ফিচার

উজ্জ্বল ত্বকের প্রাকৃতিক উপাদান

স্বদেশ খবর ডেস্ক
উজ্জ্বল ত্বকের অধিকারী হতে সবাই ফেয়ারনেস ক্রিম ও পার্লারের ওপর নির্ভরশীল। এতে কিন্তু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ভয় থাকে। এই ঝামেলায় না গিয়ে আপনার চারপাশে যে অজস্র প্রাকৃতিক উপাদান রয়েছে, সেগুলোই নামমাত্র খরচে, বিনা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় আপনাকে করে তুলতে পারে আরও বেশি উজ্জ্বল ত্বকের অধিকারী।
স্বদেশ খবর পাঠকরা চলুন জেনে নিই কিভাবে ফর্সা ও উজ্জ্বল ত্বকের অধিকারী হওয়া যায়।
ত্বকের রঙ আরও ফর্সা করার জন্য দই লাগান মুখে। মিনিট কুড়ি রাখুন, এরপর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন এ রকম লাগাতে হবে।
সারা শরীরের রঙ উজ্জ্বল করতে বেসন, দই আর সামান্য হলুদের গুঁড়া মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। গোসলের সময় সাবানের বদলে এটি ব্যবহার করুন নিয়মিত।
যাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা মুগ ডাল গুঁড়া করে সামান্য পানিতে মিশিয়ে প্রত্যেক সপ্তাহে একদিন করে মুখে স্ক্র্যাব করুন। কারণ ত্বকের ওপরে মরা কোষের পরত জমে মুখের ত্বক কালো দেখায়; যা সারিয়ে তুলতে পারে মুগ ডালের মিশ্রণ।
আধা টুকরো পাকা কলা নিন। ভালোভাবে চটকে নিয়ে এতে কয়েক ফোঁটা শসার রস মেশান, মুখে গলায় লাগিয়ে রাখুন ৩০ মিনিট; এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
সারা শরীরের ত্বক উজ্জ্বল করতে বেসন ও খাঁটি সরিষার তেল একসাথে মিশিয়ে গোসলের আগে সারা গায়ে মেখে নিন। ৩০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।
শুষ্ক ত্বকের অধিকারীদের জন্য দারুণ একটি টিপস হলো ৫০ গ্রাম আমন্ড গুঁড়া, ২ চামচ মাঠা, গোটা একটা লেবুর রস, ২ চামচ চায়না কে একসাথে মিশিয়ে মুখ ও গলায় লাগান। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
স্বাভাবিক ত্বকের অধিকারীরা আরও একটি উপায়ে ফর্সা হতে পারেন। ১ চামচ চন্দনবাটা, ১ চামচ পাকা পেঁপের শাঁস একসঙ্গে মিশিয়ে সারা মুখে মেখে নিন। ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।
যদি আপনার ত্বক তৈলাক্ত হয়ে থাকে তাহলে, ৪ চামচ চন্দন গুঁড়া, ১ চামচ মুলতানি মাটি, ১ চামচ কমলালেবুর খোসার শুকনো গুঁড়া, দুধ দিয়ে মিশিয়ে মুখে ও গলায় লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।
অনেক সময়ই ঠোঁটে কালো ছোপ দেখা যায়। এই কালো ছোপ দূর করতে কাঁচা দুধে তুলা ভিজিয়ে ঠোঁটে মুছবেন। এটি নিয়মিত করলে ঠোঁটের কালো দাগ উঠে যাবে দ্রুত।
কড়া রোদের কারণে ত্বকে দেখা দেয় রোদে পোড়া দাগ। রোদে পুড়লে ত্বক জ্বলতে থাকে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে টমেটোর রস ও দুধ একসঙ্গে মিশিয়ে মুখে লাগান। এতে রোদে পোড়া দাগ দূর হবে এবং জ্বলা ভাবও কমে যাবে।
বাসন-কোসন ধোয়ার পরে হাত খুব রু হয়ে যায় অনেকের। এই সমস্যা দূর করতে বাসন মাজার পরে দুধে কয়েক ফোঁটা লেবু মিশিয়ে হাতে লাগান। এতে আপনার হাতের ত্বক মোলায়েম হবে।
বেশিরভাগ সময় কনুইতে কালো ছোপ পড়ে এবং চামড়া মোটা হয়ে যায়। এই দাগ দূর করতে চাইলে লেবুর খোসায় চিনি দিয়ে ভালো করে ঘষে নিন দাগের স্থান। এতে দাগ দূর হবে এবং কনুইয়ের চামড়া নরম হবে।
মুখে ব্রণের সমস্যায় ত্বকের তি হয় অনেক বেশি। এতে করে ত্বকের সৌন্দর্যও নষ্ট হয়। ব্রণ সমস্যার সবচেয়ে সহজ সমাধান হচ্ছে রসুনের কোয়া। রসুনের কোয়া ঘষে নিন ব্রণের ওপর। দেখবেন ব্রণ তাড়াতাড়ি ভালো হয়ে যাবে।
পিগমেন্টেশন বা ত্বকের কালো দাগ থেকে মুক্তি পেতে আলু, লেবু ও শসার রস একসঙ্গে মিশিয়ে এতে আধা চা-চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে যেখানে দাগ পড়েছে সেখানের ত্বকে লাগান। ১০ মিনিট রাখার পর ঠা-া পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে প্রত্যাশিত ফল পাওয়া যাবে।
তৈলাক্ত ত্বকে ধূলাবালি আটকে গেলে মুখ কালো দেখায় এবং ব্রণের সমস্যা হয়। এই সমস্যা দূর করতে ওটস ও লেবুর রস একসাথে মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন ৩০ মিনিট। ঠ-া পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। তৈলাক্ত ত্বক স্বাভাবিক হয়ে আসবে।