কলাম

বিনিয়োগের সবচেয়ে জরুরি খাত শিক্ষা

অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান
শিার গুণগত মান নিয়ে বিতর্ক অব্যাহত রেখেও বলা যায়, বর্তমান সরকারের সবচেয়ে সফল যে ক’টি মন্ত্রণালয় আছে তার মধ্যে শিা মন্ত্রণালয় অন্যতম। শিা খাতের সাফল্য যদি আমরা পর্যায়ক্রমে আলোচনা করি তাহলে প্রথমেই বলতে হয় ‘জাতীয় শিানীতি’ প্রণয়নের কথা।
বিগত ৪০ বছরে অনেকবারই জাতীয় শিানীতি প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শিানীতি প্রণয়নের দাবি উত্থাপিত হয় পাকিস্তান আমলে। পরবর্তীতে বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর প্রতিটি সরকারই নানাভাবে চেষ্টা করেছে একটি সুসমন্বিত জাতীয় শিানীতি প্রণয়নের। কিন্তু কোনো সরকারই এ ব্যাপারে সফলতা অর্জন করতে পারেনি। কোনোবারই সবার মতামত নিয়ে একটি গ্রহণযোগ্য শিানীতি প্রণয়ন করা যায়নি। ২০১০ সালেই প্রথম সবার মতামতের ভিত্তিতে একটি সুসমন্বিত শিানীতি প্রণয়ন করা সম্ভব হয়েছে।
আমাদের শিাব্যবস্থার একটি উল্লেখযোগ্য খাত হচ্ছে মাদ্রাসা শিা। মাদ্রাসায় যারা পড়ে তারাও তো আমাদের ভাই-বোন। মাদ্রাসা শিাকেও যেন আমাদের মূল ধারার শিা কার্যক্রমের মধ্যে নিয়ে আসা যায়, শিানীতিতে সে ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।
আমাদের সবচেয়ে বড় সম্পদ হচ্ছে জনসংখ্যা। আগামী ৩০ বছর আমাদের মূল যে সম্পদ থাকবে তা হলো একটি কর্মম জনসংখ্যা। ইউরোপ-আমেরিকাসহ উন্নত দেশসমূহ, এমনকি চীন, জাপানেও যখন মানুষ বুড়িয়ে যাচ্ছে তখন আমাদের দেশে যে কর্মম জনশক্তি থাকবে তা শুধু আমাদের দেশের জন্যই নয় বরং তা পৃথিবীর জন্যও একটি বড় সম্পদ হিসেবে পরিগণিত হবে। এই বিপুল কর্মম জনসংখ্যাকে আমরা যদি প্রকৃত জনসম্পদে পরিণত করতে পারি তাহলে তারাই দেশের জন্য বিরাট অবদান রাখতে পারবে।
এজন্য প্রয়োজন ছিল যুগোপযোগী একটি শিানীতি প্রণয়ন করা। সরকার সেই কাজটি অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে সম্পন্ন করেছে। আমরা কিভাবে আমাদের শিাব্যবস্থাকে দেখতে চাই, কারিগরি শিার ওপর জোর দেয়া ইত্যাদি কাজ করার জন্য এ ধরনের একটি শিানীতি খুবই প্রয়োজন ছিল। সমাজের সবাই যাতে শিা কার্যক্রমের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে ওই শিানীতিতে সেই ব্যবস্থাই করা হয়েছে। এটা হচ্ছে নীতিগত দিক। এই নীতিগত দিক বাস্তবায়ন করতে গেলে বিশাল অঙ্কের বিনিয়োগ প্রয়োজন। বিনিয়োগের প্রশ্নটি এলেই বাজেটের প্রসঙ্গ আসে। ১৮৬৮ সালে মেইজী রেস্টোরেশনের সময়ও জাপানের সারতার হার ছিল ইউরোপের চেয়ে বেশি। ১৯০৬-১১ সালে জাপানে মোট বাজেটের শতকরা ৪৩ ভাগ বরাদ্দ ছিল শিায়। বিংশ শতাব্দীজুড়ে জাপানের যে উত্থান এবং আজও যে জাপান দেখছি তা এরই ফল।
সাধারণভাবে বলা হয়, একটি দেশের মোট জিডিপির ২০ থেকে ২২ শতাংশ শিা খাতে বিনিয়োগ হওয়া দরকার। আর বার্ষিক বাজেটের অন্তত ৭ শতাংশ শিা খাতে ব্যয় হবে। বিশ্বের অনেক দেশ, এমনকি আফ্রিকার নাইজেরিয়া বা এ ধরনের দেশগুলো এটা মেনে চলে। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ শ্রীলঙ্কা, ভারত এরাও শিা খাতে উচ্চ বরাদ্দ দিচ্ছে। কিন্তু আমাদের দেশে শিা খাতে বিনিয়োগের পরিমাণ যথেষ্ট নয়। আমাদের দেশের মোট বাজেটের দুই থেকে সোয়া দুই শতাংশ শিা খাতে বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। অবশ্য বর্তমান সরকার শিা বিস্তারে নানা কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। বিশেষ করে স্কুলে ছাত্রছাত্রী ভর্তি এবং তারা যাতে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত শিা লাভ করতে পারে তা নিশ্চিত করার জন্য নানা ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। বাধ্যতামূলক শিা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। কিন্তু সেখানেও আমাদের নানা সীমাবদ্ধতা রয়েছে; আছে নানা ধরনের সমস্যা। অনেক স্থানেই স্কুল ছিল না। কোনো কোনো স্থানে স্কুল থাকলেও হয়ত আসবাবপত্র ছিল না। বর্তমান সরকারের আমলে গত ৭ বছরে বিভিন্নভাবে অর্থাৎ সরকারি এবং বেসরকারি পর্যায়ে এসব সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে। এখন প্রায় সব স্থানেই স্কুল আছে। স্কুলে বাচ্চাদের ভর্তির হার অনেক বেড়েছে। কোনো কোনো েেত্র এটা ৯৮/৯৯ শতাংশ পর্যন্ত। অবশ্য যারা স্কুলে ভর্তি হয় তাদের সবাইকে আমরা আবার ধরে রাখতে পারি না। কারণ কিছু ছেলে-মেয়ে শিাজীবন শেষ করার আগেই ঝরে যায়। এর আগে কোনো বছরই নির্দিষ্ট সময়ে বই সরবরাহ করা সম্ভব হতো না। এ বছর (২০১৬) প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক, ইবতেদায়ী, মাধ্যমিক, দাখিল ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানের মোট ৪ কোটি ৪৪ লাখ ১৬ হাজার ৭২৮ জন শিার্থীর জন্য ৩৩ কোটি ৩৭ লাখ ৬২ হাজার ৭৭২টি পাঠ্যপুস্তক নির্দিষ্ট সময়ে অর্থাৎ শিাবর্ষ শুরুর প্রথম দিনই দেয়া হয়েছে। সারা বিশ্বের জন্য এটি একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত। বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধি দল যখন আমাদের দেশে আসেন অথবা আমাদের দেশের প্রতিনিধি দল যখন বিদেশে যান তখন তারা বিস্ময়ের সঙ্গে এ ব্যাপারে জানতে চান। এটা কী করে সম্ভব যে, শিাবর্ষ শুরু হবার প্রথম দিনই ৩৩ কোটি বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে!
আমাদের দেশে স্কুলে ছেলেমেয়ে না আসার একটি প্রধান কারণ হলো দারিদ্র্য। অনেক অভিভাবকই মনে করেন যে, তার ছেলে বা মেয়ে স্কুলে না গিয়ে যদি কাজ করে তাহলে কিছু বাড়তি আয় হতে পারে। তাই তারা ছেলেমেয়েদের স্কুলে পাঠাতে চায় না। সরকার এ বিষয়টি ল্য করে শিা উপবৃত্তির ব্যবস্থা করেছে। মেয়েদের স্কুলে আনার েেত্র উপবৃত্তি অত্যন্ত কার্যকর ভূমিকা রাখছে। লাখ লাখ মেয়ে এখন স্কুলে যাচ্ছে। স্কুলে বাচ্চাদের দুপুরে খাবার দেয়া হচ্ছে পরীামূলকভাবে।
পাকিস্তান আমল থেকে আমরা উত্তরাধিকারসূত্রে মাত্র ৪-৫টি বিশ্ববিদ্যালয় পেয়েছিলাম। শেখ হাসিনা সরকারের আমলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ৪০টির মতো। যেসব বিশেষায়িত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বর্তমান সরকারের আমলে স্থাপন করা হয়েছে সেগুলো ইতোমধ্যে সম্ভাবনার দ্বারে উপস্থিত হয়েছে। যেমন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, মেরিন বিশ্ববিদ্যালয়, টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়। ফলে উচ্চশিার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া বেশকিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হয়েছে যেগুলো ইতোমধ্যে সাফল্যের স্বার রাখতে সমর্থ হয়েছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ৮০-৯০টির মতো। কোনো কোনো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ক্যাম্পাস আছে। স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ছাত্র ভর্তির েেত্র বাংলাদেশের অবস্থান এখন বিশ্বে ষষ্ঠ বা সপ্তম। অর্থাৎ এ েেত্র আমরা ব্যাপক সাফল্য প্রদর্শন করতে পেরেছি। শিা বিস্তারের েেত্র বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এখন প্রতিযোগিতা করছে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো কোনোটির মান আন্তর্জাতিক পর্যায়ের। নতুন আরো অনেকগুলো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে। প্রথমদিকে এগুলো কিছুটা সমস্যা মোকাবিলা করলেও পরবর্তীতে তারা ঠিকই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারবে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রচুর বিনিয়োগ হচ্ছে। সরকারি সাহায্যের আশা না করেই তারা এসব শিাপ্রতিষ্ঠানে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করছে।
উচ্চশিা প্রতিষ্ঠানে লাইব্রেরি সমস্যা থাকলেও এখন আর সেটি তেমনভাবে অনুভূত হচ্ছে না। কারণ তথ্যপ্রযুক্তির যুগে সনাতন লাইব্রেরির ধারণা পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে। এখন ছাত্রছাত্রীরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো লাইব্রেরির বইপত্র পাঠ করতে পারছে।
আরো একটি বড় ঘটনা ইতোমধ্যে ঘটে গেছে যা অনেকেই জানেন না। তা হলো উচ্চশিার মানোন্নয়নের জন্য বিশ্বব্যাংক প্রাথমিক পর্যায়ে ৭০০ কোটি টাকা এবং পরবর্তীতে আরো ৭০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। এখন গ্রাম পর্যন্ত স্কুলগুলোতে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে শিা বিস্তারের কাজ করা হচ্ছে। রাজধানীর ভালো ভালো স্কুলের শিকদের লেকচার গ্রামাঞ্চলে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে প্রদর্শন করা হচ্ছে।
এক সময় আমাদের দেশে শিাটাকে একটি ঐচ্ছিক বিষয় বলে মনে করা হতো। এখন আর সে অবস্থা নেই। এখন সবাই ভাবতে শুরু করেছে যে, শিা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি বিনিয়োগ। প্রত্যেক অভিভাবক এখন তাদের বাচ্চাকে স্কুলে নিয়ে যাচ্ছে। সরকারের শিানীতি এবং এর পারিপার্শ্বিক প্রভাব পড়েছে বলে আমি মনে করি।
আমাদের মনে রাখতে হবে, শিা হচ্ছে একটি দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ। এজন্য আমাদের অবশ্যই ধৈর্য ধারণ করতে হবে।
আরো একটি বিষয় স্মর্তব্য, শুধু যেনতেনভাবে শিা বিস্তার করা হলেই জাতি প্রকৃত শিতি হতে পারবে না। এজন্য অবশ্যই মানসম্পন্ন শিার দরকার। সরকার মানসম্পন্ন শিা বিস্তারে কাজ করে যাচ্ছে। নারী শিা বিস্তারে নানা পদপে নেয়া হচ্ছে।
আমাদের শিা খাতে বিনিয়োগ আরো বাড়াতে হবে। তবে আমি মনে করি, সরকারের একার পে এই বিশাল দায়িত্ব পালন করা সম্ভব নয়। এজন্য সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে হবে। আমাদের সমাজের বিত্তবানরা স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠায় অনেক আগে থেকেই ভূমিকা রেখেছেন। দেশে বর্তমানে যেসব প্রাচীন শিাপ্রতিষ্ঠান দেখা যায় তার বেশিরভাগই বিত্তবানদের হাতে তৈরি। তারা এজন্য অর্থ দিয়েছেন, জমি দিয়েছেন। আমাদের দেশে সরকারি স্কুল বা কলেজের ধারণাটি সম্পূর্ণ নতুন। আগে বিত্তবানরাই স্কুল-কলেজ নির্মাণ করতেন। ১৯৭২-৭৩ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রাইমারি স্কুল সরকারিকরণ করেন।
আমাদের সমাজে শিা বিস্তারের েেত্র এক ধরনের ঐতিহ্য রয়েছে। এটা এখনও বিলুপ্ত হয়নি। অনেকেই এখনও শিাখাতে জনসেবায় আগ্রহী রয়েছেন। এদের খুঁজে বের করে কাজে লাগাতে হবে। কিছু মানুষের মধ্যে শিার তীব্র আগ্রহ রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন ট্রাস্ট ফান্ডের সংখ্যা সাড়ে তিন শ’র মতো। বিভিন্ন ব্যক্তি আসছেন ট্রাস্ট ফান্ড করার জন্য। অনেকেই নিজ নিজ এলাকায় অর্থ ব্যয় করে স্কুল-কলেজ করে দিচ্ছেন। আমরা যদি এটাকে উৎসাহিত করতে পারি তাহলে শিােেত্র বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ানো সম্ভব।
লেখক: উপাচার্য, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়