বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া ডেনমার্ক বাদ পড়ল ইতালি

| November 25, 2017

ক্রীড়া প্রতিবেদক : অস্ট্রেলিয়া ও ডেনমার্ক বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্ব নিশ্চিত করার পর ৩২তম ও সর্বশেষ দল হিসেবে রাশিয়া বিশ্বকাপে স্থান করে নিল পেরু। নিউজিল্যান্ডকে ২-০ গোলে হারিয়ে পেরু এই জয় তুলে নেয়। এ নিয়ে আগামী বছরের জুনে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ ফুটবলের চূড়ান্ত পর্বে কোন ৩২টি দেশ অংশ নেবে তা নিশ্চিত হয়েছে।
পেরু ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যে প্লে অফের প্রথম ম্যাচটিতে নিউজিল্যান্ড নিজেদের মাঠে গোলশূন্য ড্র করেছিল। পেরুর মাঠ লিমার উচ্চতায় গিয়ে খেলা নিউজিল্যান্ডের জন্য যে সহজ হবে না, সেটা অজানা ছিল না। জোড়া গোল দিয়ে দণি আমেরিকা অঞ্চলের পঞ্চম দল হিসেবে বিশ্বকাপে গেল পেরু।
সিডনিতে মহাদেশীয় প্লে-অফে হন্ডুরাসকে ৩-১ গোলে হারায় অস্ট্রেলিয়া। এটি তাদের টানা চতুর্থবারের মতো চূড়ান্ত পর্বে ওঠা। উভয় দলের প্রথম লেগটি গোলশূন্য ড্র হয়েছিল।
অপরদিকে ডেনমার্ক ক্রিস্টিয়ান এরিকসেনের দুর্দান্ত হ্যাটট্রিকে আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনে স্বাগতিকদের ৫-১ গোলে হারিয়ে এ কৃতিত্ব দেখায় ডেনমার্ক। প্রথম লেগের খেলাটি গোলশূন্য ড্র হয়েছিল। এরিকসেন এ নিয়ে দেশের হয়ে ২১ গোল করলেন। এর মধ্যে ১১টিই করেন চলতি বাছাই পর্বে। অভিজ্ঞ কোচ অ্যাইজ হ্যারেইডি ২০১৬ সালে ডেনমার্কের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। এখন তার অধীনে দেশটি রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলবে। হন্ডুরাসের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার জয়টি আসে মাইল জেডিনাকের নৈপুণ্যে। তিনি একাই সবকটি গোল দেন। ৫৩ মিনিটে ফ্রি কিক থেকে গোলের সূচনার পর অপর দুটি আসে পেনাল্টি থেকে। সিডনির স্টেডিয়ামে হাজির থাকা ৭৬ হাজার ৮০ জন দর্শকও অস্ট্রেলিয়ার জয়ে অবদান রাখে। তারা বিপুল করতালির মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ার জয়কে স্বাগত জানায়। এ খেলায় রেফারিকে সাতটি হলুদ কার্ড দেখাতে হয়।
রাশিয়া বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় অঘটন হচ্ছে বাছাই পর্ব থেকে বাদ পড়েছে চারবারের সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইতালি। ১৪ নভেম্বর দ্বিতীয় রাউন্ডে প্লে-অফ ম্যাচে সুইডেনের বিপে গোলশূন্য ড্র করে ইতালি। এর আগে সুইডেনের বিপে প্রথম লেগের লড়াইয়ে ১-০ গোলে হেরেছিল ইতালি। ফলে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে জায়গা করে নিল সুইডেন। ২০০৬ সালের বিশ্বকাপে তারা শেষবারের মতো অংশ নিয়েছিল ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসরে। দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে খেলতে নামার আগে সমীকরণ ছিল বিশ্বকাপের মূল পর্বে জায়গা করে নেয়ার জন্য ইতালিকে জিততে হবে ২-০ গোলের ব্যবধানে। কিন্তু ইতালি অনেক সুযোগ পেয়েও কোনো গোল করতে না পারায় ম্যাচটি গোলশূন্যে শেষ হয়। খেলায় দুই-তৃতীয়াংশ সময়ই ইতালির নিয়ন্ত্রণে ছিল। প্রথম থেকেই অতিমাত্রায় আক্রমণাত্মক ফুটবল খেললেও ডি-বক্সে এসে যেন খেই হারিয়ে ফেলেন ইতালির স্ট্রাইকাররা। অন্তত দশটি সুযোগ পেয়েছিলেন তারা। দুটি সুযোগ কাজে লাগিয়ে তারা বিশ্বকাপের মূলপর্ব নিশ্চিত করার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু কোনো সুযোগই তারা কাজে লাগাতে পারেনি। এেেত্র সুইডেনের রণভাগকেও প্রশংসা করতেই হবে। বিশেষ করে গোলকিপার অসাধারণ খেলেছেন। এর আগে প্রথম লেগে সুইডেনের মাঠে প্রথমার্ধের খেলা ছিল গোলশূন্য। দ্বিতীয়ার্ধে ৬১ মিনিটের মাথায় দলকে এগিয়ে দেন সুইডেনের মিডফিল্ডার জ্যাকব জোহানসন। এই গোলটিই পরে আর শোধ করতে পারেনি ইতালি। মাঠ ছাড়তে হয়েছে ১-০ গোলের হতাশাজনক হার নিয়ে।
উল্লেখ্য, ১৯৩৪ ও ১৯৩৮ সালে টানা দুবার বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইতালি। ১৯৮২ সালে তারা জিতেছিল তৃতীয় শিরোপা। আর ২০০৬ সালে শেষবারের মতো বিশ্বকাপ জিতেছিল ইতালি। ১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপে দেখা যায়নি ইতালিকে। ৬০ বছর পর ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে স্থান হলো না ইতালির।

Category: খেলা

About admin: View author profile.

Comments are closed.