বলক এলে ভাজা চিংড়ি ছেড়ে দিতে হবে। ১০ মিনিট অল্প আঁচে রান্না করলেই তৈরি হয়ে যাবে চিংড়ির মালাইকারি।

কালিয়া
উপকরণ : বড় চিংড়ি ৫০০ গ্রাম, আলু ২টি, মটরশুঁটি আধা কাপ, পিঁয়াজ বাটা ২ চামচ, আদা বাটা ১ চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, মরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, তেজপাতা ২টি, টমেটো ১টি, তেল ১৫০ গ্রাম, গরম মশলা আধা চামচ, লবণ পরিমাণমতো।
প্রস্তুত প্রণালি : চিংড়ি বেছে ধুয়ে লবণ-হলুদ মাখিয়ে ভেজে নিন। আলু ভেজে তুলে নিন। এবার কড়াইতে বাকি তেল গরম করে তেজপাতা ফোড়ন দিয়ে আদা ও রসুন বাটা হালকা লাল করে ভেজে হলুদ ও মরিচের গুঁড়া একটু পানিতে গুলে কড়াইতে দিন। মশলা হালকা ভাজা হলে এর মধ্যে টমেটো চার ফালি করে কেটে দিয়ে ভাজুন। মশলা ভাজা ভাজা হলে তার মধ্যে পানি, লবণ, আলু, চিংড়ি ও মটরশুঁটি সব কড়াইতে দিয়ে চাপা দিন। ঝোল একটু গাঢ় হলে এর মধ্যে গরম মশলা বাটা দিয়ে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

দোপিঁয়াজা
উপকরণ : চিংড়ি ১৭৫ গ্রাম, পিঁয়াজ কুঁচি দেড় কাপ, কাঁচা মরিচ ২-৩টি (ফালি করা), আদা বাটা আধা চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ, জিরা গুঁড়া আধা চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, টমেটো ১টির অর্ধেক, ধনেপাতা কুঁচি ৩ টেবিল চামচ।
প্রস্তুত প্রণালি : চিংড়ির মাথা এবং খোসা ফেলে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিন। চিংড়ির সাথে সামান্য লবণ এবং হলুদ মেখে নিন। এরপর পাত্রে তেল গরম দিন। তেল গরম হয়ে গেলে লবণ হলুদ মাখা চিংড়ি মাছ সামান্য ভেজে তুলে রাখুন। এবার এই তেলে পিঁয়াজ এবং মরিচ দিয়ে দিন। পিঁয়াজ ভাজা ভাজা হয়ে এলে এতে সামান্য পানি দিয়ে একে একে আদা বাটা, হলুদ, মরিচ, জিরা এবং লবণ দিয়ে দিন। মশলা ভালোমত কষানো হয়ে গেলে এর মধ্যে কুঁচি করা টমেটো দিয়ে দিন। সব ভালোমত কষিয়ে সময় নিয়ে রান্না করুন। প্রয়োজনে অল্প অল্প পানি যোগ করুন। মশলা কষাতে কষাতে মশলার উপরে তেল উঠে গেলে এতে ভাজা চিংড়িগুলো দিয়ে সব একসাথে নেড়ে দিন। এখন চুলার আঁচ মাঝারি রেখে ৪ থেকে ৫ মিনিট পাত্রের ঢাকনা দিয়ে রাখুন। মাঝে একবার মাছগুলো নেড়ে দিন যাতে পাত্রের নিচে লেগে না যায়। এরপর চিংড়ির উপর ধনেপাতা ছড়িয়ে দিয়ে চুলা বন্ধ করে দিন। তারপর গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করুন মজাদার দোপিঁয়াজা।