ফিচার

রেসিপি

প্রিয় পিঠার তালিকায় কমবেশি অনেকেরই পছন্দ পুলি পিঠা। তেলে ভেজে কিংবা সেদ্ধ করে নানা উপকরণ মিশিয়ে ভিন্ন স্বাদের পুলি পিঠা তৈরি করা যায়। তেমনি নারিকেলের তিল পুলি, দুধ পুলি, সেদ্ধ পুলি, মুগ পুলিসহ বাহারি পুলি পিঠার রেসিপি নিয়েই স্বদেশ খবর-এর চলতি সংখ্যায় আমাদের এই আয়োজন। শীতকাল আসি আসি করছে। আর এই শীতকাল মানেই পিঠাপুলির উৎসব। শহুরে অনেকেই আছেন, যারা পুলি পিঠা খেতে পছন্দ করেন কিন্তু জানেন না কিভাবে সহজে ঘরেই বানানো যায় পুলি পিঠা। তাই তাদের কথা ভেবেই খুব সহজ ও মজাদার সুস্বাদু সব পুলি পিঠা বানানোর রেসিপি দেয়া হলো।
দুধ পুলি পিঠা

উপকরণ : আড়াই কাপ চালের গুঁড়া, আধা কাপ ময়দা, দেড় কাপ পানি, আধা চা-চামচ লবণ, আধা চা-চামচ ঘি, দুধ দেড় কেজি, ১ কাপ চিনি, গুঁড়াদুধ পরিমাণমতো, ৪ টেবিল চামচ কনডেন্সড মিল্ক, দেড় কাপ কোরানো নারিকেল, এলাচ ৩টি।
প্রস্তুত প্রণালি : পিঠার ভেতরে পুরের জন্য দেড় কাপ নারিকেল কুরানো (কিছুটা রেখে দিতে হবে পরে দুধের মধ্যে দেয়ার জন্য) ৫ থেকে ৬ চামচ চিনি দিয়ে ফ্রাইপ্যানে ৭ থেকে ৮ মিনিট ভেজে নিতে হবে। এই পুর পিঠার ভেতরে দিতে হবে। দুধের সঙ্গে গুঁড়াদুধ, চিনি, কনডেন্সড মিল্ক আর এলাচ মিশিয়ে জ্বাল দিন। পিঠা বানানো হতে হতে দুধ খুব সুন্দর জ্বাল হয়ে হালকা রঙ হবে। অন্য পাতিলে পানি গরম করুন। ফুটানো পানির সঙ্গে চালের গুঁড়া ও ময়দা দিয়ে খুব ভালো করে মিশিয়ে চুলা বন্ধ করে দিয়ে খামির করতে হবে। রুটি বানানোর পিঁড়িতে গরম গরম খামির খুব ভালো করে মথে নিন।
এখন খামিরটা ১০ ভাগ করুন। এক একটি ভাগ দিয়ে ছোট ছোট রুটি বেলে অথবা হাত দিয়ে চেপে পাতলা করে ভিতরে নারিকেলের পুর দিয়ে পুলি পিঠা তৈরি করুন। এভাবে সব পিঠা তৈরি করে নিন। এখন বানানো পুলি পিঠা, ফুটিয়ে রাখা দুধের মধ্যে দিয়ে চুলার আঁচ কম রেখে ১০ মিনিট রান্না করতে হবে। হাঁড়ি আস্তে ঝাঁকিয়ে পিঠার সঙ্গে দুধ মিশিয়ে নিন। ১০ মিনিট রান্নার পর কোরানো নারিকেল দিয়ে আরও দুই থেকে তিন মিনিট রান্না করে নামিয়ে পাত্রে ঢেলে পরিবেশন করুন মজাদার দুধ পুলি পিঠা।

নারিকেলের তিল পুলি পিঠা

উপকরণ : ভাজা তিলের গুঁড়া আধা কাপ, খেজুরের গুড় ১ কাপ, এক চিমটি এলাচ গুঁড়া, দারুচিনি ২ টুকরা, আতপ চালের গুঁড়া ২ কাপ, পানি দেড় কাপ, লবণ পরিমাণমতো, ভাজার জন্য তেল দুই কাপ।
প্রস্তুত প্রণালি : কোরানো নারিকেলে গুড় দিয়ে ১৫-২০ মিনিট রান্না করতে হবে। একটু শক্ত হয়ে এলে এলাচ, তিল ও চালের গুঁড়া ছড়িয়ে আরও একটু রান্না করতে হবে। তেল উঠে পুর যখন পাকানোর মতো শক্ত হবে, তখন নামিয়ে ঠা-া করে লম্বাভাবে সব পুর বানিয়ে রাখতে হবে। এবার চালের গুঁড়া সেদ্ধ করে ভালোভাবে চুলার আঁচ কমিয়ে নাড়তে হবে, যাতে খামিরে কোনো চাকা না থাকে। অতঃপর একটু ঠা-া হলে পানি ছিটিয়ে ভালো করে ছেনে রুটি বানাতে হবে। রুটির এক কিনারে পুর রেখে বাঁকা চাঁদের মতো উল্টে পিঠে আটকে দিতে হবে। এবার টিনের পাত অথবা পুলি পিঠা কাটার চাকতি দিয়ে কেটে নিতে হবে। কিনার ভেঙেও নকশা করা যায়। গরম তেলে মচমচে করে ভাজতে হবে।

নারিকেলের পুলি পিঠা

উপকরণ : নারিকেল ১টি, চালের গুঁড়া আধা কেজি, চিনি ১ কাপ, ময়দা সোয়া কাপ, পানি ১ কাপ, লবণ পরিমাণমতো, তেল পরিমাণমতো।
প্রস্তুত প্রণালি : প্রথমে নারিকেল কুরিয়ে নিন। এবার কড়াইয়ে নারিকেল ও চিনি একসঙ্গে দিয়ে পুর তৈরি করে নিন। এবার পানি ফুটিয়ে চালের গুঁড়া ও ময়দা দিয়ে খামির তৈরি করে নিন। চালের গুঁড়া সেদ্ধ হলে নামিয়ে ভালো করে মেখে নিন। এবার ছোট ছোট লেচি কেটে পুর ভরে মুখ বন্ধ করে পুলি বানিয়ে নিন। বানানো হয়ে গেলে কড়াইয়ে তেল গরম করে ডুবো তেলে ভাজুন।

সেদ্ধ পুলি পিঠা

উপকরণ : আতপ চালের গুঁড়া ৪ কাপ, খেজুরের গুড় পরিমাণমতো, কোরানো নারিকেল ২ কাপ।
প্রস্তুত প্রণালি : আতপ চালের গুঁড়া হালকা ভেজে পরিমাণমতো পানি দিয়ে খামি করে নিন। কড়াইতে গুড় ও কোরানো নারিকেল একসঙ্গে চুলায় দিয়ে জ্বাল দিতে হবে। মিশ্রণটি শুকিয়ে আঠা আঠা করে নামিয়ে রাখুন। খামির হাতে নিয়ে গোল গোল করে বেলে মাঝখানে পুর দিয়ে অর্ধচন্দ্রাকারের আকার দিয়ে মুখটি বন্ধ করে দিন। এভাবে সব পুলি পিঠা বানিয়ে ভাপে সেদ্ধ করে গরম গরম পরিবেশন করুন। তবে ঠা-া পুলি খাওয়ারও ভিন্ন মজা আছে।