বিনোদন

আয় কমছে হলিউড তারকাদের

জনপ্রিয় ব্রিটিশ গুপ্তচর জেমস বন্ড সিরিজের পরের মুভি ‘বন্ড ২৫’-এর নামভূমিকায় অভিনয়ের জন্য আড়াই কোটি ডলার বা ২০০ কোটি টাকা পকেটে পুরেছেন ড্যানিয়েল ক্রেগ। ২০২০ সালে মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ‘রেড নোটিশ’ মুভির জন্য অভিনেতা ডোয়াইন জনসন পাবেন ২ কোটি ২০ লাখ ডলার বা ১৮০ কোটি টাকা। সম্প্রতি হলিউড তারকাদের আয় নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিশ্বখ্যাত বিনোদন ম্যাগাজিন ‘ভ্যারাইটি’। প্রতিবেদনে জনপ্রিয় বেশ কয়েকজন তারকার আয় উঠে এসেছে। ছবিপ্রতি আয়ের অঙ্কটা শুনতে বড় মনে হলেও সময়ের হিসাবে তারকাদের আয় আসলে বাড়েনি। কারণ এখন থেকে অনেক আগে সেই নব্বইয়ের দশকেই প্রায় এই পরিমাণ পারিশ্রমিক পেতেন শীর্ষ অভিনেতারা। জুলিয়া রবার্টস, জিম ক্যারি, টম হ্যাংকসরা সেই তখনই ছবিপ্রতি দুই কোটি ডলার পেতেন। সঙ্গে পেতেন ছবির আয়ের একটা অংশও। ভ্যারাইটি বলছে, স্টুডিওগুলো গ্রাফিকসের পেছনে বেশি মন দেয়ায় তারকাদের পারিশ্রমিক কমেছে। প্রতিবেদনে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিকের ব্যবধানও যে বেশি, সে বিষয়টিও উঠে এসেছে। মুভিপ্রতি ড্যানিয়েল ক্রেগ আর ডোয়াইন জনসন ২ কোটি ডলার পেলেও অস্কারজয়ী অভিনেত্রী জেনিফার লরেন্স ‘রেড স্প্যারো’ মুভিতে অভিনয় করে পেয়েছেন দেড় কোটি ডলার বা ১২০ কোটি টাকা। মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ‘বার্বি’র জন্য সমপরিমাণ পারিশ্রমিক পেয়েছেন অ্যান হ্যাথওয়ে। এ ছাড়া ‘দ্য মামি’র জন্য টম ক্রুজ পেয়েছেন ১ কোটি ১০ লাখ ডলার, ‘ইন্ডিয়ানা জোন্স’-এর নতুন কিস্তির জন্য হ্যারিসন ফোর্ড পেয়েছেন ১ কোটি ২০ লাখ ডলার, ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন হলিউড’-এর জন্য লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও পেয়েছেন ১ কোটি ডলার। ‘জুরাসিক ওয়ার্ল্ড : ফলেন কিংডম’-এর জন্য ক্রিস প্যাট পারিশ্রমিক পেয়েছেন মাত্র ৯০ লাখ ডলার।