ফিচার

মাথা ব্যথা উপশমে কয়েকটি কার্যকরী তেল

মাথা ব্যথা খুবই পরিচিত একটি সমস্যা। এই সমস্যায় ভুগেননি এমন মানুষ মনে হয় না আছে। কেউ মাইগ্রেনের ব্যথায় ভোগেন, কেউ বা সাইনাসের ব্যথায়, আবার কারো মাথা ব্যথা হয় অতিরিক্ত স্ট্রেসের কারণে। মাঝে মাঝে মাথা ব্যথা সহ্যের বাইরে চলে যায়। এ ধরনের মাথা ব্যথার জন্য কত রকম পেইন কিলারই তো আমরা অনবরত খেয়ে থাকি। এসব পেইন কিলার কিডনির জন্য বেশ ক্ষতিকর। তাই চিকিৎসকরাও সহজে পেইন কিলার প্রেসক্রাইব করেন না। প্রচ- মাথা ব্যথা দূর করতে কিছু তেল আছে বেশ কার্যকরী। যারা এখনও জানেন না তাদেরকে স্বদেশ খবর-এর চলতি সংখ্যায় কয়েকটি কার্যকরী তেলের সাথে পরিচয় করিয়ে দেব যেগুলোর কয়েক ফোঁটা মিশ্রণ আপনাকে মাথা ব্যথার কষ্ট থেকে নিমিষেই মুক্তি দেবে।
রোজ অয়েল
রোজ অয়েল ভ্যাসোডায়ালেটর হিসেবে কাজ করে। এর মানে হলো ব্লাড ভেসেলগুলোকে প্রশস্ত করে রক্ত চলাচল সচল রাখে। তাই রোজ অয়েল মাইগ্রেনের রোগীদের জন্য খুব উপকারী কারণ মাইগ্রেনের ব্যথার অন্যতম প্রধান কারণ ব্লাড ভেসেলের সংকোচন। এই তেল ব্লাড ভেসেলে অক্সিজেন সরবরাহ করে মাইগ্রেন ব্যথা দ্রুত কমিয়ে দেয়।

রোজমেরি অয়েল
মাথা ব্যথার প্রাচীন চিকিৎসার অন্যতম উপাদান হিসেবে ব্যবহার হতো রোজমেরি অয়েল। এর রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি গুণ, যা ব্রেইনে অক্সিজেন সরবরাহ বৃদ্ধি করে। তাই এই তেল মাইগ্রেনের ব্যথা, ওষুধের কারণে মাথা ব্যথা ও রক্তে সুগার কমে যাওয়ার কারণে সৃষ্ট মাথা ব্যথা দূর করতে রোজমেরি অয়েল অতুলনীয়।
মাইগ্রেনের সমস্যা হলে এক ফোঁটা রোজমেরি অয়েল চা, পানি বা স্যুপের সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন। আর অন্য যেকোনো মাথা ব্যথার ক্ষেত্রে দুই ফোঁটা রোজমেরি অয়েল, দুই ফোঁটা পিপারমেন্ট অয়েল ও এক চা-চামচ নারিকেল তেল মিশিয়ে গলায়, ঘাড়ের পেছনে এবং কপালে ম্যাসাজ করুন।

বেসিল বা তুলসী অয়েল
বেসিল অয়েল পেশি রিল্যাক্সেন্ট হিসেবে কাজ করে। এই তেল টেনশনের কারণে যে মাথা ব্যথা হয় তা দূর করতে খুব উপকারী। এটি লাগিয়ে ম্যাসাজ করলে রক্ত চলাচল বৃদ্ধি পাবে। তাই এটি মাইগ্রেনের ব্যথায়ও কার্যকরী। তাছাড়া এর রয়েছে ঠা-া ও শান্তিদায়ক অনুভূতি, যা আপনি ম্যাসাজের পরই অনুভব করতে পারবেন। আপনার মাথা ব্যথার সাথে সাথে সকল স্ট্রেসও দূর করবে এই তেলের কয়েকটি ফোঁটা।
ল্যাভেন্ডার অয়েল
ল্যাভেন্ডার অয়েল ডিপ্রেশন ও উত্তেজনা কমাতে সাহায্য করে। এই তেল শরীরের লিম্বিক সিস্টেমে কাজ করে। তাই স্ট্রেস ও উত্তেজনার কারণে যে মাথা ব্যথা হয় তা দূর করে খুব সহজেই। তাছাড়া এর রয়েছে সিডেটিভ গুণ, যা আপনাকে ঘুমাতে সাহায্য করে। মাথা ব্যথার কারণে যারা ঘুমাতে পারেন না তারা রুমে হালকা ল্যাভেন্ডার অয়েল ছিটিয়ে দিন অথবা গোসলের আগে হালকা গরম পানিতে কয়েক ফোঁটা ল্যাভেন্ডার অয়েল মিশিয়ে নিন। দেখবেন এর মৃদু সুবাসে আপনার স্ট্রেস দূর হয়ে ঘুমাতে সাহায্য করবে এবং মাথা ব্যথা থেকেও মুক্তি পাবেন।

পিপারমেন্ট অয়েল
টেনশনের কারণে আমাদের যে মাথা ব্যথা হয় তা দূর করতে পিপারমেন্ট অয়েল সবচেয়ে বেশি কার্যকরী। পিপারমেন্টে থাকে কুলিং ইফেক্ট, যা পেশির সংকোচন রোধ করে এর সঞ্চালন বৃদ্ধি করে এবং রক্ত চলাচল বাড়িয়ে দেয়। ৩ ফোঁটা পিপারমেন্ট অয়েল নারিকেল তেলের সাথে মিশিয়ে কাঁধ, ঘাড়ের পেছন দিকে এবং কপালে ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করুন। দেখবেন মাথা ব্যথা কমে যাবে।

ইউক্যালিপ্টাস অয়েল
ইউক্যালিপ্টাস অয়েল এক্সপেক্টোরেন্ট হিসেবে কাজ করে, যা নাক পরিষ্কার রাখে এবং সাইনাসের প্রেসার কমায়। তাই সাইনাসের কারণে যে মাথা ব্যথা হয় তা দূর করতে ইউক্যালিপ্টাস অয়েল অত্যন্ত কার্যকরী। তাছাড়া এই তেল স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে। তাই টেনশেনের জন্য যে মাথা ব্যথা হয় সেটিও কমে যায় এই তেল ব্যবহারে। ২-৪ ফোঁটা ইউক্যালিপ্টাস অয়েল যেকোনো তেলের সাথে মিশিয়ে বুকে, ঘাড়ে, নাকে ও কপালে লাগিয়ে আস্তে আস্তে ম্যাসাজ করুন। অনুনাসিক গহ্বর পরিষ্কার হবে ও সাইনাসের সমস্যার কারণে যে মাথা ব্যথা হয় তা কমে যাবে। মাইগ্রেনের ব্যথাও নিয়ন্ত্রণ করবে এই ম্যাসাজ।

মেলিসা অয়েল
মেলিসা অয়েল এক প্রকার এক্সপেক্টোরেন্ট। এটি সাইনাসের ব্লক দূর করে মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহ করে এবং মাথা ব্যথার প্রেসার কমায়। গলা ও ঘাড়ের পেশি টানটান হয়ে যাওয়া মাথা ব্যথার আরেকটি অন্যতম কারণ। অতিরিক্ত উত্তেজনা ও স্ট্রেসে এমনটি হয়। এই অয়েল অত্যন্ত রিল্যাক্সিং। তাই এটি গলা এবং ঘাড়ে ম্যাসাজ করলে পেশি রিল্যাক্স হয় ও ব্যথা কমায়।

রোমান ক্যামোমিল অয়েল
ক্যামোমিল অয়েল সবচেয়ে ঠা-া ও আরামদায়ক তেল। তাই স্ট্রেসের কারণে সৃষ্ট মাথা ব্যথা সহজেই দূর করতে পারে এই তেল। যাদের ইনসমনিয়ার কারণে মাথা ব্যথা হয় তাদের ঘুমাতে সাহায্য করে এবং মাথা ব্যথা কমায়। শরীরের টক্সিন দূর করতে ক্যামোমিল অয়েল কার্যকরী। তাই অ্যালার্জির সমস্যা থাকলে তাও নিরাময় হয় এই তেল ব্যবহারে। ২ ফোঁটা রোমান ক্যামোমিল অয়েল চায়ের সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন।

মারজোরাম অয়েল
মারজোরাম অয়েল অ্যান্টিডিপ্রেশন, অ্যান্টি-এংজাইটি ও সিডেটিভ হিসেবে কাজ করে। এটি আপনার ডিপ্রেশন ও উদ্বেগ কমায় এবং ঘুমাতে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, মারজোরাম ব্রেইন টিস্যুকে সুস্থ রাখে, যা মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই দরকারি। তাই যে কোনোরকম মাথা ব্যথা তা টেনশনের কারণে হোক বা স্ট্রেসের জন্যÑ সবগুলোর জন্যই মারজোরাম অয়েল বেশ কার্যকরী।