প্রতিবেদন

কমনওয়েলথ দেশসমূহের মধ্যে কানেকটিভিটি বাড়াতে হাসিনা-প্যাট্রিসিয়া ঐকমত্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
কমনওয়েলথ দেশসমূহের মধ্যে কানেকটিভিটি বাড়াতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও কমনওয়েলথ মহাসচিব প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড কিউসি ঐকমত্যে পৌঁছেছেন।
কমনওয়েলথ মহাসচিব বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গা শরণার্থীর আশ্রয় প্রদানকে এ সময় বাংলাদেশের জন্য এক বিরাট বোঝা উল্লেখ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় প্রদান করে মহান মানবতাবোধের পরিচয় দিয়েছেন। আশ্রিত রোহিঙ্গাদের জন্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে অস্থায়ী আবাস, খাদ্য, ওষুধসহ স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করায় বিশ^ নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশ সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করছে। মানবিকতার দৃষ্টিকোণ থেকে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ অনন্য ভূমিকা রেখেছে উল্লেখ করে কমনওয়েলথ মহাসচিব বলেন, কমনওয়েলথভুক্ত সকল দেশের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত জ্ঞান, তথ্য এবং অভিজ্ঞতা বিনিময় কার্যক্রম জোরদার করার লক্ষ্যে তথ্যমূলক ওয়েবসাইট খোলা হয়েছে, যেখান থেকে প্রতিটি দেশ সৃজনশীল উদ্যোগ গ্রহণের সুযোগ পাবে। তিনি কমনওয়েলথের উদ্যোগে কুইন স্কলারশিপ এবং অ্যাসোসিয়েশন অব কমনওয়েলথ ইউনিভার্সিটি স্কলারশিপে অংশগ্রহণের জন্য বাংলাদেশিদের প্রতি আহ্বান জানান। বাংলাদেশের তৃণমূল মানুষের জন্য ১৪ হাজার ৮৯০টি কমিউনিটি ক্লিনিকের সেবাদান কার্যক্রমকে অনেক দেশের জন্য দৃষ্টান্ত হিসেবে উল্লেখ করেন কমনওয়েলথ মহাসচিব প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড।
গত ৯ আগস্ট শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড কমনওয়েলথ দেশগুলোর মধ্যে ব্যবসাবাণিজ্যের সম্প্রসারণ ঘটানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, কমনওয়েলথ দেশসমূহের মধ্যে ব্যবসা ক্ষেত্রের বাধাসমূহ কমিয়ে আনা প্রয়োজন এবং এসএমই নেটওয়ার্ক জোরদার করার জন্য কানেকটিভিটি বাড়ানো প্রয়োজন।
কমনওয়েলথ মহাসচিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন এবং উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি ব্যবসাবাণিজ্য এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের ক্ষেত্রে নারীদের অংশগ্রহণ আরো বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন। কমনওয়েলথ মহাসচিব এ সময় সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় বাংলাদেশের ভূমিকারও উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন।
কমনওয়েলথ মহাসচিব প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড শেখ হাসিনার সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার দেশে গণতন্ত্র সুসংহত এবং উন্নয়ন কর্মকা- ত্বরান্বিত করতে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। এ সময় কমনওয়েলথ মহাসচিব বলেন, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সমুন্নত রাখার ব্যাপারে তার সংস্থা সহযোগিতার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।
শেখ হাসিনা বলেন, দেশে বিগত সাড়ে ৯ বছরে উপনির্বাচনসহ স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে প্রায় ৬ হাজারেরও বেশি নির্বাচন হয়েছে। এসব নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন হয়েছে। সন্ত্রাসবাদ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকার সফলভাবে এই সামাজিক ব্যাধি মোকাবিলা করেছে। আমরা সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে নিয়ে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলেছি। আমাদের সন্তানরা যাতে সন্ত্রাসবাদের দিকে ঝুঁকে না পড়ে সেদিকেও লক্ষ্য রাখছি।
রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা এ সমস্যার সমাধানে মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। স্থানীয় লোকজনের চাষাবাদের জমি রোহিঙ্গা শরণার্থীরা দখল করে নেয়ায় স্থানীয়রা অবর্ণনীয় দুর্ভোগের মুখে পড়েছে। তিনি আবহাওয়াকে তাঁর সরকারের একটি বড় উদ্বেগের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একেবারে তৃণমূল পর্যায় থেকে নারীর ক্ষমতায়ন করা হয়েছে এবং নারীসমাজের একটি বড় অংশ দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। আমরা ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে তরুণ উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করছি। দেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি এখন ৭ দশমিক ৭৮ শতাংশে উন্নীত হয়েছে এবং মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশে নেমে এসেছে। সরকারের বিভিন্ন সময়োচিত পদক্ষেপের কারণেই এসব সম্ভব হয়েছে।
সরকার সব ধরনের খেলাধুলাকে উৎসাহিত করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশ মহিলা ক্রিকেট দল এশিয়া কাপ ক্রিকেটে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে এবং ছেলেদের ক্রিকেটেও বাংলাদেশ ভালো ফল করছে।
প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড লন্ডনে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলনে নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রদত্ত ভাষণের ভূয়সী প্রশংসা করেন। কেনিয়াতে অনুষ্ঠিত আন্তঃধর্মীয় সম্মেলনে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করে বলেন, সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধির দেয়া বক্তব্যই সব থেকে সেরা ছিল। সর্বশেষ ওশান কনফারেন্সে বাংলাদেশের ভূমিকারও প্রশংসা করেন মহাসচিব।
এ দিনের বৈঠকে ক্রিকেট বিষয়ক আলোচনায় প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড একটি কমনওয়েলথ ক্রিকেট ক্লাব গঠনের পাশাপাশি কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে জনপ্রিয় এই খেলাটির উন্নয়নে কমনওয়েলথ ক্রিকেট লীগ চালু করার বিষয়েও গুরুত্বারোপ করেন। প্যাট্রিসিয়া স্কটল্যান্ড কমনওয়েলথ সনদের একটি কপিও প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।