প্রতিবেদন

আদালতের নির্দেশনায় ভিআইপি-ভিভিআইপি বিতর্কের অবসান হলো!

নিজস্ব প্রতিবেদক
সমাজ বা রাষ্ট্রে অনেকেই ভিভিআইপি বা ভিআইপি সার্ভিস চান। কিন্তু কে বা কারা ভিআইপি, তা নিয়ে অনেক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানই অনেক সময় বেকায়দায় পড়ে যান। ভিআইপি বা ভিভিআইপি’র মানদ- নিয়েও নানা আলোচনা রয়েছে। সমাজের অনেকেই গায়ের জোরে নিজেকে ভিআইপি বলে দাবি করে ভিআইপি সুবিধা নিতে চায়। অতীতে অনেকেই প্রজাতন্ত্রের যুগ্ম সচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তা বা তার উপরের স্তরের কর্মকর্তাদের ভিআইপি বলে মনে করতেন এবং সে মোতাবেক বিশেষ সুবিধা প্রদান করার রেওয়াজ ছিল। সমাজ বা রাষ্ট্রে এ ধরনের ভিআইপিদের দৌড়ে অনেকেই তটস্থ থাকতেন। ভিআইপিদের সুনির্দিষ্ট কোনো মানদ- না থাকায় এক্ষেত্রে অনেকেই বেশ সমস্যায় পড়তেন এই ভেবে যে, কাকে কতটুকু সার্ভিস দিতে হবে – এ নিয়ে। অনেকেই বলছেন, এখন থেকে ভবিষ্যতে সম্ভবত আর কোনো ধরনের বিড়ম্বনায় পড়তে হবে না কাউকেই Ñ আদালতের সুস্পষ্ট রায় বা দিকনির্দেশনা থাকার কারণে। আদালত সুস্পষ্টভাবে বলেছেন, ‘রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ছাড়া আর কেউ ভিভিআইপি বা ভিআইপি নন, বাকি সবাই রাষ্ট্রের চাকরিজীবী।’
এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ৩১ জুলাই উচ্চ আদালত এ মন্তব্য করেছেন। একজন যুগ্ম সচিবের অপেক্ষায় ফেরিতে আটকা পড়া অ্যাম্বুলেন্সে থাকা স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যুর প্রেক্ষিতে করা রিটের শুনানিতে আদালত এমন মন্তব্য করেন।
সম্প্রতি মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি এক নম্বর ফেরিঘাটে যুগ্ম সচিব আবদুস সবুর ম-লের অপোয় প্রায় ৩ ঘণ্টা ফেরি না ছাড়ায় মোটরবাইক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যু হয়। ঘটনায় তিপূরণ চেয়ে করা রিটের শুনানিকালে আদালত ভিভিআইপি ও ভিআইপি প্রটোকলের বিষয়ে বলেন, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ছাড়া আর কেউ ভিভিআইপি বা ভিআইপি নন, বাকি সবাই রাষ্ট্রের চাকরিজীবী। একই সঙ্গে এ্যাম্বুলেন্সে স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যুর ঘটনায় তার পরিবারকে ৩ কোটি টাকা তিপূরণ কেন দেয়া হবে না জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট। ঘটনার তদন্তে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিবকে একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে কমিটি গঠন করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
জনস্বার্থে করা রিটের প্রাথমিক শুনানি শেষে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে শুনানি করেন আইনজীবী মো. জহিরুদ্দিন লিমন। রাষ্ট্রপে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।
মানবাধিকার সংগঠন লিগ্যাল সাপোর্ট অ্যান্ড পিপলস রাইটসের চেয়ারম্যান সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী জহিরুদ্দিন লিমন হাইকোর্টে ৩০ জুলাই রিট আবেদনটি করেন।
এদিকে উচ্চ আদালতের তলবে মাধ্যমিক ও উচ্চশিা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক হাজির না হওয়ায় উষ্মা প্রকাশ করেন হাইকোর্ট। তাকে ১ আগস্ট ফের তলব করা হয়।
গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি এক নম্বর ফেরিঘাটে সরকারের এটুআই প্রকল্পের যুগ্ম সচিব আবদুুস সবুর মন্ডলের গাড়ির অপোয় প্রায় ৩ ঘণ্টা ফেরি বসে থাকায় ঘাটে আটকে পড়া অ্যাম্বুলেন্সে স্কুলছাত্র তিতাস ঘোষের মৃত্যুর পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়।
উল্লেখ্য, নড়াইল কালিয়া পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র তিতাস ঘোষ মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হলে তাকে খুলনার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ৫০ হাজার টাকায় ভাড়া করা একটি আইসিইউ সংবলিত অ্যাম্বুুলেন্সে ২৫ জুলাই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির উদ্দেশে রওনা দেন পরিবারের লোকজন। রাত ৮টার দিকে কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌ-রুটের মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ১ নম্বর ভিআইপি ফেরিঘাটে পৌঁছায় অ্যাম্বুুলেন্সটি। তখন কুমিল্লা নামে ফেরিটি ঘাটে যানবাহন পারাপারের অপোয় ছিল। সরকারের এটুআই প্রকল্পের যুগ্ম সচিব আবদুস সবুর মন্ডল পিরোজপুর থেকে ঢাকা যাবেন বলে ওই ফেরিকে অপো করতে ঘাট কর্তৃপকে বার্তা পাঠানো হয়। ৩ ঘণ্টা অপোর পর ফেরিতে ওঠে অ্যাম্বুলেন্সটি। কিন্তু এর মধ্যে মস্তিষ্কে প্রচুর রক্তরণ হয়ে অ্যাম্বুলেন্সেই মারা যায় তিতাস। এ ঘটনা তদন্তে ২৯ জুলাই ৩টি কমিটি গঠন করা হয়।