প্রতিবেদন

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বিসিএসসিএল ও আকাশ ডিটিএইচের মধ্যে চুক্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ থেকে ডিটিএইচ সেবা প্রদানে বাণিজ্যিক চুক্তি স্বার করেছে বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড (বিসিএসসিএল) এবং বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্স লিমিটেড। এ চুক্তির আওতায় বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্স স্যাটেলাইট ট্রান্সপন্ডার এবং আপ-লিংকিং সেবা গ্রহণ করে গ্রাহক পর্যায়ে ‘আকাশ ডিটিএইচ’ সেবা প্রদান করবে।
রাজধানীর বাংলামটরে বিসিএসসিএল অফিসে গত ২৯ জুলাই এ সংক্রান্ত দুটি চুক্তি স্বারিত হয়। বিসিএসসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরীয়ার আহমেদ চৌধুরী এবং বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্সের সিইও ডিএস ফায়সাল হায়দার চুক্তিতে স্বার করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিসিএসসিএলের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্সের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা লুৎফর রহমান, হেড অব টেকনোলজি আনোয়ারুল আজিম ও মহাব্যবস্থাপক (বিজনেস প্ল্যানিং ও সাপ্লাই চেইন) জিয়া হাসান খান।
বিসিএসসিএলের চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশের অগ্রগতি ও জনকল্যাণে প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার চায় সরকার। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ থেকে ডিটিএইচ সেবা সেই প্রচেষ্টারই অংশ। বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্সের আকাশ ডিটিএইচ গ্রাহক পর্যায়ে এ সেবা নিরবচ্ছিন্ন ও মানসম্পন্ন উপায়ে নিশ্চিত করতে পারবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।
বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ আমাদের জাতীয় গৌরব ও অর্জনের প্রতীক। এই উপগ্রহ থেকে ডিটিএইচ সেবা দিতে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ। এ সেবা উন্নত করার ব্যাপারে আমরা বিভিন্ন উপায়ে চেষ্টা করছি।
উল্লেখ্য, গত মে মাসে দেশের প্রথম ডিটিএইচ অপারেটর ‘আকাশ’ যাত্রা শুরু করে। এই সেবার মাধ্যমে দর্শকরা ডিটিএইচ (ডিরেক্ট টু হোম) প্রযুক্তির সেবা গ্রহণের অবাধ স্বাধীনতা ভোগ করতে পারবেন।
দেশের ২০টি জেলায় আকাশ ডিটিএইএচ বাণিজ্যিকভাবে সেবা প্রদান করছে। জেলাগুলো হলো ঢাকা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি, সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, কিশোরগঞ্জ, নরসিংদী, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, কুমিল্লা, নোয়াখালী, ফেনী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও সুনামগঞ্জ। শিগগিরই দেশের অন্যান্য জেলায়ও অনুমোদিত খুচরা বিক্রেতাদের কাছ থেকে এ সেবা পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
অপরদিকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাই-১ মহাকাশে সফলভাবে উৎপেণের বর্ষপূর্তি উদযাপনের পর চলতি বছরের ১৯ মে থেকে এর বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয়। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ (বিএস-১)-এর বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গঠিত বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড (বিসিএসসিএল) ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন করেছে।
বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট উৎপেণ করে, যা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ (বিএস-১) নামে পরিচিত। ২০১৮ সালের ১২ মে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট উৎপেণ করে একই বছরের ৪ সেপ্টেম্বর থেকে সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (এসএএফএফ) চ্যাম্পিয়নশিপ ম্যাচটি পরীামূলক সম্প্রচার করে। এরপর পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন চ্যানেলের সঙ্গে সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে পরীামূলকভাবে সম্প্রচার করা হয়। অবশ্য উৎক্ষেপণের ৬ মাস পর এর দায়িত্ব বুঝে পায় বাংলাদেশ। স্যাটেলাইটটির রণাবেণ, পরিচালনাসহ সব দায়িত্ব তখন থেকে পালন করছে বিসিএসসিএল।
বিসিএসসিএল কর্তৃপ জানায়, প্রথম বর্ষপূর্তি উপলে টেলিভিশনের পাশাপাশি ক্যাবল ছাড়া টিভি দেখার সুযোগ ‘ডিরেক্ট টু হোম’ সেবা (ডিটিএইচ) ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট সেবার উদ্যোগ স্যাটেলাইটের সঙ্গে যুক্ত হয়। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সঙ্গে চুক্তি হস্তান্তর করেছে দীপ্ত টিভি, বিজয় টিভি, মাই টিভি, সময় টিভি, বাংলা টিভি, যমুনা টিভি, সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এবং ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড।
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট স্থাপনের মূল উদ্দেশ্য ছিল দেশের দুর্গম অঞ্চলগুলোতে টেলিযোগাযোগ স্থাপন, নিরবচ্ছিন্ন সম্প্রচার সেবা নিশ্চিত করা। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় ফাইবার অপটিক নেটওয়ার্ক বা ট্রান্সমিশন টাওয়ার তিগ্রস্ত হলেও যোগাযোগ ব্যবস্থা যেন ব্যাহত না হয়। দেশের সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন স্টেশনগুলোকে এই স্যাটেলাইটের আওতায় আনার পরিকল্পনার কথাও বলা হয়েছিল।