প্রতিবেদন

কাউকেই করুণা করছে না করোনা

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনা মহামারি তার ভয়াবহ রূপ নিয়ে বিশ্বজুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। কাউকেই করুণা করছে না করোনা। গরিব থেকে ধনী, শিশু থেকে বৃদ্ধ Ñ সবাই আক্রান্ত হচ্ছেন করোনায়। বৃদ্ধরাই আক্রান্ত হচ্ছেন বেশি। মৃত্যুর সময় তারা চোখের জল ফেলছেন আক্ষেপ নিয়ে। প্রিয়জন কাউকেই কাছে পাচ্ছেন না তারা। সংক্রমণের ভয়ে অতি কাছের জনেরাও দূরে থাকছেন। এর চেয়ে মর্মান্তিক আর কী হতে পারে!
করোনা ভাইরাসে মৃত্যু নিয়ে বাংলাদেশের একজন ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন, ‘প্রভু, এমন মৃত্যু দিও না, যে মৃত্যুতে জানাজার জন্য মানুষ পাওয়া যাবে না।’
করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে ঘরে বসেই অফিস করার ঘোষণা দিয়েছে দেশি-বিদেশি অনেক কোম্পানি। তবে সংক্রমণ রোধে কর্মস্থলে কী প্রস্তুতি নেয়া প্রয়োজন এবং কর্মীদের কী করণীয় সে বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জরুরি নির্দেশনা দিয়েছে।
ভাইরাস মোকাবিলায় কর্মস্থল পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যসম্মত রাখা নিশ্চিত করতে বলেছে সংস্থাটি। সবকিছু জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কারের পরামর্শ দিয়েছে তারা। যার মধ্যে আছে ডেস্ক, টেবিল, টেলিফোন, কী-বোর্ড ইত্যাদি। আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এসব সামগ্রীর মধ্য দিয়েও ভাইরাস ছড়িয়ে যেতে পারে।
অফিসে আসা যেকোনো ব্যক্তির জন্য সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে। অফিসে পর্যাপ্ত জীবাণুনাশক, হাত ধোয়ার সামগ্রী, মাস্ক ও টিস্যু পেপার রাখতে হবে। হাত ধোয়াসহ প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধির পোস্টার লাগিয়ে কর্মীদের সচেতন রাখতে হবে। জরুরি মুহূর্তে কর্মদিবস কমিয়ে আনতে হবে। খুব জরুরি না হলে অফিসে বৈঠকসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান নিয়েও ভাবতে বলেছে তারা। কারণ, এসবে অংশগ্রহণকারী কোনো ব্যক্তি নিজের অজান্তেই করোনা ভাইরাস বয়ে আনতে পারেন। মুখোমুখি বৈঠক এড়িয়ে টেলিফোন কনফারেন্স বা অনলাইনে তা করা যায় কি না, সেটি বিবেচনা করতে হবে। বৈঠকে উপস্থিত কেউ শুষ্ক কাশি, জ্বর, অসুস্থতা বোধ করলে তার ব্যাপারে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে হবে।
এতসব সতর্কতা সত্ত্বেও অনেককে অনেকের সঙ্গে মিশতে হয়। বিশেষ করে বিভিন্ন দেশের মন্ত্রী, এমপি, প্রভাবশালীদের বিভিন্ন মিটিং-কনফারেন্সে যেতে হয়। আর এর মাধ্যমে তারা আক্রান্ত হচ্ছেন করোনায়। তাদের পরিবারের সদস্যরাও আক্রান্ত হচ্ছেন।
সম্প্রতি অনেক মন্ত্রী, এমপি, প্রভাবশালী ব্যক্তি স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছেন, কারো কারো শরীরে প্রাণঘাতী ভাইরাসটির উপস্থিতি মিলেছে। নতুন করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়া বিশ্বের জনপ্রিয় ব্যক্তিত্বদের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। স্বদেশ খবর পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলোÑ
যুক্তরাষ্ট্র: প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের শরীরে ভাইরাসটি পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করা ব্রাজিলের একটি প্রতিনিধি দল নতুন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হওয়ার পর ট্রাম্পকে পরীক্ষা করা হয়।
যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামি রাজ্যের মেয়র ফ্রান্সিস সুয়ারেজ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে আসার পর ৯ জন আইনপ্রণেতাও কোয়ারেন্টিনে আছেন।
এছাড়া অস্কারজয়ী হলিউড তারকা টম হ্যাঙ্কস ও তার স্ত্রী রিটা উইলসন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ঠা-া-জ্বরের মতো উপসর্গ দেখা দেয়ায় গত সপ্তাহে তারা দু’জনেই পরীক্ষা করিয়েছিলেন।
কানাডা: কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর স্ত্রী সোফি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাকে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন রাখা হয়েছে। কোয়ারেন্টিনে থেকে ট্রুডো দায়িত্ব পালন করছেন। কোনো লক্ষণ না দেখায় তাকে পরীক্ষা করা হয়নি।
ফ্রান্স: দেশটির ৪ জন রাজনীতিবিদ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তারা হলেন সংস্কৃতিমন্ত্রী ফ্রাঙ্ক রিস্তার, বাস্তুসংস্থানমন্ত্রী ব্রুনে পয়েরসন, একজন সংসদ সদস্য, পার্লামেন্টের এক কর্মকর্তা।
স্পেন: স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজের স্ত্রী মারিয়া বোগোনিয়া গোমেজ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তারা দু’জনই লা মনক্লোয়ায় (মাদ্রিদে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন) আছেন। তারা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা অনুসরণ করছেন। দেশটির সমতা বিষয়ক মন্ত্রী আইরিন মনতেরোও ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
ব্রাজিল: যুক্তরাষ্ট্র সফরে আসা ব্রাজিলের একটি প্রতিনিধি দলের তিন সদস্য করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে। তারা হলেন ওয়াশিংটনে ব্রাজিলের শার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স, একজন সিনেটর ও প্রেসিডেন্টের প্রেস সচিব।
যুক্তরাজ্য: ব্রিটেনের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী নাদিন ডোরিস ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন। কয়েক দিন আগেই প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তবে নিজের মধ্যে কোনো লক্ষণ নেই বলে এখনই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।
ইরান: সংসদের আট শতাংশ সদস্য প্রাণঘাতী ভাইরাসটিতে আক্রান্ত। ২৯০ জন সংসদ সদস্যের মধ্যে ২৩ জনের শরীরে ভাইরাস মিলেছে। দুই সংসদ সদস্য ফাতেমা রাহবার ও মোহাম্মদ আলী রামেজানি করোনায় মারা গেছেন। ইরানের উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইরাজ হারিসি এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট মাসুমেহ এবতেকারও আক্রান্ত হয়েছেন।
অস্ট্রেলিয়া: দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পিটার ডাটনের শরীরে করোনা ভাইরাস ধরা পড়েছে। এর এক সপ্তাহ আগে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার, হোয়াইট হাউসের জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা ইভানকা ট্রাম্প ও হোয়াইট হাউসের কয়েকজন কর্মকর্তার সঙ্গে তার বৈঠক হয়।
জাপান: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন সম্প্রতি ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্র ঘুরে আসা জাপান ফুটবলের প্রধান ও জাপান অলিম্পিক কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান কোজো তাশিমা। তার স্বাস্থ্য পরীক্ষায় করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তার মাধ্যমে কেউ যদি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকেন সে জন্য তাদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন তিনি।
২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ৮ মার্চ পর্যন্ত ইউরোপের বিভিন্ন দেশ ও যুক্তরাষ্ট্র সফর করেন তাশিমা। সম্প্রতি সার্বিয়ান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান স্লাভিসা কোকেসা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর পাওয়ার পর তাশিমার শরীরে এই ভাইরাসের উপস্থিতি আছে কি না তা পরীক্ষা করা হয়। আর তারপরই তাশিমা আক্রান্ত বলে ঘোষণা দেয়া হয়।
অন্যান্য: ইতালির ফুটবল তারকা ডানিয়েল রুগানি, ফরাসি এনবিএ বাস্কেটবল খেলোয়াড় রুডি গোবার্ট ও ডনোভন মিচেল, আর্সেনাল ফুটবল ক্লাবের কোচ মিকেল আর্তেতা, ব্রিটিশ ফুটবল তারকা ক্যালাম হাডসন ওডোই এবং চিলির সাহিত্যিক লুই সেপুলভেদা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।