ফিচার

ওয়াই-ফাই ইন্টারনেটের গতি বাড়াবেন যেভাবে

মেহেদী হাসান
বর্তমান সময়ে ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত থাকতে হয় বিভিন্ন প্রয়োজনে। ল্যাপটপ ও স্মার্ট ফোনের েেত্র ওয়াই-ফাই ইন্টারনেটের গুরুত্বটা একটু বেশিই। প্রয়োজনীয় মুহূর্তে ইন্টারনেট স্পিড যদি ঠিকমতো না থাকে, তখন বিরক্তির শেষ থাকে না। প্রায়ই দেখা যায়, বাসার আশপাশের অনেকেই ওয়াই-ফাই পাসওয়ার্ড জেনে গেছে এবং অগোচরে তারা ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। খেয়াল রাখতে হবে নিজস্ব ব্যবহারকারী ছাড়া অন্য কেউ যেন ওয়াই-ফাই ব্যবহার করতে না পারে। এছাড়া ইন্টারনেট স্পিড নিয়ে অভিযোগের তীর যেদিকে, সেদিকগুলো নিয়ন্ত্রণে নিয়ে গতি বাড়ানো যায়। আসুন এমন কিছু টিপস জেনে নিইÑ
– যেখান থেকে বাসার সবক’টি রুম সমান দূরত্বে রয়েছে, এমন স্থানে ওয়াই-ফাই রাউটারটি স্থাপন করুন।
– ফোর বা দেয়ালের কাছাকাছি রাউটার রাখা উচিৎ নয়। একটু উঁচু জায়গা, যেমন যেকোনো ফার্নিচারের উপর রাখা যেতে পারে।
– মাইক্রোয়েভ ওভেন, টেলিভিশন, রেডিও, মনিটর Ñ এমন ধরনের ইলেকট্রনিক্স জিনিসের কাছাকাছি রাউটার রাখলে এগুলোর নিজস্ব ওয়েভ রাউটারের সিগন্যালকে বাধাগ্রস্ত করে। তাই এ ধরনের যন্ত্র হতে রাউটারকে নিরাপদ দূরে রাখুন।
– ব্যবহারকারীর মাঝখানে দেয়াল বা অন্য কোনো বাধা থাকলে তা ওয়াই-ফাইয়ের গতিকে কমিয়ে দিতে পারে। তাই রাউটারটি এমন জায়গায় রাখুন, যাতে ব্যবহারকারীরা বাধাহীন ওয়াই-ফাই পায়।
– ব্যবহারকারী রাউটারের দূরত্বসীমার বেশি দূরত্বে অবস্থান করলে নেটওয়ার্ক এক্সটেন্ডার বা এক্সেস পয়েন্ট ব্যবহার করুন।
– অন্য কেউ রাউটারের নেটওয়ার্কে অনাকাক্সিতভাবে প্রবেশ করে থাকলে ওয়াই-ফাই স্পিড কমে যায়। তাই শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে নেটওয়ার্ক নিরাপদে রাখুন।
– অনলাইনে গেইম খেলা, ভিডিও চ্যাট করা, মুভি স্ট্রিমিং করানো ইত্যাদি কাজে প্রচুর ব্যান্ডউইথ খরচ হয়। ফলে অন্য ব্যবহারকারী ওয়াই-ফাই স্পিড কম পাবে। তাই এ ধরনের কাজের সময় ওয়াই-ফাই’তে সংযুক্ত ডিভাইসের সংখ্যা কমিয়ে নিন।
– ব্রাউজার এক্সটেনশনের মাধ্যমে এড ব্লক করতে পারেন। বিশেষ করে ভিডিও বা এনিমেশন এডগুলো ওয়াই-ফাই স্পিড কমিয়ে দেয়।

হ্যাকারের থেকে ওয়াই-ফাই রাউটারকে বাঁচান
ওয়াই-ফাই সেন্স উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমের একটি উল্লেখযোগ্য ফিচার। এর মাধ্যমে ফেসবুক ও আউটলুক থাকা ব্যবহারকারীরা পাসওয়ার্ড ছাড়াই সরাসরি শেয়ার করা ওয়াই-ফাই ব্যবহার করতে পারে। যদি হ্যাকাররা এমন সুযোগ পায়, তাহলে তো কথাই নেই। হ্যাকারের হাত থেকে বাঁচতে চাইলে ওয়াই-ফাইয়ের নিরাপত্তা বাড়িয়ে নিন।

ওয়াই-ফাই এর গতি আরও বাড়াতে
ওয়াই-ফাই এর গতি বাড়াতে হলে প্রথমে ব্যবহারকারীর সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। ওয়াই-ফাই সংযোগের গতি কমার প্রথম কারণ হতে পারে একত্রে একাধিক ব্যক্তির ওই সংযোগের ইন্টারনেট ব্যবহার। তাই ইন্টারনেটের গতি ধীর মনে হলে প্রথমে চেক করতে হবে অচেনা কেউ আপনার ওয়াই-ফাই ব্যবহার করছে কি না। ওয়াই-ফাই ব্যবহারকারী সম্পর্কে জানার জন্য রাউটারের ড্যাশবোর্ড প্রবেশ করে আইপিগুলো চেক করতে হবে। এতে জানা যাবে বর্তমানে কতজন আপনার ওয়াই-ফাই ব্যবহার করছে। সেখান থেকে অচেনা আইপিগুলো ব্লক করে দিন। এছাড়া ওয়াই-ফাইয়ের পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করেও এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন অথবা আপনাকে ‘ঝবঃঃরহমং’-এ প্রবেশ করতে হবে। এরপর এখান থেকে ঘবঃড়িৎশ ্ ওহঃবৎহবঃ-এ গিয়ে ওয়াই-ফাই অপশনটিতে কিক করে গধহধমব ডর-ঋর ংবঃঃরহমং-এ কিক করতে হবে।
তাহলে নতুন একটি উইন্ডো চালু হবে, যেখান থেকে আউটলুক, ফেসবুক, স্কাইপ কন্টাক্টগুলো আনচেক করে দিতে হবে। তাহলে হটস্পটে ওয়াই-ফাই শেয়ারিং থাকলে তা কেউ আর ব্যবহার করতে পারবে না।