প্রতিবেদন

যে কারণে সেন্টমার্টিন নিয়ে সরকারের বাড়তি সতর্কতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
দেশের সর্বদণি পয়েন্টে সেন্টমার্টিন দ্বীপের অবস্থান। এটি বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ। দেশের মানচিত্রে এর অবস্থান সুরতি। অথচ প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমার সাম্প্রতিক সময়ে এ দ্বীপ তাদের বলে দাবি করে ঔদ্ধত্যের চরম পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন করেছে।
মিয়ানমার সে দেশের রাখাইন রাজ্য থেকে পরিকল্পিতভাবে ১২ লাধিক রোহিঙ্গাকে বাস্তুচ্যুত করে বাংলাদেশে ঠেলে দিয়েছে। ওরা এখন বাংলাদেশে মানবিক কারণে আশ্রিত হয়ে আছে।
এই রোহিঙ্গা ইস্যুটি বিশ্বে তোলপাড় সৃষ্টি করেছে। যদিও মিয়ানমার সরকার বরাবরই এই ইস্যুর সমাধানে একগুঁয়ে মনোভাব প্রদর্শন করে চলেছে। এতে দেশটি বিশ্বব্যাপী মানবতাবিরোধী অপরাধের কাঠগড়ায় রয়েছে। পৃথিবীর বহু দেশে মিয়ানমার সরকার ও সে দেশের নেত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সুচি বিভিন্নভাবে প্রত্যাখ্যাত হয়ে আছেন। এসব বিষয় নিয়ে মিয়ানমার সরকারের সার্বিক অবস্থান নেতিবাচক পর্যায়ে রয়েছে।
রোহিঙ্গাদের ওপর বর্বরোচিত হত্যাকা-, ধর্ষণ, জ্বালাও-পোড়াও এবং জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত করার ঘটনা এবং তাদেরকে পুনরায় নিজ দেশে প্রত্যাবাসনের ইস্যুটি দীর্ঘ সময়ের জন্য চাপিয়ে রাখতেই বাংলাদেশের দ্বীপ সেন্টমার্টিন নিয়ে ষড়যন্ত্রের বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছে দেশটি। এটি বর্মী ষড়যন্ত্র ও আগ্রাসনের নতুন রূপ হিসেবে ইতোমধ্যে চিহ্নিত হয়েছে।
তাই সরকারও এক্ষেত্রে বেশ সতর্কতামূলক অবস্থানে রয়েছে। এবার সেন্টমার্টিনে কোস্টগার্ডের সাথে ভারী অস্ত্রসহ বিজিবি সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে।
জানা যায়, ২০০ বছরেরও বেশি সময় আগে টেকনাফের দেিণ সমুদ্রবে জেগে ওঠে একটি ভূখ-, যার নাম প্রথমে ছিল জিরানো (জিরিয়ে নেয়া)। পরে দ্বীপটিতে সারি সারি নারিকেল গাছ লাগানোর পর এ দ্বীপের নাম হয় নারিকেল জিঞ্জিরা। তারও পরে খ্রিস্টান সাধু মার্টিনের নামানুসারে এটির নাম হয়ে যায় সেন্টমার্টিন দ্বীপ। কালের পরিক্রমায় এই দ্বীপটি পর্যটকদের আকর্ষণের অন্যতম কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। এ দ্বীপ নিয়ে মিয়ানমার সরকার ইতঃপূর্বে কখনও কোনো ধরনের দাবি তোলেনি, এমনকি বাংলাদেশের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচার চলাকালীনও নয়। কিন্তু গত বছরের অক্টোবরে মিয়ানমার সরকারের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত মানচিত্রে সেন্টমার্টিন দ্বীপকে তাদের ভূখ-ের অংশ হিসেবে প্রদর্শন করা হয়।
বিষয়টি প্রকাশিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গত বছরের ৬ অক্টোবর ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করে এর তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়। তখন ঘটনাটি মিয়ানমারের ভুল বলে বক্তব্য দেয়া হয় এবং মানচিত্র থেকে সেন্টমার্টিনকে সরিয়ে দেয়ার আশ্বাসও প্রদান করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে আরও একদফায় মিয়ানমারের পে অনুরূপ ঘটনার অবতারণা করা হয়। শুধু তাই নয়, গত ফেব্রুয়ারি মাসেও মংডু টাউনশিপে অনুষ্ঠিত এক সেমিনারে মিয়ানমারের কর্মকর্তারা বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন দ্বীপকে তাদেরই অংশ বলে দাবি জানায়। বিষয়টি অনাহূতভাবে একটি অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা জন্ম দেয়ার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে চিহ্নিত হয়।
এ অবস্থায় ৭ এপ্রিল আকস্মিকভাবে সরকারের নির্দেশে সেন্টমার্টিন দ্বীপে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। ৮ এপ্রিল দ্বিতীয় দিন থেকে শুরু হয়েছে বিওপি (বর্ডার আউট পোস্ট) প্রতিষ্ঠার কাজ এবং সশস্ত্র বিজিবি টহল।
উল্লেখ করা যেতে পারে, ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত এ দ্বীপে তৎকালীন বিডিআর মোতায়েন ছিল। এরপর এর দায়িত্ব অর্পিত হয় বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের ওপর। এখন কোস্টগার্ডের সঙ্গে এ দ্বীপের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আবার যুক্ত হলো বিজিবি।
উল্লেখ করা যেতে পারে, দ্বীপটিতে বর্তমানে প্রায় ৮ হাজার মানুষের বসবাস রয়েছে। দেশের মূল ভূখ- টেকনাফ থেকে বিচ্ছিন্ন এ দ্বীপে ট্রলার বা জাহাজযোগে যেতে সময় লাগে প্রায় আড়াই ঘণ্টা। সমুদ্রপথে দূরত্ব প্রায় ৩২ কিলোমিটার। দ্বীপটির বিস্তৃতি প্রায় ৮ বর্গকিলোমিটার।
ব্রিটিশ শাসনামল থেকে এ দ্বীপটি কক্সবাজার জেলার অংশ হিসেবে স্বীকৃত। ১৯৩৭ সালে তৎকালীন বার্মা ও ভারত যখন বিভক্ত হয় তখন এ দ্বীপটি ভারতের অংশে পড়ে। ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের সময় দ্বীপটি পাকিস্তান রাষ্ট্রের পূর্ব পাকিস্তানের অংশে অন্তর্ভুক্ত থাকে। ১৯৭১ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় হলে তখনও এটি বাংলাদেশের সঙ্গেই অন্তর্ভুক্ত থাকে। ১৯৭৪ সালে সেন্টমার্টিনকে বাংলাদেশের অংশ ধরে নিয়েই মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা চুক্তি সম্পাদিত হয়। পরবর্তীতে সমুদ্রসীমা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে দীর্ঘ সময় মামলা চলার পর মিয়ানমারের নিয়ন্ত্রণে রাখা বিশাল সমুদ্রসীমা বাংলাদেশের অংশ হিসেবে রায় ঘোষিত হয়।
সেন্টমার্টিন দ্বীপের আয়তন প্রায় ৮ বর্গকিলোমিটার এবং উত্তর-দেিণ আড়াআড়িভাবে লম্বা। দ্বীপটির প্রস্থ কোথাও ৭০০, আবার কোথাও ২০০ মিটার। দ্বীপের পূর্ব-দণি ও পশ্চিম দিকে সাগর এলাকা পর্যন্ত রয়েছে অসংখ্য শিলাস্তূপ। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এ দ্বীপের গড় উচ্চতা ৩ দশমিক ৬ মিটার। পশ্চিম-উত্তর-পশ্চিম দিকজুড়ে রয়েছে ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটারের প্রবাল প্রাচীর। দ্বীপটির ভূপ্রকৃতি মূলত সমতল। গঠন উপাদান চুনা পাথরে। এ দ্বীপে প্রায় ৬৬ প্রজাতির প্রবাল, ১৮৭ প্রজাতির শামুক-ঝিনুক, ১৫৩ প্রজাতির সামুদ্রিক শৈবাল, ১৫৭ প্রজাতির গুপ্তজীবী উদ্ভিদ, ২৪০ প্রজাতির সামুদ্রিক মাছ, ৪ প্রজাতির উভচর ও ১২০ প্রজাতির পীকুলের অবস্থান রয়েছে। এছাড়া রয়েছে ১৯ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে সামুদ্রিক কচ্ছপ ও জলপাই রঙের কাছিম প্রজাতির ডিম পাড়ার উপযুক্ত স্থান হিসেবে এটির খ্যাতি রয়েছে। গত দুই দশকের বেশি সময়জুড়ে এ দ্বীপটি পর্যটকদের জন্য অন্যতম আকর্ষণের কেন্দ্রে পরিণত হয়ে আছে।
সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমার সরকার এ দ্বীপটিকে তাদের মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করে মূলত কোন স্বার্থ হাসিল করার অপপ্রয়াসে লিপ্ত রয়েছে তা এখনও পুরোপুরিভাবে সুস্পষ্ট নয়। সে দেশের সরকারের দুটি ওয়েবসাইটে তাদের মানচিত্রে সেন্টমার্টিনকে অন্তর্ভুক্ত করে তাদের ভূখ-ের অংশ দেখানোর অপচেষ্টা রোধে বাড়তি সতর্কতা হিসেবে ৭ এপ্রিল থেকে আপাতত স্থায়ীভাবে বিজিবি মোতায়েনের ঘটনা ঘটেছে বলে বিভিন্ন সূত্রে ধারণা পাওয়া গেছে। তবে মিয়ানমার পকে বাংলাদেশের প থেকে ইতোমধ্যে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, ২০১২ সালে সমুদ্রসীমা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের রায়েও প্রমাণিত হয়েছে প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন বাংলাদেশের অবিচ্ছেদ্য একটি অংশ।