প্রতিবেদন

ডি-৮ এর ১০ম শীর্ষ সম্মেলন হবে ঢাকায়

বাংলাদেশ আগামী বছরের এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহে ৮টি বৃহৎ মুসলিম রাষ্ট্রের সংগঠন ডি-এইটের ১০ম সম্মেলনের আয়োজন করবে। ডি-এইটের মহাসচিব জাফর কুশারি ৩১ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে এসে এ তথ্য জানান।
উল্লেখ্য, ১৯৯৭ সালে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও পারস্পরিক সহযোগিতার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সংস্থা ডি-৮ প্রতিষ্ঠা করা হয়। এই জোটের সদর দপ্তর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। ডি-৮ সদস্য দেশগুলো হচ্ছে বাংলাদেশ, মিশর, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, মালয়েশিয়া, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান ও তুরস্ক।
ডি-এইটের আসন্ন ঢাকা সামিটে বাংলাদেশ সংস্থাটির পরবর্তী চেয়ারম্যানশিপ গ্রহণ করবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ২০২০ সাল এবং স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী ২০২১ উদযাপনের সময়টাতে বাংলাদেশ ডি-৮ এর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবে।
ডি-৮ মহাসচিব জাফর কুশারি বলেন, আগামী দিনগুলোতে ডি-৮ সদস্যভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতা আরও বাড়বে। ঢাকা ঘোষণায় নতুন নতুন ধারণা ও উদ্ভাবন কৌশল গ্রহণ করা হবে। ডি-৮ভুক্ত দেশগুলোর জন্য বাংলাদেশকে আলাদা একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল বরাদ্দেরও প্রস্তাব দেন মহাসচিব।
এর জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ সারাদেশে ১০০ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে। ডি-৮ দেশগুলোর বিনিয়োগকারীদের জন্য অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে বিশেষ ব্যবস্থা থাকবে। সদস্যদেশগুলোর মধ্যে ইনোভেটিভ অংশীদারিত্ব, নতুন নতুন পরিকল্পনা গ্রহণসহ ডি-৮কে শক্তিশালী করতে মহাসচিবের গতিশীল নেতৃত্বের প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী।
বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসা করে ডি-৮ মহাসচিব বলেন, অন্য দেশগুলোর জন্য বাংলাদেশ অনুসরণীয় মডেল। এক্ষেত্রে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ডি-৮ মহাসচিব সদস্য দেশগুলোর মধ্যেকার কানেকটিভিটি শক্তিশালী করার ওপর জোর দেন।