ফিচার

অ্যান্ড্রয়েড ফোন দ্রুতগতি করার ১০টি উপায়

স্বদেশ খবর ডেস্ক
যদি আপনি একটি নতুন স্মার্টফোনের পেছনে হাজার হাজার টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন তবে এটি দীর্ঘ সময় স্থায়ী হবে বলে আশা করতেই পারেন। তবে দুর্ভাগ্যবশত অতি ক্ষুদ্র কারণে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোন সেটটির গতি কমে যাওয়ার মতো অনেক কারণ আছে; যা হয়ত আপনি জানেনও না। আপনি যদি মনে করেন আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনটি স্লো এবং কাজ করতে অসুবিধা হয় তবে এ ধরনের সংকট উত্তরণে নিচের প্রক্রিয়ায় চেষ্টা করতে পারেন।
১. আপনার ফোন রিস্টার্ট করুন। প্রথমেই আপনার ফোনে অন্য কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করার আগে শাটডাউন করুন অথবা আপনার ফোন পুনরায় আরম্ভ করার চেষ্টা করুন।
২. আপনার সিস্টেমের আপডেট নিশ্চিত করুন। ফোন যদি স্লো হয়ে যায় তবে সম্ভবত আপনার ফোনে সর্বশেষ আপডেট অ্যানড্রয়েড সফটওয়্যার ইনস্টল করতে ভুলে গেছেন। কোনো আপডেট আছে কি না দেখতে আপনার ডিভাইসের ঝবঃঃরহমং >অনড়ঁঃ ফবারপব >ঝড়ভঃধিৎব ঁঢ় ফধঃব এ যেয়ে দেখে নিন।
৩. প্রয়োজন হবে না এমন পুরনো ফটো, অ্যাপ এবং অন্য সবকিছু মুছে দিন। এরপরও যদি আপনার ফোন ধীরগতির হয় তাহলে প্রয়োজন হবে না এমন ফাইল মুছে ফেলুন। পুরনো ছবি এবং মিউজিক ফাইল মুছে ফেলতে ভুলে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। তবে আপনার ফোনের আবার চলমান গতি ফিরে পেতে এটা একটা গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। এছাড়া বিভিন্ন অ্যাপসের কারণে কমে যেতে পারে আপনার ফোনের গতি। কেননা অনেক অ্যাপস অনেক সময় আপনার ফোনের ব্যাকগ্রাউন্ডে চলতে থাকে যা স্লো করে দিতে পারে আপনার ফোনের গতি। এছাড়াও অনেক অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ আপনার ফোনের অনেকটুকু জায়গা দখল করে। তাই এসব অপ্রয়োজনীয় অ্যাপস মুছে ফেলাই ভালো।
৪. অ্যাপ্লিকেশন ক্যাশে হালকা করুন। আপনার ফোন কখনও কখনও একটি অ্যাপ্লিকেশনের সাথে যুক্ত ছবি ও টুকরো তথ্য সংরক্ষণ করে রাখে, যাতে এটা আপনাকে ওই অ্যাপ্লিকেশন ওপেন করার সময় বার বার ডাউনলোড করতে না হয়। এটা সাধারণত একটা ইতিবাচক বৈশিষ্ট্য কিন্তু এতেও আপনার ফোন স্লো হয়ে যায়। তাই আপনার যদি মনে হয় আপনার ফোন ধীরগতির হয়ে গেছে তবে এসব ছবি ও টুকরো তথ্য ডিলিট করে দিন। ঝবঃঃরহমং > ঝঃড়ৎধমব > ঈধপযবফ ফধঃধতে গিয়ে ক্লিয়ার করুন আপনার অ্যাপ্লিকেশন ক্যাশে।
৫. আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোন দ্রুতগতির করতে অ্যানিমেশন ব্যবহার পুরোপুরি বন্ধ করুন। অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম অ্যানিমেশন থেকে পরিত্রাণ পেতে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনে একটি সম্পূর্ণ নতুন সেটিংস মেন্যু আনলক করতে পারেন। ঝবঃঃরহমং > অনড়ঁঃ ঢ়যড়হব এ গিয়ে নিচে স্ক্রল করে ইঁরষফ ঘঁসনবৎ এ ঠিক ৭ বার ট্যাপ করুন। এই কাজ করার পরে আপনি ফোনের সিস্টেম সেটিংসে একটি ডেভেলপার অপশন মেন্যুর অ্যাক্সেস পাবেন। এই মেন্যুতে আপনি উইন্ডো অ্যানিমেশন স্কেল, অ্যানিমেশন পরিবর্তন স্কেল এবং অ্যানিমেশন সময়কাল স্কেল পাবেন। প্রতিটি ট্যাপ করে .৫ী এ সেট করুন বা বন্ধ করে দিন।
৬. আপনার ফোনটি যদি একটি পুরনো অ্যান্ড্রয়েড ফোন হয়, যা নতুন করে আপডেট নেয়ার উপযোগী নয়; তবে আপনার ফোনে একটি কাস্টম রম ইনস্টল করুন। যা সাম্প্রতিক সফটওয়্যার চালানোর অনুমতি দেবে এবং সেই সাথে এটি আপনার ফোনের বর্তমান পারফরম্যান্স মন্দ হলে তা দ্রুত রান করতেও সহায়তা করবে।
৭. আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনে ক্রোম ব্রাউজার যদি স্লো হয়ে থাকে তবে এই সমস্যা ঠিক করার জন্য একটি উপায় অবশ্য আছে। আপনার ফোনের ক্রোম ব্রাউজার দ্রুত করতে আপনার ফোনের বেশি মেমোরি ব্যবহার করার অনুমতি দিতে পারেন। এর জন্য শুধু ক্রোম খুলুন একটি নতুন ট্যাব আরম্ভ করুন এবং টজখ বারে নিম্নলিখিত কমান্ড টাইপ করুন : পযৎড়সব://ভষধমং/#সধী-ঃরষবং-ভড়ৎ-রহঃবৎবংঃ-ধৎবধ. এখন একটি মেন্যু আসবে যাতে আপনি কতটুকু মেমোরি ব্যবহার করতে চান তা পরিবর্তন করতে পারবেন। এখন ডিফল্ট ১২৮-এর জায়গায় ৫১২ নির্বাচন করুন।
৮. প্রসেসিং ক্ষমতা বেশি ব্যবহার করে এমন অ্যাপ্লিকেশনের ব্যাপারে খেয়াল রাখুন। প্রায় সময়, আপনার ফোনে বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন থেকে পাওয়া অদ্ভুত বাগ বা বিষয় দেখতে পারেন। আসলে কোন অ্যাপ্লিকেশনের কারণে এমনটা হয় তা বলা কঠিন। যদি মনে হয় আপনার ডিভাইসে এমনটা ঘটছে তবে ডধঃপযফড়ম ঞধংশ গধহধমবৎ অ্যাপটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন। এই অ্যাপ আপনার ফোনের প্রতিটি অ্যাপ কি পরিমাণ কম্পিউটার শক্তি ও রিসোর্স ব্যবহার করে তা মনিটর করে জানাতে সাহায্য করে।
৯. ব্যাকগ্রাউন্ড ডাটা নিষ্ক্রিয় করুন। বেকগ্রাউন্ড ডাটা ব্যবহার করা আপনার ফোন ধীরে চলার একটি অন্যতম কারণ হতে পারে। এটি ব্যবহার সীমিত বা বন্ধ করলে আপনার ফোনের গতি শুধু বাড়াবেই না বরং এটি আপনার প্রতি মাসে ডাটা ব্যবহার কমাতে সাহায্য করতে পারে। কোন অ্যাপগুলো ব্যাকগ্রাউন্ড ডাটা ব্যবহার করে তা দেখতে ঝবঃঃরহমং থেকে উধঃধ টংধমব এ গিয়ে দেখতে পারবেন।
১০. আপনার ফোন অসহনীয়রূপে ধীরগতির হয়ে গেলে একটি ফ্যাক্টরি রিসেটের চেষ্টা করুন। এটি আপনার তথ্য, অ্যাপ্লিকেশন, ফটো, মিউজিক সব নিশ্চিহ্ন করে ফেলবে। তাই সবকিছুর ব্যাকআপ রাখুন। একটি ফ্যাক্টরি রিসেট মূলত আপনার ফোনটিকে সেই অবস্থায় নিয়ে যাবে, যা ফোনটি কেনার সময় ছিল। এর জন্য ঝবঃঃরহমং >ইধপশ ঁঢ় থেকে ৎবংবঃ>ঋধপঃড়ৎু ৎবংবঃ এ গিয়ে রিসেট করুন।