ফিচার

ত্বক ও চুলের যত্নে লেবু মধু কমলা ও কলার খোসা

মানুষের রূপের বড় একটা অংশ প্রকাশ পায় চুলের মাধ্যমে। চুলকে সুস্থ ও সুন্দর রাখতে লেবুর জুড়ি নেই। মধু, কমলা ও কলার খোসাও অনন্য।
মেছতা অথবা ব্রণের কালচে দাগ মানুষকে সবসময়ই বিব্রত করে। এই দাগ দূর করতে গোলমরিচ কার্যকর ভূমিকা গ্রহণ করে। ফেলে দেয়া কমলার খোসা ও কলার খোসা যে ত্বককে কিভাবে উজ্জ্বল করে, তা ব্যবহার না করলে বোঝা যায় না। স্বদেশ খবর পাঠকদের জন্য এই জাতীয় সাধারণ ফেলনা দ্রব্য দিয়ে রূপচর্চার বিষয়টি তুলে ধরা হলো।
লেবুর অ্যাসিডিক ধরন চুলের যতেœ অতুলনীয়। এটি চুল পড়া বন্ধ করে ও খুশকি দূর করে। চুলের বৃদ্ধি বাড়ানোর পাশাপাশি চুল ঝলমলে করতেও জুড়ি নেই লেবুর। চলুন জেনে নিই চুলের যতেœ লেবুর সহজ অথচ প্রয়োজনীয় কিছু ব্যবহার সম্পর্কে।

চুল ঝলমলে করতে
২ চা-চামচ মধুর সঙ্গে একটি লেবুর রস মেশান। মিশ্রণটি চুলে লাগান। মাথার তালুতে লাগাবেন না। কিছুণ পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। চুল হবে উজ্জ্বল ও ঝলমলে।

খুশকি দূর করতে
খুশকি থেকে মুক্তি পেতে লেবুর রস সরাসরি ব্যবহার করতে পারেন চুলে।

চুলের বৃদ্ধি বাড়াতে
নারিকেল তেলের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে মাথার তালুতে ম্যাসাজ করুন। কিছুণ পর চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে কন্ডিশনার লাগান। সপ্তাহে দু’দিন এটি ব্যবহার করলে চুল বাড়বে দ্রুত।
চুল রঙিন করতে
লেবুর রস প্রাকৃতিকভাবে ব্লিচ করে চুল। চুলে হালকা রঙিন আভা নিয়ে আসতে চাইলে লেবুর রস চুলে লাগিয়ে রাখুন ১ ঘণ্টা। দেখুন সূর্যের আলোতে কেমন ঝলমল করছে চুল!

শ্যাম্পু হিসেবে
বেকিং সোডা ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এটি শ্যাম্পু হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। পরিষ্কার হওয়ার পাশাপাশি নরম ও উজ্জ্বল হবে চুল।

ত্বকের কালো দাগ দূর করবে গোলমরিচ
মেছতা অথবা ব্রণের বিব্রতকর কালচে দাগ দূর করতে গোলমরিচ, মধু ও দই দিয়ে তৈরি একটি ফেসপ্যাক ব্যবহার করলে সহজেই দূর হবে মেছতাসহ বিভিন্ন ধরনের দাগ।

ত্বক উজ্জ্বল করবে কমলার খোসা
বিবর্ণ ত্বকে জৌলুস ফিরিয়ে আনতে চাইলে কমলার খোসার একটি ফেসপ্যাকেই ত্বক হবে উজ্জ্বল ও সুন্দর। কমলার খোসায় থাকা ভিটামিন সি ও সাইট্রিক এসিড ত্বকের ভেতর থেকে দূর করে ময়লা। এর সঙ্গে অন্যান্য প্রাকৃতিক উপাদান মিশিয়ে আরও কার্যকরী করতে পারেন ফেসপ্যাককে।

কলার খোসা ত্বক উজ্জ্বল করে
কমলার পাশাপাশি কলার খোসাও ত্বকের যতেœ অতুলনীয়। কলার খোসায় রয়েছে ভিটামিন বি ৬, বি ১২ ও সি, যা ত্বক উজ্জ্বল করে। পাশাপাশি দূর করে ত্বকের মরা চামড়া, কালচে ও রোদে পোড়া দাগ।

কলার খোসা, মধু ও লেবু
খোসাসহ অর্ধেকটা কলা চটকে পেস্ট তৈরি করুন। ১ চা-চামচ মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে ত্বকে লাগান। ১৫ মিনিট পর স্ক্র্যাব করে ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর করবে এটি।

কলার খোসা ও অ্যালোভেরা
কলার খোসার ভেতরের অংশ থেকে সাদা অংশটি আলাদা করে নিন। ১ চা-চামচ অ্যালোভেরা জেলের সঙ্গে মিশিয়ে চোখের আশপাশের ত্বকে লাগান। ১৫ মিনিট পর ঠা-া পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। চোখের ফোলা ভাব ও কালচে দাগ দূর হবে।

কলার খোসা ও বেকিং সোডা
একটি কলার খোসা পেস্ট করে ১ চা-চামচ বেকিং সোডা ও পানি মেশান। পেস্টটি পাতলা আবরণে লাগান ত্বকে। ১৫ মিনিট পর স্ক্র্যাব করে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত এটি ব্যবহার করলে ত্বকের কালচে দাগ দূর
হবে।

কলার খোসা ও গোলাপজল
এই ফেসপ্যাকটি মেছতার দাগ দূর করতে কার্যকর। কলার খোসার ভেতরের অংশ দাগের উপর ঘষুন কয়েক মিনিট। গোলাপজলে তুলা ভিজিয়ে চেপে নিন। ১৫ মিনিট পর ঠা-া পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন ত্বক।

কমলার খোসা ও কলার খোসা
একটি পাত্রে ২ চা-চামচ কলার খোসার পেস্ট ও ১ চা-চামচ কমলার খোসা গুঁড়া মেশান। দইয়ের সাহায্যে ভালো করে ফেটিয়ে নিন উপাদান দু’টি। পরিষ্কার ত্বকে ফেসপ্যাকটি লাগিয়ে রাখুন ৩০ মিনিট। ঠা-া পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের রোদে পোড়া দাগ দূর হবে।