প্রতিবেদন

জমে উঠছে রাজধানীর কোরবানির পশুর হাট

নিজস্ব প্রতিবেদক
আগামী ১২ আগস্ট পবিত্র ঈদুল আজহা। তাই চারদিকে ঈদকেন্দ্রিক সাজ সাজ রব। ঈদুল আজহার প্রধান উৎসব পশু কোরবানি। তাই কোরবানির জন্য পশু কেনার কাজ সেরে ফেলতে প্রস্তুতি শুরু করেছেন দেশের মানুষ।
রাজধানী ঢাকায় বাসা-বাড়িতে পশু রাখা একটু ঝামেলার বিষয়। পশুকে রাখার জায়গা, খাবার দেয়াসহ অন্যান্য যতœআত্তির চিন্তা করে শেষ দিকে এসে হাটে যেতে চান অনেকেই। তাই এখানকার হাটগুলো জমে উঠতে একটু দেরি হয়। তবে হাট প্রস্তুত করে রেখেছেন ইজাদাররা। পশু নিয়ে আসতে আগ্রহী বেপারিরাও ‘পজেশন’ বুকিং দিয়ে দিচ্ছেন। অনেকেই ইতোমধ্যে পশু হাটে আনতেও শুরু করেছেন। ২-৩ দিনের মধ্যেই রাজধানীর অস্থায়ী-স্থায়ী মিলে মোট ২৪টি পশুর হাট জমে উঠবে – আশা করছেন ইজারাদারা। ঈদের ১ সপ্তাহ আগে থেকে ইজারাদাররা হাট প্রস্তুত করেছেন। বেচাকেনা শুরু হবে ঈদের ৫ দিন আগে থেকে।
সরেজমিনে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কয়েকটি হাটে দেখা গেছে, বিভিন্ন এলাকা থেকে বেপারিরা এসে কোথায় গরু রাখবেন সেই স্থান বুকিং করছেন। যিনি যত আগে আসছেন তিনি বাজারে সামনের দিকে ভালো জায়গা পাচ্ছেন। বুকিং পেয়ে তারা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া নিয়ে আসছেন।
দেশীয় পশুর সঙ্গে বরাবরের মতোই কোনো কোনো হাটে মিলবে বিদেশি দুম্বা ও উট। ইতোমধ্যে হাটগুলোতে পশু আসতে শুরু করেছে। বিক্রেতার পাশাপাশি কিছু কিছু ক্রেতাও পশুর দামের ধারণা নিতে বাজারে যাচ্ছেন। অনেকেই দাম যাচাই করছেন, কিন্তু এখনই কিনছেন না। ধারণা নিয়ে পরে কেনার জন্য মনস্থির করছেন। কোরবানির পশুর হাটে ক্রেতাদের স্বচ্ছন্দে কেনাকাটার সুবিধার্থে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। হাটের প্রবেশপথ জটমুক্ত রাখাসহ নিরাপত্তায় নেয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। হাটে হাটে স্থাপন করা হয়েছে একাধিক ওয়াচ টাওয়ার। ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ক্যাম্পও থাকছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পোশাকধারী ও সাদা পোশাকের সদস্যরা হাটে দায়িত্ব পালন করবে। পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ভ্যাটেরিনারি চিকিৎসকদের টিম কাজ করবে। এছাড়া হাটগুলোতে জাল নোট শনাক্তের জন্য বাণিজ্যিক ব্যাংকের বুথ রাখা হয়েছে।
সূত্র জানায়, কোরবানির পশুর অস্থায়ী হাটের ইজারাদারকে ডিএনসিসির দেয়া অন্যতম শর্ত ছিল, ঈদের ৫ দিন আগে থেকে পশুর হাট বসানো যাবে এবং হাট বসার দু’দিন আগে ইজারাদার হাটের প্রস্তুতিমূলক কাজ শুরু করতে পারবেন।
পবিত্র ঈদুল আজহার তারিখ ১২ আগস্ট। সে হিসাবে ৭ আগস্ট থেকে নগরে হাট বসার কথা। এর দু’দিন আগে অর্থাৎ ৫ আগস্ট থেকে ইজারাদাররা হাটের বিভিন্ন প্রস্তুতিমূলক কাজ শুরু করতে পারবেন।
বিভিন্ন হাট ঘুরে দেখা যায়, ইজারাদারের লোকজন হাটের বিভিন্ন কাজের তদারকি করছেন। শ্রমিকরা কেউ গর্ত খুঁড়ছেন, কেউ বাঁশ কাটছেন বা বাঁশ বেঁধে দিচ্ছেন। মাটি ও বালু ফেলে উঁচু-নিচু জায়গা সমান করা হচ্ছে, বিদ্যুতের সংযোগ দেয়া হচ্ছে, ওয়াচ টাওয়ার করা হচ্ছে। খাবার হোটেল, হাটের একাধিক গেট বা তোরণ নির্মাণ হচ্ছে। এছাড়াও পশু ট্রাক থেকে নামানোর জন্য মাটি দিয়ে উঁচু টিলার মতো তৈরি করতে দেখা গেছে।
মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত অনুসারে মিরপুরের গাবতলী স্থায়ী গবাদি পশুর হাটসহ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মিলে রাজধানীতে মোট ২৪টি হাটে এবার কোরবানির পশু বেচাকেনা হবে।

দণি সিটি করপোরেশনের হাট
এবার দণি সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) ১৪টি স্থানে অস্থায়ী কোরবানির পশুর হাট বসবে। গত কোরবানির ঈদের ১৩টি স্থানে হাট বসেছিল, নতুন করে আমুলিয়া মডেল টাউনের আশপাশের খালি জায়গায় এবার হাট বসবে। এছাড়া উত্তর শাহজাহানপুরের খিলগাঁও রেলগেট-মৈত্রী সংঘ মাঠ, ঝিগাতলা হাজারীবাগ মাঠ, লালবাগ রহমতগঞ্জ খেলার মাঠ, কামরাঙ্গীরচর ইসলাম চেয়ারম্যান বাড়ির মোড়, পোস্তগোলা শ্মশানঘাট, শ্যামপুর বালুর মাঠ, মেরাদিয়া হাট, ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের সামসাবাদ মাঠ, কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, শনিরআখড়া-দনিয়া কলেজ মাঠ, ধূপখোলা ইস্ট অ্যান্ড কাব মাঠ, ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউয়ার টেক মাঠ ও আফতাব নগর ইস্টার্ন হাউজিং মেরাদিয়া বাজার।

উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার হাট
উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকার মধ্যে উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের ২ নম্বর সেতুর পশ্চিমে গোলচত্বর পর্যন্ত সড়কের উভয় পাশের ফাঁকা জায়গা, খিলতে বনরূপা আবাসিক প্রকল্পের খালি জায়গা, খিলতে ৩০০ ফুট সড়ক সংলগ্ন উত্তর পাশে, ভাটারা (সাইদ নগর), ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের খেলার মাঠ, মোহাম্মদপুর বুদ্ধিজীবী সড়ক সংলগ্ন (বছিলা) পুলিশ লাইনসের খালি জায়গা, মিরপুর সেকশন-৬ (ইস্টার্ন হাউজিং) খালি জায়গা, মিরপুর ডিওএইচএসের উত্তর পাশে সেতু প্রোপার্টি, উত্তরখান মৈনারটেক শহীদ নগর হাউজিংয়ের খালি জায়গায় অস্থায়ীভাবে পশুর হাট বসবে। আর উত্তর সিটির অধীন গাবতলী স্থায়ী পশুর হাট তো আছেই।

জাল নোট শনাক্তে বুথ
ঢাকা উত্তর ও দণি সিটির বিভিন্ন স্থানের কোরবানির পশুর হাটে ২৪টি জাল নোট শনাক্তকরণ বুথ বসানো হবে। একই সঙ্গে সারাদেশের সরকার অনুমোদিত কোরবানির পশুর হাটেও জাল নোট শনাক্তকরণ বুথ বসানো হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রজ্ঞাপনে কোরবানির পশুর হাটে জাল নোট শনাক্তকরণ বুথ বসানোর জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের কর্মকর্তারা ক্রেতা-বিক্রেতাদের নোট যাচাইকরণ সেবা দেবেন।