রাজনীতি

ডিসিসি নির্বাচনকেন্দ্রিক উত্তেজনায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নতুন বছরের জানুয়ারিতে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচন করতে চায় নির্বাচন কমিশন। ডিসেম্বরের শেষের দিকে নির্বাচনি তফসিল ঘোষণা করতে পারে ইসি। তবে কেউ কেউ বলছেন, এই নির্বাচন মার্চে অনুষ্ঠিত হবে। তবে নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ বিভিন্ন দলে রাজনৈতিক উত্তাপ ক্রমেই বাড়ছে। সব রাজনৈতিক দল বিশেষ করে দেশের অন্যতম বৃহৎ রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বিএনপিই ডিসিসি নির্বাচনকেন্দ্রিক ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে। কাকে কাকে প্রার্থী করা হতে পারে তা নিয়ে দলগুলো নিজেদের মধ্যে গোপন বৈঠক করছে। প্রার্থী বাছাইয়ের জরিপ কার্যক্রমও হাতে নেয়া হয়েছে বলে দল দুটির সংশ্লিষ্ট সূত্র দাবি করছে।
ঢাকা উত্তর ও দণি সিটি করপোরেশনের নির্বাচন আগামী জানুয়ারি মাসে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। জানুয়ারির মাঝামাঝি বা শেষের দিকে ভোট হবে বলে ইসির প থেকে কমিশনের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন ইসির জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আলমগীর। সম্প্রতি রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে নিজের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সচিব এ তথ্য জানান।
ইসির সিদ্ধান্তের কথা জানতে পেরে মতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নতুন করে নড়েচড়ে বসেছে। এবার বিএনপি নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত থাকবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েই সামনে এগুচ্ছে বলে দলের একটি সূত্র জানায়। তবে মেয়র প্রার্থী ঠিক কাকে করা হবে তা নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে নানান জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়েছে।
ঢাকার দুই সিটির জন্য মতাসীন দল আওয়ামী লীগ আগে থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছে। ঢাকা-উত্তর ও দণি সিটি করপোরেশন নির্বাচন সামনে রেখে দলীয় প্রার্থী খুঁজতে শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। চলছে প্রার্থী বাছাইয়ের জরিপ কার্যক্রমও। বাছাই শেষে প্রার্থী তালিকায় হতে পারে রদবদল। ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছে আওয়ামী লীগ। মহানগরীর নেতারা নির্বাচনের ব্যাপারে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখছে। এরই মধ্যে প্রার্থী বাছাইয়ে মাঠ জরিপ শুরু করেছেন দলটির শীর্ষ নেতারা।
আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে খোঁজা হচ্ছে অধিকতর যোগ্য প্রার্থী। দলের জন্য নিবেদিত, নিজ এলাকায় সামাজিক কর্মকা-ে সম্পৃক্ত ও জনপ্রিয় Ñ এমন নেতা খুঁজছেন তারা। বর্তমান দুই মেয়র দেিণর সাঈদ খোকন ও উত্তরের আতিকুল ইসলাম আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিবেচনায় থাকলেও মশা নিধন, অতিকথনসহ নানা অভিযোগ রয়েছে দক্ষিণের সাঈদ খোকনের বিরুদ্ধে।
ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনে ২০১৫ সাল থেকে দায়িত্ব পালন করছেন অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রয়াত মোহাম্মদ হানিফের ছেলে মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। তবে সূত্র বলছে, ডেঙ্গুসহ বেশকিছু বিষয়ে সমালোচনা ও বিতর্কে জড়ানোয় এ মুহূর্তে তাকে দলের প্রার্থী ধরা হলেও বিকল্প চিন্তাও করা হচ্ছে। দেিণ যোগ্য ও জনপ্রিয় কাউকে পাওয়া গেলে এ পদে প্রার্থী পরিবর্তন করতে পারে আওয়ামী লীগ।
এেেত্র সাবের হোসেন চৌধুরী, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দীন ও শাহে আলম মুরাদের নাম শোনা যাচ্ছে। এছাড়া প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম ও আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন।
অপরদিকে ঢাকা উত্তর সিটিতে মেয়র পদে দলের বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী নেতা আলোচনা রয়েছেন। উত্তরের আতিকুল ইসলাম বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন। চলতি বছরের ৭ ফেব্রুয়ারির উপনির্বাচনে জয়লাভ করে এখন পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করছেন। এর বাইরে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানকের নামও বেশ জোরেশোরে শোনা যাচ্ছে। এছাড়া দলীয় মনোনয়ন চাইবেন ব্যবসায়ী হক গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আদম তমিজী হক। তাছাড়া প্রার্থীর তালিকায় সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এ কে এম রহমত উল্লাহ, সাদেক খান, সাবেক সংসদ সদস্য সারাহ বেগম কবরী ও ব্যবসায়ী নেতা এসএ মান্নান কচি’র নামও রয়েছেন।
অপরদিকে মতাসীন আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে আন্দোলনের অংশ হিসেবে সংসদ ও রাজপথের বিরোধী দল বিএনপি ঢাকা উত্তর ও দণি সিটি নির্বাচনসহ দেশের বিভাগীয় সিটিগুলোতে নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য সম্প্রতি নির্দেশ দিয়েছে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। এ নির্দেশের পর দলটির শীর্ষ নেতারা ভেতরে ভেতরে প্রস্তুতি গ্রহণ করছেন বলে জানা গেছে।
নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে ঢাকা উত্তর ও দণি সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রস্তুতি সভা শুরু করেছে দলের নেতাকর্মীরা। লন্ডন থেকে তারেক রহমানও এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট নেতাকর্মীকে প্রয়োজনীয় পরামর্শও দিচ্ছেন। এ দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের জন্য প্রাথমিকভাবে প্রার্থীও ঠিক করেছে বিএনপি। তবে কৌশলগত কারণে প্রার্থীদের নাম আগাম ঘোষণা করছে না। নির্বাচনের কাছাকাছি সময় মেয়র প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করার কৌশল নেয়া হয়েছে।
ঢাকা উত্তর ও দণি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে অংশ নিতে বিএনপির বেশ ক’জন নেতা দৌড়ঝাঁপ করছেন। তবে সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে দুজনকে প্রাথমিকভাবে মনোনীত করে রেখেছে দলীয় হাইকমান্ড। এ দুজন হলেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের জন্য বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে ও দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল, ঢাকা দণি সিটি করপোরেশনের জন্য সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইঞ্জিনিয়ার ইসরাক হোসেন। মেয়র পদে তাদের মনোনয়ন প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত এ দুজনকেই মনোনয়ন দেয়া হতে পারে বলে বিএনপি সূত্রে জানা গেছে।
এই দুই প্রার্থীকে প্রাথমিকভাবে বাছাইয়ের পাশাপাশি পরবর্তী সব নির্বাচনে অংশ নেয়া এবং কিভাবে নির্বাচনে দলের জন্য সুফল বয়ে আনা যায় সে কৌশলও নির্ধারণ করছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে নির্বাচন কমিশনকে চাপে রাখতে নানামুখী কৌশল নেয়া হচ্ছে। দলীয়ভাবে নির্বাচন কমিশনে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি রাখার পাশাপাশি বিদেশি কূটনীতিক ও বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনকে চাপে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।
আর এসব ঘিরে ডিসিসি নির্বাচনকেন্দ্রিক রাজনৈতিক উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে।