প্রতিবেদন

যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ শেখ কামালের জন্মদিন পালন : অপশক্তির ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের

নিজস্ব প্রতিবেদক
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ কামালের ৭০তম জন্মবার্ষিকী গত ৫ আগস্ট যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হয়। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো সকাল ৮টায় ধানমন্ডির আবাহনী কাব প্রাঙ্গণে শহীদ শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ ও সকাল ৯টায় বনানী কবরস্থানে তাঁর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে কোরআনখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। বনানী কবরস্থানে শহীদ শেখ কামালের কবরে আওয়ামী লীগের পে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ শেষে দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।
তিনি বলেন, আগস্ট মাস এলেই একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি ষড়যন্ত্র শুরু করে। আগস্টের বাতাসে ষড়যন্ত্রের গন্ধ।
শোকাবহ আগস্টকে ঘিরে ষড়যন্ত্রকারীরা যাতে কোনো নাশকতা করতে না পারে সেজন্য দলীয় নেতাকর্মীসহ মুক্তিযুদ্ধের পরে সকল শক্তিকে সতর্ক থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প থেকে আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প থেকে আমি আমাদের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিচ্ছি, ডেঙ্গু মোকাবিলা, বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াতে এবং আগস্টের কর্মসূচিতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করতে। তিনি বলেন, আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবার নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এই আগস্ট মাসেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রাইম টার্গেট করে গ্রেনেড হামলা করা হয়েছে আমাদেরই সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে। ওই গ্রেনেড হামলায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউ রক্তাক্ত হয়েছিল। এটা নিশ্চয়ই সবার মনে আছে। এছাড়াও আগস্ট মাসে বাংলাদেশের ৬৩ জেলায় একযোগে সিরিজ বোমা হামলা হয়েছিল। এমনকি ধানমন্ডি ৩২ নম্বরেও হামলার পরিকল্পনা ছিল। আমরা সতর্ক ছিলাম বলেই তারা তাদের চক্রান্ত কার্যকর করতে পারেনি।
শহীদ শেখ কামাল প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট ঘাতকদের আঘাতে শেখ কামাল আমাদের মাঝ থেকে বিদায় নিয়েছেন। আমরা আজ এ শহীদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি। শেখ কামালের যোগ্যতা, সাহস এবং নেতৃত্বে যে গুণ ছিল তাতে তিনি তারুণ্যের রোল মডেল হওয়ার যোগ্যতা রাখতেন।
শেখ কামালকে তারুণ্যের এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের তরুণেরা তাঁকে অনুসরণ করলে সৃষ্টিশীল তারুণ্য সৃষ্টি হতে পারে। তার এ জন্মদিনে আমরা শপথ নেব, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে শেখ কামালকে অনুসরণ করে আমরা নব উদ্যমে এগিয়ে যাব।
এর আগে আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী সংগঠনসমূহের নেতাকর্মীরা শেখ কামালের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ সময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বনানী কবরস্থান মসজিদে শেখ কামালের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফিলে অংশগ্রহণ করেন। আওয়ামী লীগের প থেকে শ্রদ্ধা নিবেদনের পরে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দণি, আওয়ামী যুবলীগ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, আওয়ামী স্বেছাসেবক লীগ, যুব মহিলা লীগ, কৃষক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, জাতীয় শ্রমিক লীগসহ অসংখ্য সংগঠন শহীদ শেখ কামালের সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে।
শেখ কামালের জন্মদিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়ার নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক, চিকিৎসক, কর্মকর্তা, নার্স ও কর্মচারীরা তার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন।
এছাড়াও যুবলীগ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দণি, স্বেচ্ছাসেবক লীগ মহানগর উত্তর ও দণি, ছাত্রলীগ মহানগর উত্তর ও দণি, ঢাকা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ, আবাহনী ক্রীড়া কমপ্লেক্সের পরিচালকবৃন্দ, আবাহনী সমর্থক গোষ্ঠী, আবাহনী কর্মকর্তা ও খেলোয়াড়রাসহ বিভিন্ন সংগঠন শেখ কামালের সমাধি ও প্রতিকৃতিতে পৃথকভাবে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। ধানমন্ডির আবাহনী লিমিটেডে ক্রীড়া কমপ্লেক্সে শহীদ শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদনকালে অন্যদের মধ্যে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, শিামন্ত্রী ও দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে শেখ কামালের ৭০তম জন্মবার্ষিকী উপলে আবাহনী কাব প্রাঙ্গণে ‘শেখ কামাল: উদ্দীপ্ত তারুণ্যের দূত’ শীর্ষক স্মারক গ্রন্থের উন্মোচন ও সংবাদচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। স্মারক গ্রন্থটির সম্পাদক কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান চৌধুরী নাফিজ সরাফাত।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, বাংলাদেশের ক্রীড়ােেত্র শেখ কামালের অবদান স্মরণে পদক চালু করা হবে।
অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশীদ, বাফুফে সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন, স্বাধীন বাংলা ফুটবল টিমের ম্যানেজার তানভীর মাজহার তান্না প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
জয়িতা প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ইয়াসিন কবির জয় বলেন, দেশের বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় ও জেলায় শেখ কামালের দুর্লভ সব আলোকচিত্র প্রদর্শনীর পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।