অর্থনীতি

করোনা: চরম ঝুঁকিতে দেশের অর্থনীতি ঘোষিত প্যাকেজকের প্রশংসায় অর্থনীতিবিদরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দেশের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। এই অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল তা থেকে প্রায় এক লাখ কোটি টাকা কম আদায় হবে। ঝুঁকি মোকাবিলা করে দেশের শিল্প-কারখানা টিকিয়ে রাখতে ইতোমধ্যে ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার। তবে কোথায় কীভাবে তা বাস্তবায়ন করা হবে সে জন্য দ্রুত সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা ও তদারকি ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে হবে।
অর্থনীতিবিদরা বলছেন, করোনা ভাইরাসের কারণে পৃথিবীর অনেক দেশেই তাদের জিডিপির ১০ শতাংশের বেশি আর্থিক ক্ষতি হবে। বাংলাদেশের ক্ষতি যদি তার অর্ধেকও হয়, তাহলেও ১ লাখ কোটি টাকা বেশি আর্থিক ক্ষতি হবে।
করোনার প্রভাবে রপ্তানি আয়ের সঙ্গে আমাদের অর্থনীতির অন্যতম অনুষঙ্গ রেমিট্যান্সসহ আরও বেশকিছু খাত বড় ক্ষতির মুখে পড়বে। প্রবাসী আয়ে আমাদের প্রবৃদ্ধি ছিল ২১ দশমিক ৫ শতাংশ, যা খুবই আশাব্যঞ্জক। কিন্তু করোনা সংকটে প্রবাসী আয় অনেক কমে যাবে। পৃথিবীর অনেক দেশে বাংলাদেশি শ্রমিকেরা কাজ করছেন। সেসব দেশে বেতন কমে যাবে, অনেকে চাকরি হারাবেন। ফলে এইসব শ্রমিকরা দেশে ফিরলে অর্থনীতি বড় ধরনের চাপে পড়বে।
পাশাপাশি দেশের অভ্যন্তরের কারখানা বন্ধ, শ্রমিক ছাঁটাই, নিয়োগ বন্ধ, বেতন বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এ ধরনের পরিস্থিতি এড়াতে সতর্কভাবে আগাম প্রস্তুতি নিতে হবে। নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য সরকারের সহায়তা বাড়াতে হবে। এতে করে ব্যয় বাড়লেও সরকারের আয় কমবে। ফলে বাজেট ঘাটতির পরিমাণ আরও বাড়বে। সব দিক দিয়ে সামষ্টিক অর্থনীতি বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে।
এমন আশঙ্কা সত্য হলে দেশের অর্থনীতিতে তা বড় ধরনের ক্ষতি বয়ে আনবে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীরা। তাদের পরামর্শÑ পরিস্থিতি মোকাবিলার দুর্বলতা এই ক্ষতির গভীরতা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। এজন্য শুরু থেকেই সরকারকে দীর্ঘমেয়াদি সুরক্ষা ব্যবস্থার দিকে কঠোর নজর দিতে হবে।
এ বিষয়ে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, করোনা সংকটে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নিঃসন্দেহে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। আমাদের আগে থেকেই রপ্তানি প্রবৃদ্ধিতে কিছুটা নেতিবাচক প্রভাব ছিল। এখন এই সংকট আরও ঘনীভূত হবে। এরই মধ্যে অনেক দেশ ক্রয়াদেশ স্থগিত বা বাতিল করতে শুরু করেছে। বৈদেশিক যোগাযোগ বন্ধ হওয়ায় বিমানের আয় কমে যাবে,
অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ বন্ধ হওয়ায় শ্রমিক-কর্মচারী এবং কল-কারখানা বন্ধ থাকলে শ্রমিকরা চাকরি হারাবেন। এতে বেকারত্ব বাড়বে। নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনমানের আরও অবনতি ঘটবে। ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ থাকায় সরকারের রাজস্ব আহরণও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক কমে যাবে। সার্বিকভাবে এসব বিষয় দেশের অর্থনীতিতে বড় সংকট তৈরি করবে। তবে এর পরিমাণ কত হবে সেটা বলা মুশকিল। করোনা পরিস্থিতিতে এডিবি একটা ঘোষণা দিয়েছিল বাংলাদের প্রবৃদ্ধি ১ দশমিক এক বা দুই শতাংশ কমে যাবে। কিন্তু আমার ধারণা, ক্ষতির পরিমাণ আরো বেশি হবে।
করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার যে ৭২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনার প্যাকেজ ঘোষণা করেছে তা যদিও প্রয়োজনের তুলনায় কম তবে প্রশংসনীয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় আর্থিক ক্ষতি মোকাবিলার জন্য ছোট-বড় সব প্রতিষ্ঠানের সহায়তা প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রী যেসব প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন এটি
বাস্তবসম্মত। তবে এটি বাস্তবায়ন নিয়ে আশঙ্কা রয়েছে। কারণ এই প্যাকেজের বেশিরভাগই হচ্ছে ঋণ। ব্যাংকগুলো ৯ শতাংশ সুদ হারে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দেবে। প্রণোদনায় শুধু এসএমই খাতে সরকার ৫ শতাংশ দেবে আর বাকি ৪ শতাংশ এসএমই প্রতিষ্ঠানগুলোকে দিতে হবে। অন্যান্য খাতের যে সকল প্রতিষ্ঠান ৯ শতাংশ হারে ঋণ নেবে তারা সাড়ে ৪ শতাংশ দেবে আর বাকি সাড়ে ৪ শতাংশ দেবে সরকার। এখন ব্যাংক কাদের ঋণ দেবে, এটা দেখার বিষয়। যাদের ঋণ দেয়া হবে তারা প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত কি না?
ব্যাংকগুলোর ঋণ দেয়ার সক্ষমতা আছে কিনা সেটাও দেখার বিষয় জানিয়ে মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে ব্যাংকের আমানত কমে যাবে। ফলে ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকটসহ ঋণ দেয়ার সক্ষমতা কমবে। এ অবস্থায় ঋণ বিতরণ কীভাবে করবে। তহবিলের পরিপূর্ণ বাস্তবায়নে কোনো ধরনের নিয়মনীতি কী করা হচ্ছে, সেটাই এখন দেখার বিষয়।
বিষয়গুলো ভালোভাবে বাস্তবায়নের জন্য সুনির্দিষ্ট তালিকা, সঠিক নীতি ও তদারকি ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে পরামর্শ দিয়েছেন এ অর্থনীতিবিদ।
বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) গবেষক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, করোনার প্রভাবটা আমরা আশু, স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘÑ এই চার পর্যায়ে প্রভাব ফেলবে আমাদের অর্থনীতিতে। তবে কি পরিমাণ প্রভাব ফেলবে তা নির্ধারণ করা কঠিন। আইএলও, এডিবি কিছু হিসাব দিয়েছে, যেটা প্রারম্ভিক প্রাক্কলন করেছে সেটা এই পরিস্থিতির জন্য যুক্তিযুক্ত নয়। আমাদের ক্ষতির পরিমাণটা বোঝা যাবে আমরা কতোটা করোনা হ্যান্ডেল করতে পারি। করোনা হ্যান্ডেলের দুর্বলতা আমাদের অর্থনীতির ক্ষতির গভীরতা বাড়াবে।
তিনি বলেন, আমাদের চারটি ধাপের মধ্যে আশুর ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি বেশি। সমস্ত কাজকর্ম বন্ধ হয়ে যাওয়াতে মানুষের জীবন-জীবিকা এক রকম বন্ধ। এটা মানুষের আয় ও খাদ্য নিরাপত্তাকে প্রভাবিত করছে। এটা শুধু নিম্ন আয়ের মানুষ না, সীমিত, মধ্য ও সকল পর্যায়ে ঝুঁকি বাড়ছে। স্বল্প মেয়াদে আগামীতে যদি স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমে আসে, তখন অর্থনৈতিক কর্মকা- শুরু হলে তা কোন পর্যায়ে কতটুকু কার্যক্রম চালু রাখা সুযোগ হবে তা ভাবতে হবে। এখনতো বাংলাদেশে ঝুঁকি বাড়ছে। কতোদিন এই পরিস্থতি থাকবে ও সামগ্রিকভাবে উৎপাদন বিনিয়োগ রপ্তানি এবং দেশের ভেতরে খাদ্যপণ্য উৎপাদন আমদানির ওপর একটা প্রভাব থাকবে। এখন যেমন আছে আগামীতেও থাকবে।
তিনি বলেন, মধ্যমেয়াদে যদি এ পরিস্থিতি কমে আসে, তখন অর্থনীতি আগের অবস্থায় যাওয়ার ক্ষেত্রে যে উদ্যোগগুলো নেয়া হবে সেটার জন্য অভ্যন্তরীণ ও বৈশ্বিক চাহিদা থাকতে হবে। মানুষের পণ্য ক্রয়ের সক্ষমতা থাকতে হবে। ব্যবসায় শুধু বিনিয়োগ ও উৎপাদন করে বসে থাকলে হবে না। মধ্যম মেয়াদে এই চ্যালেঞ্জগুলো থাকবে। দীর্ঘ মেয়াদে হলো দারিদ্রসীমার নিচে যদি একটা অংশ পড়ে যায়। তাদের কিভাবে ও কোন প্রক্রিয়ায় আগের অবস্থানে উঠিয়ে আনা হবে, সেখানে প্রশ্ন থেকে যায়।
সিপিডির এই গবেষক তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যে প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন, সেখানে আশু, স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ সবগুলোর কথা বলেছেন। এরমধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হবে আশুকরণীয়গুলো। বিশেষ করে স্বাস্থ্য ও খাদ্য নিরাপত্তায় বিশেষ গুরুত্ব দেয়া। এজন্য এক্ষেত্রে করণীয়গুলো দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাস্তবায়ন করে নিশ্চিত করতে হবে। এক্ষেত্রে সামাজিক নিরাপত্তা বাড়ানো হবে, এই কর্মসূচির বাইরে যারা ছিল, যেমনÑ কামার-কুমার নাপিত, মাটিকাটার লোক, দৈনিক দিনমজুর তাদের নতুন করে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত হয়ে দ্রুত এদের তালিকা তৈরি করতে হবে।
খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, আমাদের সমাজে নিম্ন শ্রেণির মানুষ রয়েছে যারা হাত পাততে পারে না বা বাইরে দাঁড়াতে পারে না, তাদের আয় ৮ থেকে ২০ হাজার টাকা। এদের আলাদা ক্যাটাগরি করে দ্রুত সহায়তার ব্যবস্থা করতে হবে। এছাড়া বিভিন্ন ব্যবসা বাণিজ্য, সেবা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী, উবার, বাস চালক যাদের এই মুহূর্তে চাকরি নেই, তাদের জন্য ঘোষিত ওয়ার্কিং ক্যাপিটালে একটা অংশ শ্রমিকদের মজুরি বাবদ ব্যয় করতে হবে। এটার জন্য প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে ৪ শতাংশ সুদ না নিয়ে গার্মেন্টসের মতো ২ শতাংশ সুদের ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এ মুহূর্তে ব্যবসা করতে চাইবে না ও ব্যাংকগুলো ঋণ দিতে চাইবে না। এজন্য আশু করণীয় বিষয়ে বেশি নজর দিতে হবে। ভবিষ্যতের স্বল্প, মধ্য, দীর্ঘ মেয়াদের জন্য এ ঘোষণাটা ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করবে। তাই এইমুহূর্তে আশুকরণীয় বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
এদিকে রপ্তানিকারকরা বলছেন, বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব এরই মধ্যে পড়তে শুরু করেছে। গার্মেন্টসহ দেশের অন্তত ১৩ থেকে ১৪টি খাতে এখন সেই প্রভাব দৃশ্যমান হয়েছে। বিভিন্ন বাণিজ্য সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশঙ্কার পাশাপাশি কিছু পণ্যের সরবরাহে ব্যাপক ঘাটতি দেখা দিতে পারে। করোনার প্রভাবে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হচ্ছে তৈরি পোশাক খাতে। এই খাতের উদ্যোক্তারা বলছেন, রপ্তানি বাজার ধীরে ধীরে ছোট হয়ে আসছে। কারণ, রপ্তানির বড় বাজার ইউরোপের দেশগুলো করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশের বড় বাজার যুক্তরাষ্ট্রও বিপদে আছে। বিপদ কেউ আঁচ করতে পারছে না। তবে আগামী ছয় মাস পর্যন্ত তাদের বড় ধরনের খেসারত দিতে হবে।
ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম এ বিষয়ে বলেন, করোনা ভাইরাস বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই ভাইরাসের কারণে রপ্তানি খাত সবচেয়ে বেশি হুমকির মুখে পড়েছে। তার মধ্যেও আবার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে তৈরি পোশাক খাত। কারণ এই খাতে আমাদের সবচেয়ে বড় বাজার ইউরোপ ও আমেরিকা। এসব এলাকার অনেক দেশই ক্রয়াদেশ বাতিল করছে, স্থগিত করছে।
তিনি বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্যাকেজকে স্বাগত জানাই। আমরা প্রথম থেকে বলে আসছিলাম এ বছরটা আমাদের একটু কঠিন যাবে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে এই প্যাকেজ সহযোগী ভূমিকা রাখবে। সরকার প্রণোদনা দিচ্ছে যাতে কেউ চাকরি না হারায়। এই প্যাকেজ ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা, বড় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, কৃষি ও সেবাভিত্তিক খাতের উদ্যোক্তারা সঠিকভাবে ব্যবহার করবেন। করোনা ভাইরাসের কারণে কোনো ব্যক্তি চাকরি হারালে তার ৬ মাসের জন্য বেতন-ভাতার ব্যয় নির্বাহ করবে সরকার। আপাতত প্রধান লক্ষ্য হলো, কর্মসংস্থান ও অর্থনৈতিক কর্মকা স্বাভাবিক করা এবং আমাদের কোনো মানুষ যেন মারা না যায় সেজন্য আমাদের সকলকে ঘরে থাকতে হবে। তবে আমাদের বিশ্বাস, সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বের মাধ্যমে যেসব উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে, তা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে সুচারুরূপে বাস্তবায়ন করে এই কঠিন সময় উত্তরণে সক্ষম হব।
এ প্রসঙ্গে বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক বলেন, করোনার প্রভাব দীর্ঘমেয়াদী হলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে তৈরি পোশাক খাত। ইতোমধ্যে এ শিল্পের রপ্তানি অর্ডার বাতিল ও স্থগিত করা শুরু করেছেন ক্রেতারা। তিনি বলেন, বাংলাদেশের পোশাকের সবচেয়ে বড় বাজার হচ্ছে ইউরোপ ও আমেরিকা। দুঃখজনক হলেও সত্য, সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমিত হয়েছে এসব জায়গায়। এ কারণে তৈরি পোশাক খাতের রপ্তানি কমে যাবে, এটাই সত্য। এমন প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত প্যাকেজকে আমরা স্বাগত জানাই। ঘোষিত প্যাকেজ সঙ্কট উত্তরণে সহযোগী ভূমিকা রাখবে। সরকার প্রণোদনা দিচ্ছে যাতে কেউ চাকরি না হারায়। এই প্যাকেজ ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ীরা সঠিকভাবে ব্যবহার করবেন।
ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের (ডিসিসিআই) সাবেক সভাপতি মো. আসিফ ইব্রাহিম বলেন, অর্থনীতির সব খাতই করোনা ভাইরাসের কারণে টালমাটাল অবস্থায় রয়েছে। দেশের শিল্প-বাণিজ্য থেকে শুরু করে আমদানি-রপ্তানি, শেয়ারবাজারÑ সবই বিপর্যয়ের মুখে। প্রতিদিনই ব্যবসা-বাণিজ্যে ধ্বস নামছে। সব মিলিয়ে আমরা আতঙ্কিত। এমন অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্যাকেজকে আমরা স্বাগত জানাই।