খেলা

ফুটবল বিশ্বকাপ বাছাইয়ে বাংলাদেশ-ভারত সমানে সমান

ক্রীড়া প্রতিবেদক
ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের শুরুটা ছিল স্বপ্নের মতোই। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সেই স্বপ্ন ভেঙে খান খান হয়ে যায়। যুব ভারতীতে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের স্বপ্ন শেষ হয়েছে ১-১ গোলে ড্রয়ের মধ্য দিয়ে।
বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া ম্যাচের আগে দৃঢ় কণ্ঠে জানিয়েছিলেন, তারা ভারতের হৃদয় ভেঙে দিতে চান। বলেছিলেন, ভারতকে হারালে দেশের ফুটবলে ঘটবে বড়সড় পরিবর্তন।
কলকাতার সল্ট লেকের যুব ভারতী স্টেডিয়ামে খেলা শুরুর আগে বলা কথাগুলোই যেন প্রতিফলিত করছিল এক ঝাঁক লাল-সবুজ সৈনিক। র‌্যাংকিংয়ে ৮৩ ধাপ এগিয়ে থাকা প্রতিপক্ষের হৃদয় ভাঙার সবরকম আয়োজনই তারা করেছিলেন। কিন্তু নিয়তি বরাবরের মতো এবারও নিষ্ঠুর আচরণ করল বাংলাদেশের সঙ্গে। আগের দু’বারের মতো এবারও শেষ মুহূর্তের গোল বাংলাদেশকে দিয়েছে একরাশ হতাশা। প্রতিপক্ষের মাঠে প্রায় ৬০ হাজার ভারত-সমর্থকের সামনে বুক চিতিয়ে খেলেও কাক্সিক্ষত জয় পায়নি বাংলাদেশ। ৮৮ মিনিটে গোল করে ম্যাচটা কোনোমতে ১-১ ড্র করে মান বাঁচিয়েছে ভারত।
ম্যাচে বাংলাদেশ জিততে পারত তিন-চার গোলের ব্যবধানে। কিন্তু ওই যে নিয়তির নিষ্ঠুরতা। তা-ই বাংলাদেশকে ফের রেখেছে জয়শূন্য। ঠিক যেমনটা হয়েছিল ২০১৩ সালে নেপালের কাঠমান্ডুতে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ আর ২০১৪-তে ভারতের গোয়ায় প্রীতি ম্যাচে। কাঠমান্ডুতে ১ গোলের লিড নিয়ে বাংলাদেশ যখন উৎসবের প্রস্তুতি নিচ্ছিল, ম্যাচটা যখন শেষ বাঁশির অপেক্ষায়, সেই ইনজুরি টাইমে সুনীল ছেত্রীর গোলে ভারত ১-১ গোলে সমতা আনে। পরের বছর সেই সুনীল ছেত্রীরই ইনজুরি টাইমের আরেকটি গোল কেড়ে নেয় বাংলাদেশের জয়। আর এবার ছেত্রীর জায়গাটা নিয়ে নিলেন ডিফেন্ডার আদিল খান। ৪২ মিনিটে সাদ উদ্দিনের গোলে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ আবারো যখন জয়ের দ্বারপ্রান্তে, ঠিক তখনই কর্নার থেকে আদিলের হেড ভেঙে দেয় জামাল ভূঁইয়াদের জয়ের স্বপ্ন।
বিশ্বকাপ বাছাইয়ে বহুদিন জয় পায় না বাংলাদেশ। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাইয়ে খেলা ৮ ম্যাচে থাকতে হয়েছে জয়শূন্য। এবারও প্রথম দু’ম্যাচে আফগানিস্তান ও কাতারের কাছে হারার পর ১৫ অক্টোবর জিততে মরিয়া ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু কখনো দুর্বল ফিনিশিং, কখনো ভারতীয় গোলরক্ষক ও ডিফেন্ডারদের দৃঢ়তা, আবার কখনো সাইডবার বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে বলেই সব চেষ্টা বিফলে গেছে। প্রতিপক্ষের মাটি থেকে ১ পয়েন্ট নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তাদের।
ম্যাচটা বাংলাদেশ খেলেছে ঠিক কাতার ম্যাচের কৌশলেই। অপরিবর্তিত একাদশ নিয়ে ৪-১-৪-১ ফরমেশনে প্রথমে নিজের ঘর সামলানো। এরপর প্রতি আক্রমণের সুযোগ লাগানোর চেষ্টা। অন্যদিকে হাই প্রেসিং ফুটবল খেলে ভারত চেয়েছে শুরুতেই বাংলাদেশকে ব্যাকফুটে ঠেলে দিতে। তারা আক্রমণ সাজিয়েছে দুই প্রান্ত ব্যবহার করে। কিন্তু ইয়াসিন খান, রিয়াদুল হাসান, রায়হান হাসান ও রহমত মিয়াকে নিয়ে গড়া বাংলাদেশের রক্ষণ কোনো ছাড় দেয়নি প্রতিপক্ষকে। শুরুতেই বাংলাদেশ পেনাল্টি পেয়ে যেতে পারত। প্রথম মিনিটে বাম দিক দিয়ে বল নিয়ে দ্রুত ঢুকে পড়েছিলেন মোহাম্মদ ইব্রাহিম। তাকে বক্সে রাফ ট্যাকেল করেন ভারত ডিফেন্ডার আনাস এদাথোদিকা। যদিও রেফারির চোখ এড়িয়ে যায় তা। ৩২ মিনিটে প্রতিআক্রমণ থেকে ভারত ডিফেন্ডার আদিলের কাছ থেকে বল কেড়ে নিয়ে বিপলু আহমেদ ডান দিক দিয়ে বক্সে ঢুকে যে শট নেন তা কোনোমতে পা ছুঁয়ে রক্ষা করেন ভারতের গোলরক্ষক গুরপ্রিত সিং। দু’মিনিট পর ভারতের ভালো একটি সুযোগ নস্যাৎ করে দেন বাংলাদেশের গোলরক্ষক রানা। রাহুল ভেকের লম্বা থ্রো-ইনে মানভির সিংয়ের ব্যাক হেড ফিস্ট করে কর্নার করেন রানা। ৩৭ মিনিটে রায়হান হাসানের লম্বা থ্রো-ইনে রিয়াদের হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ৪২ মিনিটে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। সেটা ভারতের আস্থার প্রতীক গোলরক্ষক গুরপ্রিতের ভুলেই। যেই গুরপ্রিত ঠিক আগের ম্যাচেই কাতারের ২৭টি প্রচেষ্টা ঠেকিয়ে নায়ক বনে গিয়েছিলেন সেই তিনিই বাম প্রান্ত থেকে জামাল ভূঁইয়ার লম্বা ফ্রি কিকে ফ্লাইট মিস করে বসেন। সুযোগে আনমার্কড সাদউদ্দিন দারুণ হেডে বল জালে জড়ান।
দ্বিতীয়ার্ধের ৫১ মিনিটে প্রতি আক্রমণ থেকে বিপলুর ডিফেন্স চেরা পাসে জীবনের বাঁ-পায়ের প্লেসিং গুরপ্রিত কোনোমতে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন। ৫৫ মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর সেরা সুযোগ নষ্ট হয় বাংলাদেশের। প্রতি আক্রমণ থেকে বল পেয়ে বক্সের বাম কোণা থেকে ইব্রাহিমের জোরালো শট ক্রসবারে লেগে ফিরে এলে হতাশ হতে হয় বাংলাদেশকে। ৬০ মিনিটে এই ম্যাচে বাংলাদেশের সেরা পারফরমার ইব্রাহিম দারুণ এক গোললাইন সেভ করে দলের জাল সুরক্ষিত রাখেন। অনিরুধ থাপার কর্নারে আনাসের হেড ইব্রাহিম গোললাইন থেকে হেড করে কর্নার করেন। ৭৩ মিনিটে ফের গোলবঞ্চিত হয় বাংলাদেশ। এবারও প্রতি-আক্রমণ থেকে পাওয়া লম্বা বলে জীবন চেয়েছিলেন গুরপ্রিতের মাথার ওপর দিয়ে উড়িয়ে বল জালে পাঠাতে। কিন্তু আদিল খান গোললাইন থেকে তা ফিরিয়ে ভারতকে রক্ষা করেন। এই আদিল খানই ৮৮ মিনিটে ভারতকে সমতায় ফিরিয়েছেন সতীর্থের কর্নারে লক্ষ্যভেদী হেড করে।
ভারতের হৃদয় হয়ত পুরোপুরি ভাঙতে পারেনি বাংলাদেশ। জয়টাও থেকেছে অধরা। তবে জামালরা এই ড্রয়ে অন্তত ভারতকে নিজেদের পরিবর্তনটা বুঝিয়ে দিয়েছে কড়ায় গ-ায়।