খেলা

শেষ হলো মুজিববর্ষ কাপ অ্যামেচার গলফ চ্যাম্পিয়নশিপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক
বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশনের সার্বিক তত্ত্বাবধান এবং কুর্মিটোলা গলফ কাবের আয়োজনে ‘মুজিববর্ষ কাপ অ্যামেচার গলফ চ্যাম্পিয়নশিপ ২০২০’ ঢাকা সেনানিবাসস্থ কুর্মিটোলা গলফ কাবে ৭ জানুয়ারি শুরু হয়েছে। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করেন। টুর্নামেন্ট শেষ হয় ১১ জানুয়ারি।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর জেনারেল মো. এনায়েত উল্লাহ, সেক্রেটারি জেনারেল ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. তাজুল ইসলাম ঠাকুর, টুর্নামেন্ট ডাইরেক্টর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবিদুর রেজা খান (অব.), জয়েন্ট সেক্রেটারি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিএসএম হামিদুর রহমান (অব.), ওরিয়ন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালমান ওবাইদুল করিম এবং মুজিববর্ষ কাপ অ্যামেচার গলফ চ্যাম্পিয়নশিপ অর্গানাইজিং কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদুদ্দিন খান (রুমি) উপস্থিত ছিলেন।
টুর্নামেন্টের উদ্বোধন উপলে কুর্মিটোলা গলফ কাবে প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশনের মহাসচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. তাজুল ইসলাম, টুর্নামেন্ট ডাইরেক্টর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবিদুর রেজা খান (অব.), বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশনের যুগ্ম-সচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিএসএম হামিদুর রহমান (অব.) ও বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশনের কোঅর্ডিনেটর লে. কর্নেল মো. আবদুল বারি (অব.)।
উপস্থিত কর্মকর্তাগণ বাংলাদেশ অ্যামেচার গলফ টুর্নামেন্ট সংক্রান্ত বিষয়ে প্রিন্ট ও ইলেকট্র্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের অবহিত করেন এবং বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশ অ্যামেচার গলফ টুর্নামেন্ট একটি গুরুত্বপূর্ণ আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট। ১৯৮২ সালে প্রথম বাংলাদেশ অ্যামেচার গলফ চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে জনপ্রিয় এ খেলাটি এ বছর চতুর্থবারের মতো ওরিয়ন গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপনের ল্েয আন্তর্জাতিক এ প্রতিযোগিতাটির নামকরণ করা হয়েছে ‘মুজিববর্ষ কাপ অ্যামেচার গলফ চ্যাম্পিয়নশীপ ২০২০’।
আন্তর্জাতিক এ গলফ চ্যাম্পিয়নশিপ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ জাতীয় দল ছাড়াও আফগানিস্তান, ইরান, চীন, ভুটান, নেপাল, মালয়েশিয়া ও শ্রীলংকার সেরা অ্যামেচার গলফাররা অংশগ্রহণ করেন। ২২ জন বিদেশি গলফারসহ সর্বমোট ২০৫ জন গলফার (পুরুষ ১৮০ ও মহিলা ২৫) এ প্রতিযোগিতায় অংশ নেন।
১১ জানুয়ারি প্রতিযোগিতার সমাপনী দিনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।
টুর্নামেন্টে পুরুষ এককে শিরোপা জেতেন বাংলাদেশের মো. সম্রাট শিকদার। মহিলা এককে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক সোনিয়া আক্তার শিরোপা জেতেন। মহিলা দলগত ইভেন্টে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সৈনিক নাসিমা আক্তার এবং সৈনিক জাকিয়া সুলতানা শিরোপা জেতেন।