প্রতিবেদন

সেনাবাহিনীর অর্ডন্যান্স কোরের শহীদদের স্মরণে ‘মৃত্যুঞ্জয়ী-৭১’ উদ্বোধন

সেনাবাহিনীর অর্ডন্যান্স কোরের বীর শহীদদের স্মরণে নির্মিত মেমোরিয়াল ওয়াল ‘মৃত্যুঞ্জয়ী-৭১’ ও এর নামফলক ৩০ ডিসেম্বর ঢাকা সেনানিবাসের সেন্ট্রাল অর্ডন্যান্স ডেপোর (সিওডি) মেন গেট সংলগ্ন স্থানে উদ্বোধন করা হয়। সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই মেমোরিয়াল ওয়াল উদ্বোধন করেন।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সেনাসদরের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারসহ ঢাকা সেনানিবাসে কর্মরত সেনাবাহিনীর বিভিন্ন ফরমেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সিওডির অর্ডন্যান্স কোরের সকল শহীদ পরিবারের সদস্য, সিওডির সকল অফিসার ও বিভিন্ন পদবির জেসিও উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, অসংখ্য বীর শহীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা আমাদের গর্ব। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের একেবারে শুরু থেকেই অর্ডন্যান্স কোরের বিভিন্ন পদবির সামরিক ও অসামরিক বীর সেনানীরা মাতৃভূমিকে মুক্ত করতে পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে জীবনবাজি রেখে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। বিভিন্ন স্থানে বীরত্বের সঙ্গে যুদ্ধ করে এই কোরের সামরিক ও অসামরিক সদস্য মিলে মোট ৪৫ জন শহীদ হন। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যাতে সঠিক ইতিহাস জানতে এবং অনুসরণ করতে পারে সেই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে এই বীর শহীদদের স্মরণে সেন্ট্রাল অর্ডন্যান্স ডেপো (সিওডি)-এর মেন গেট সংলগ্ন স্থানে (বিমানবন্দর সড়কের পাশে) ১৯৭৫ সালে তৎকালীন সিওডি কমান্ড্যান্ট পরবর্তীতে জাতীয় সংসদের সাবেক ডেপুটি স্পিকার কর্নেল শওকত আলী (অব.) একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করেন। স্মৃতিস্তম্ভটি স্থানান্তর করে সকলের জন্য দর্শনের উপযুক্ত স্থান হিসেবে বর্তমান অবস্থানে পুনর্নির্মাণ করে এর নামকরণ করা হয়েছে ‘মৃত্যুঞ্জয়ী-৭১’।
মহান মুক্তিযুদ্ধে বাঙালি জাতি পাকিস্তানের বর্বর হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল নামফলক সংবলিত এই দেয়ালটি সেই প্রতিরোধেরই প্রতীকী প্রকাশ, যার মাঝে অর্ডন্যান্স কোরের ৪৫ জন বীর শহীদের নাম অলঙ্কৃত হয়েছে।