ফিচার

দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়ার কিছু গোপন রহস্য

সুমাইয়া সুমি : দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়া কি অনেক কঠিন? সংসার জীবনে কুড়িটা বছর পার করে দেয়ার পরও অনেকেই নিজেদেরকে সুখী দম্পতি হিসেবে দাবি করতে পারেন না। তাহলে কি দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়া সম্ভব নয়?
প্রেম করে বিয়ে করেন অথবা পারিবারিকভাবে – উভয় ক্ষেত্রেই দম্পতির অভিযোগ, বিয়ের পর নাকি ভালোবাসা কমে যায়। প্রেমের বিয়ের ক্ষেত্রে এই অভিযোগটি বেশি শোনা যায়। কিছু সময় যাওয়ার পর পারিবারিক বিয়ের ক্ষেত্রেও এই অভিযোগ শোনা যায়।
দাম্পত্য জীবনে সুখী থাকাটা কিন্তু খুব কঠিন কিছু নয়। চোখ মেলে তাকালেই আমাদের চারপাশে অনেক সুখী দম্পতি দেখতে পাওয়া যাবে। কিছু বিষয়ের ওপর নির্ভর করে দাম্পত্য জীবনে সুখী হওয়া। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক সুখী দাম্পত্য জীবনের গোপন রহস্য।

একটুখানি ছাড়
দুইজনকে নিয়ে সংসার। তাই বলে দু’জনকেই কোনো কোনো ক্ষেত্রে একেবারে ১০০% ছাড় দিতে হবে বিষয়টি কিন্তু তেমন নয়। কোনো একটি ব্যাপারে একজন ছাড় দিল, অপর আরেকটি বিষয়ে আরেকজন ছাড় দিন। কিছু কিছু বিষয়ে নিজেরা আলোচনা করে দুইজনে ছাড় দিন। দেখবেন ঝগড়া তো দূরের কথা, মনোমালিন্যও হচ্ছে না।

খোলা মনে সঙ্গীর কথা শুনুন
অসুখী দম্পতি নিজেদের কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন না। বরং তারা পরস্পরের ভুল, নিন্দা করতে বেশি ব্যস্ত থাকেন। আপনার সঙ্গীর কথা শুনুন এবং বোঝার চেষ্টা করুন। নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধি করুন।

অহেতুক ঝগড়া বন্ধ করুন
ঝগড়া কোনো সমস্যার সমাধান হতে পারে না। ঝগড়া না করে কথা বলে সমাধান করার চেষ্টা করুন। অপরজনের দৃষ্টিভঙ্গি বোঝার চেষ্টা করুন। সঙ্গীর মতামতকে গুরুত্ব দিন।

একসাথে সময় কাটান
যতই ব্যস্ত থাকুন না কেন, দিনের কিছুটা সময় একসাথে কাটান। তা হতে পারে বাচ্চাদের সাথে এক সাথে খেলা করে বা পোষা প্রাণীটির সাথে নিয়ে ঘুরতে বের হওয়া। বিকেলের চা’টা একসাথে পান করতে পারেন।

একসাথে রান্না করুন
যেকোনো ছুটির দিন একসাথে রান্না করার চেষ্টা করুন। হয়ত পুরুষ সঙ্গীটি রান্না জানেন না, তাও তাকে আপনার পাশে রাখুন। ছোট এই একটি ব্যাপার আপনাদের সম্পর্ককে আরো সুন্দর করে তুলবে।
সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য কাজ করুন
যেকোনো সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্য যতেœর প্রয়োজন, প্রয়োজন ভালোবাসার। আপনি হয়ত ভাবছেন বিয়ের পর চিরদিনের জন্য আপনার সঙ্গীটিকে পেয়ে গেছেন, সম্পর্ক উন্নতির জন্য এখন আর কিছু করা লাগবে না।
আপনি ভুল ভাবছেন। সম্পর্ক গড়ে তোলার চাইতে টিকিয়ে রাখা কঠিন। আপনি যদি শুধু দায়িত্ব পালন করেন, তবে নিজে সুখী হতে পারবেন না এবং সঙ্গীকেও সুখী করতে পারবেন না। সম্পর্ককে ধরে রাখতে অবশ্যই আপনাকে কাজ করতে হবে। নিজের ভালোবাসা প্রকাশ করতে হবে।

একটি আলাদা রুম রাখুন
দূরত্ব কিছু কিছু সমস্যা ঠিক করে দেয়। বাসার একটি ঘর আলদা রাখুন। যখন নিজেদের মধ্যে ঝগড়া হবে, রাগ করবেন তখন আলাদা রুমে গিয়ে থাকুন। এই দূরত্বটুকু নিজেদের আরোও কাছে নিয়ে আসবে।
দাম্পত্য সম্পর্কে ভালোবাসার পাশাপাশি শ্রদ্ধা, সততা থাকা প্রয়োজন। নিজেদেরকে সময় দিন, ভালোবাসুন এবং পরস্পরকে বোঝার চেষ্টা করুন। বিশেষ করে একজন আরেক জনকে গুরুত্ব দিতে হবে, অবহেলা করলে চলবে না। তা হলে দেখবেন আপনারাও হয়ে উঠছেন সবচেয়ে সুখী দম্পতি।