প্রতিবেদন

আইইবির টেলিমেডিসিন সেবা চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনা ভাইরাসের সৃষ্ট পরিস্থিতিতে মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতে বিনামূল্যে টেলিমেডিসিন সেবা চালু করেছে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি)। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার ২২ এপ্রিল ভিডিও কনফারেন্সে এই সেবা চালু করেন।
এ সময় মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার গ্রাম পর্যায়ে কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে সেবা পৌঁছে দিয়েছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য সেবা দুই ভাগে ভাগ হয়ে গেছে। একটা হচ্ছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত আর অন্যটি হচ্ছে সাধারণ রোগী। আমরা প্রযুক্তির মাধ্যমে এই মহামারি করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করছি। বিশ্বের অনেক দেশ ইতোমধ্যে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, বিগ ডেটা ইত্যাদি প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই মহামারি করোনা ভাইরাস প্রায় নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছে।
তিনি আইইবির টেলিমেডিসিন সেবার উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, এই সুন্দর উদ্যোগের ফলে দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে যে কেউ শুধু মাত্র নিদিষ্ট নম্বরে কল করে সেবা নিতে পারবেন।
ভিডিও কনফারেন্সে সভাপতির বক্তব্যে আইইবির প্রেসিডেন্ট এবং আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর বলেন, কোভিড-১৯ করোনা মহামারীর মধ্যেও প্রকৌশলীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জরুরি পরিসেবা যেমন পানি, বিদ্যুৎ, গ্যাস, টেলিফোন ও ইন্টারনেট ইত্যাদি সচল রেখেছেন। এই দুর্যোগকালে দেশের প্রকৌশলীরা সর্বাত্মকভাবে জনগণের পাশে থাকবে।
আইইবির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী খন্দকার মনজুর মোর্শেদ, আইইডিসিআর এর সাবেক পরিচালক ডা. মো. ইউসুফ, ইএনটি বিশেষজ্ঞ লে. কর্নেল ডা. বশির আহমেদ, অর্থোপেডিক সার্জন ডা. সাইফুদ্দিন আহমেদ, শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. সাঈদা মাকসুদা মোর্শেদ, স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. রোকেয়া খাতুন, ডা. রুমানা আক্তার কনফারেন্সে যুক্ত হন।
টেলিমেডিসিন সেবার আওতায় দেশের যে কেউ ০৯৬১১৮৮৮১১১ নাম্বারে ফোন দিয়ে টেলিমেডিসিন সেবা নিতে পারবেন প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত। যেখানে পর্যায়ক্রমে ৩৪ জন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বিনামূল্যে সেবা দিবেন। ডাক্তাররা প্রতিদিন ১ ঘন্টা করে রোস্টারিংয়ের মাধ্যমে সেবা প্রদান করবেন। পরবর্তীতে কোন রোগী যদি তার কোন টেষ্ট রিপোর্ট ডাক্তারকে দেখাতে চান তাহলে ঃবষবসবফরপরহব@রবননফ.ড়ৎম এই মেইলে সাবজেক্টে ডাক্তারের নাম/কোড লিখে রিপোর্ট এটাচ করে মেইল করবেন। সংশ্লিষ্ট ডাক্তার সময়ানুযায়ী রোগীর রিপোর্ট দেখে পরবর্তী করনীয় ঠিক করে দিবেন। এছাড়া অবাঞ্চিত কল আসলে সিস্টেম থেকে নাম্বার ব্লক করে দেয়া হবে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবস্থা নিয়ে বলা হবে।