ফিচার

রূপচর্চা

ত্বক আর চুল ঝলমলে করে তুলতে বিয়ের কনের বিশেষ টিপস

ফাগুন মানেই বিয়ের মৌসুম। এই বসন্তে আপনিও কি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে চলেছেন? আপনিও কি হতে চলেছেন নতুন কনে? অপরূপ সাজে সেজে ওঠার জন্য নতুন কনের দরকার নিয়মিত কিছু পরিচর্যা ও ট্রিটমেন্ট। নতুন কনের জন্য রইল বিয়ের দিনের মতো সেই বিশেষ দিনটিতে সেরা সুন্দরী হয়ে ওঠার কিছু বিশেষ টিপস। শহরের ভালো মানসম্পন্ন যেকোনো পার্লার থেকে সহজেই করিয়ে নিন এই সব ট্রিটমেন্ট আর বিয়ের দিন হয়ে উঠুন স্বপ্নসুন্দরী!

প্রোটিন ট্রিটমেন্ট
স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ঝলমলে চুল পেতে দরকার প্রোটিন ট্রিটমেন্ট। আর তার জন্য চাই প্রোটিন অ্যাম্পিউল। শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনারের পরিবর্তে প্রোটিন অ্যাম্পিউল লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার এই ট্রিটমেন্ট করা যেতে পারে।

হেয়ার কালার
চুলে হাইলাইট করতে ভালোবাসেন? বিয়ের দিন করিয়ে নিলে অসাধারণ দেখাবে। তবে সবার চুলের ধরন একরকম হয় না। তাই হেয়ারস্টাইলিস্টের পরামর্শ অনুযায়ী হাইলাইট করান। প্রয়োজন হলে পাকাপাকি রঙ করার আগে স্টাইলিস্টের সঙ্গে একটা দুটো সিটিং করুন। তাকে নিজের ব্যক্তিত্বের গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো খুলে বলুন। চুল রঙ করার আগে একবার প্যাচ টেস্ট করিয়ে নেবেন।

হেয়ার প্যাক ট্রিটমেন্ট
এই ট্রিটমেন্টের মূল কথা হলো একগুচ্ছ ঘন সুন্দর চুল। ট্রিটমেন্টের শুরুতেই উষ্ণ তেলে ম্যাসাজ করা হয়। তারপর স্টিম দেয়া হয়। সবশেষে হেয়ার প্যাক লাগিয়ে ধুয়ে ফেলে কন্ডিশনার দেয়া হয়। এই ট্রিটমেন্ট একটু লম্বা হয়। তাই বিয়ের এক-দু’মাস আগে থেকেই এটা শুরু করে দেয়া উচিত। কারণ ভালো ফল পেতে অন্ততপক্ষে ৬-১২টা সিটিংয়ের প্রয়োজন আছে।

হাই গ্লস হেয়ার ট্রিটমেন্ট
স্পেশাল এক ধরনের ক্রিম এবং সিরাম দিয়ে এই ট্রিটমেন্ট করা হয়। স্বাস্থ্যোজ্জ্বল, ঝলমলে চুল পেতে হলে এই ট্রিটমেন্ট একবার অন্তত হবু কনেকে করতেই হবে। এই ট্রিটমেন্টের পর চুলে যেকোনো ধরনের স্টাইল করা হয়ে উঠবে অনেক সহজ। কোনো স্টাইল না করতে চাইলেও শুধু ব্লো-ড্রাই করলেও আপনাকে দেখতে ভালো লাগবে। যারা চুলে রঙ করেছেন বা হাইলাইট করেছেন তাদের আরো বেশি করে এই ট্রিটমেন্ট করা দরকার।

ব্রাজিলিয়ান ব্লো-ড্রাই
এই ট্রিটমেন্ট চুলের ওপর কেরাটিনের একটা স্তর তৈরি করে। যার ফলে চুল অনেক স্মুথ হয় এবং চুলে জট পড়ে না। ঢাকার মতো শহর যেখানে বাতাসে আর্দ্রতার পরিমাণ অত্যন্ত বেশি, সেখানকার হবু কনেদের জন্য এই ট্রিটমেন্ট আদর্শ। ব্রাজিলিয়ান ব্লো ড্রাই ট্রিটমেন্ট করলে অনায়াসে চুলে যেকোনো স্টাইল করা যায়। তবে এই ট্রিটমেন্টের প্রভাব আপনার চুলে ঠিক কত দিন থাকবে সেটা সম্পূর্ণ নির্ভর করবে আপনার চুলের প্রকৃতির ওপর। সাধারণত এই ট্রিটমেন্টের প্রভাব চুলে দুই থেকে তিন মাস থাকে। তবে এই ট্রিটমেন্ট বেশি ঘনঘন না করানোই ভালো। কারণ এতে ব্যবহৃত রাসায়নিক চুলের ক্ষতি করতে পারে।

সেমি পার্মানেন্ট আইল্যাশ এক্সটেনশন
স্বাভাবিক চুল দিয়ে তৈরি এই আইল্যাশ বা চোখের পাতা আপনার নিজস্ব চোখের পাতার সঙ্গে আঠা দিয়ে লাগিয়ে দেয়া হয়। যে আঠা দিয়ে এটা লাগানো হয়, সেটাও খুব হালকা বলে কোনো কৃত্রিমতা চোখে পড়ে না। যাদের চোখের পাতা এমনিতেই লম্বা, তাদের এটা করার প্রয়োজন নেই। এক্সটেনশন ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ থাকে। সেমি পার্মানেন্ট আইল্যাশ এক্সটেনশন করালে মাসকারা লাগাবেন না। তেলযুক্ত ময়েশ্চারাইজার এবং মেকআপ রিমুভার চোখের আশপাশে লাগাবেন না। ঘন ঘন হাত দিয়ে চোখ কচলানোর বদঅভ্যাস থাকলে সেটাও ছাড়তে হবে।

বডি পলিশিং
এই ট্রিটমেন্ট শুরু হয় স্ক্রাব দিয়ে। স্ক্রাব ত্বকের মৃত কোষকে এক্সফোলিয়েট করে। স্ক্রাবিংয়ের পর একটা বডি ম্যাসাজ করা হয়। আর সবশেষে একটা প্যাক লাগানো হয় সারা শরীরে। হবু কনেদের জন্য মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত এত সুন্দর পরিষেবা বডি পলিশিং ছাড়া সম্ভব নয়। যদি আপনার ত্বকে রোদে পোড়া ভাব থাকে তাহলে একাধিক বডি পলিশিংও করা যেতে পারে। স্বপ্নসুন্দরী হয়ে উঠতে আর বেশি কিছু লাগবে না আপনার।