প্রতিবেদন

এডিস মশা নির্মূলে নতুন ওষুধ: ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার

বিশেষ প্রতিবেদক
সারাদেশে ডেঙ্গুর প্রকোপে দুশ্চিন্তায় রয়েছে সরকার। ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। লন্ডনে অবস্থানরত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করছেন। তিনি আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের ডেঙ্গু পরিস্থিতি সামলাতে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন। সারাদেশের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষকে বাসাবাড়িসহ মশা উৎপাদন হতে পারে এমন স্থান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
পৃথক আদেশে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্য বিভাগ, স্থানীয় সরকার বিভাগ, দেশের সব সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ও সরকারি সব ছুটি বাতিল করা হয়েছে। যথাযথ বাস্তবায়ন, সমন্বয় ও নিবিড় তদারকির মাধ্যমে মশকনিধন অভিযান সফল করার ল্েয এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন মশা মারার নতুন ওষুধ আমদানি করে প্রয়োগ করতে শুরু করেছে। ঢাকা মহানগর পুলিশও ডেঙ্গু মশা নির্মূলে কর্মসূচি পালন করছে।
এদিকে ঢাকা মহানগরে ডেঙ্গুর ক্রমবর্ধমান প্রকোপের মধ্যে মশানিধনে মাঠপর্যায়ে নতুন ওষুধের পরীা চালিয়েছে দণি সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি)। গত ২ আগস্ট নগর ভবনের মূল ফটকের সামনে তিনটি খাঁচার প্রতিটিতে ৫০টি করে মশা রেখে পরীা চালানো হয়। ডিএসসিসির কর্মকর্তারা জানান, আধা ঘণ্টার পরীা শেষে দেখা যায়, খাঁচাগুলোয় যথাক্রমে ২২, ২৬ ও ১৮ শতাংশ মশা মারা গেছে।
মশার বংশ নির্মূল তথা লাভা ধ্বংসে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশ (ডিএনসিসি)। এছাড়া মশা মারতে নতুন ওষুধ আনার খবর দিয়েছেন ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম। তিনি গত ২ আগস্ট বলেন, আগামী দুই-এক দিনের মধ্যেই এডিস মশা মারার নতুন ওষুধের নমুনা আনা হবে। এসব ওষুধের নমুনা সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর পরীা করে ‘কার্যকর’ বলে প্রমাণিত হলে দ্রুতই তা কেনা হবে।
একইসঙ্গে ডেঙ্গু প্রতিরোধে ও জনসচেতনতা সৃষ্টিতে ২৪০০ যুবককে প্রস্তুত করা হয়েছে। ৫ আগস্ট থেকেই প্রাথমিক পর্যায় ৬শ’ যুবককে নিয়ে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এবং ডিএনসিসি যৌথভাবে কাজ শুরু করবে বলে জানান যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। এডিস মশা নির্মূলে প্রতিটি ওয়ার্ডকে ১০টি ভাগে ভাগ করে ৫৪ ওয়ার্ডে কাজ করবে এসব যুবক। উত্তরায় হাবিবুল্লাহ মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ডিএনসিসি এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে ওয়ার্ডভিত্তিক বাসাবাড়ি ও প্রতিষ্ঠানে এডিস মশা নিধন ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম উদ্বোধনকালে মেয়র আতিকুল ইসলাম ও যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এসব কথা জানান।

আওয়ামী লীগের ৩ দিনব্যাপী
পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান
ডেঙ্গু প্রতিরোধে সারাদেশে ৩ দিনব্যাপী পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। গত ৩ আগস্ট এ কর্মসূচির সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ডেঙ্গু নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করছে।
৩ আগস্ট রাজধানীর ফার্মগেটের আনন্দ সিনেমা হলের সামনে ডিএনসিসির ৫ নম্বর অঞ্চলের পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। এদিন সারাদেশে ডেঙ্গু প্রতিরোধে আওয়ামী লীগের ৩ দিনব্যাপী পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান কর্মসূচির সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।
এর আগে ৩১ জুলাই রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ের পাশে ধানমন্ডি খালে ৩ দিনব্যাপী পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান কর্মসূচি উদ্বোধন করা হয়।
ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকাসহ সারাদেশে আওয়ামী লীগের ৩ দিনের আনুষ্ঠানিক কর্মসূচি শেষ হলো। তবে যতদিন না এডিস মশার আক্রমণ থেকে দেশের জনগণকে রা করতে পারব, ততদিন এই পরিচ্ছন্নতামূলক ও সচেতনতামূলক কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) নেতাদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। সারাদেশে চিকিৎসকদের সমন্বয়ে একটি মনিটরিং সেল গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আজ (৩ আগস্ট) মনিটরিং সেল গঠন করা হবে। সারাদেশে যাতে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের শনাক্তকরণ, রক্ত পরীা ও চিকিৎসা হয়, তা এই সেল সার্বণিকভাবে তদারক করবে।
আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ডেঙ্গুতে ফিলিপাইনে হাজারের মতো লোক মারা গেছে, লাধিক আক্রান্ত। এই রোগ মহামারি, এটা ভিয়েতনামের রোগ। প্রতিবেশী দেশ ভারত, মিয়ানমার ও চীনেও আছে। এই রোগ থাইল্যান্ডেও ব্যাপক আকারে বিস্তার লাভ করেছে। আমরা কথা বলব না, কাজ করব। এই সময়টি অত্যন্ত সংবেদনশীল, এই সময় অতিকথন দেশের জন্য খারাপ ফল বয়ে আনতে পারে।
সমাবেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এডিস মশা ও ডেঙ্গু বিস্তার যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। এ জন্য সচেতনতা বাড়ানো ও করণীয় ঠিক করতে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। যেকোনো মূল্যে এডিস মশা ও ডেঙ্গু প্রতিহত করা হবে।
ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের আয়োজনে এ সংপ্তি সমাবেশে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা, ঢাকা-১১ আসনের সংসদ সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগসহ দেশের সব সিটি করপোরেশন ও পৌরসভায় ছুটি বাতিল
স্থানীয় সরকার বিভাগ, দেশের সব সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাপ্তাহিক ও সরকারি সব ছুটি বাতিল করা হয়েছে। যথাযথ বাস্তবায়ন, সমন্বয় ও নিবিড় তদারকির মাধ্যমে মশকনিধন অভিযান সফল করার ল্েয এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের এক অফিস আদেশে জানানো হয়েছে। এর আগে স্বাস্থ্য বিভাগের ছুটি বাতিল করা হয়েছিল।
স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের অফিস আদেশে বলা হয়েছে, এডিস মশার বংশ বিস্তারের কারণে ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। ডেঙ্গু রোগের সংক্রমণ থেকে নাগরিকদের রাকল্পে স্থানীয় সরকার বিভাগ, সিটি করপোরেশন এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দপ্তর ও সংস্থা ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এরই অংশ হিসেবে জনসচেতনতা সৃষ্টি, মশার প্রজননস্থল বিনষ্টকরণ, পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা এবং লার্ভা ও মশানিধন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে নগরবাসীকে
সুরা দিতে পারব: ডিএমপি কমিশনার
এডিস মশা ও এর লার্ভা ধ্বংস করে ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে নগরবাসীকে সুরা দিতে পারবেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। তিনি জানিয়েছেন, ঢাকা শহরে প্রায় ৫০ হাজার পুলিশ সদস্যকে এডিস মশার লার্ভা ধ্বংসে কাজ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
৩ আগস্ট রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে ডেঙ্গু প্রতিরোধী পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান নিয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন আছাদুজ্জামান মিয়া। তিনি বলেন, ‘এডিস মশা নিধন করে, মশার লার্ভাকে ধ্বংস করে ডেঙ্গুর প্রকোপ থেকে নগরবাসীকে আমরা সুরা দিতে সহায়তা করতে পারব। এ জন্য চাই সবার স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ।’ তিনি ডেঙ্গু প্রতিরোধে মহানগরবাসীকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘ডেঙ্গুর প্রকোপ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের পরিচ্ছন্নতা অভিযান চলবে। তবে ঈদের আগেই যেন এটা নির্মূল করা যায়, সে চেষ্টা করা হবে। এডিস মশার লার্ভা ধ্বংসে পুলিশের সব ইউনিটকে একযোগে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম চলাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’
আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘পবিত্র ঈদুল আজহা উপলে ৬০ থেকে ৭০ লাখ মানুষ গ্রামে যাবে। এখনই যদি ঢাকার এডিস মশা নিধন করতে না পারি, তাহলে ডেঙ্গু গ্রামেগঞ্জে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে। আমরা শুধু ডিএমপির ইউনিটগুলো পরিষ্কার করছি তা নয়, ডিএমপির বিভিন্ন থানার ৩০২ বিটের পাড়া-মহল্লায় সচেতনতা কর্মসূচি গ্রহণের জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট বিট কর্মকর্তা, অফিসার ইনচার্জ ও ডিসিদের নির্দেশ দিয়েছি। এছাড়া সিটি কাউন্সিলর ও কমিউনিটি পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে মহল্লাবাসীকে একত্রিত করে যার যার এলাকায় স্বচ্ছ পানি জমা রয়েছে, যেখানে এডিস মশার প্রজনন হতে পারে, সেসব এলাকা পরিষ্কার করে ওষুধ ছিটানোর জন্য বলা হয়েছে। আমরা যদি পুরো শহরকে এভাবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করি, তাহলে ডেঙ্গু প্রতিরোধ করা সহজ হবে।’

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ডিএনসিসির
ভ্রাম্যমাণ আদালত
ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ডেঙ্গু রোগের জীবাণুবাহী এডিস মশার বংশবিস্তার রোধে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) বিভিন্ন অঞ্চলে আদালত পরিচালনা করেছে। গত ৩ আগস্ট ডিএনসিসিতে ৬টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। গুলশান-২, পল্লবী, মিরপুর, মোহাম্মদপুর, মোহাম্মদপুর বাজার এলাকাগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এ সময় যেসব স্থাপনায় পানি জমে থাকতে দেখা যায় তাদের জরিমানা করা হয়।
গুলশান-২ এ ডিএনসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার ৫টি নির্মাণাধীন ভবন, হাসপাতাল ও দপ্তরকে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন, ২০০৯ অনুযায়ী সর্বমোট ২ লাখ ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এর মধ্যে ইউনাইটেড গ্রুপকে ২ লাখ টাকা, ৭৯ নম্বর সড়কে লেক ভিউ কিনিককে ৫০ হাজার টাকা, একই সড়কের একটি বাড়ির মালিককে ৫০ হাজার টাকা, ৮১ নম্বর সড়কে ডিজাইন স্কেইপ আর্কিটেক্ট ইনস্টিটিউটকে ৫০ হাজার টাকা, ৭৩ নম্বর সড়কে সোনিয়া গ্রুপকে ২৫ হাজার টাকা এবং ৭৩ নম্বর সড়কে মেটাল হোল্ডিংকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এসব স্থানে এডিস মশার লার্ভা ও এডিস মশা বংশবিস্তারের উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।
এছাড়া ডিএনসিসির আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তারা বিভিন্ন স্থানে ১৪৫টি আবাসিক ভবন ও স্থাপনা পরিদর্শন করেন। পল্লবী এলাকায় আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম শফিউল আজমের নেতৃত্বে এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ থাকায় এবং নির্মাণসামগ্রী ফুটপাত ও রাস্তায় রেখে জনদুর্ভোগ সৃষ্টির অভিযোগে মোট ৬টি মামলায় ৬২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।