প্রতিবেদন

করোনা নিয়ে গুজব রটনায় সক্রিয় ২৫০ ফেসবুক ইউজার পুলিশের নজরদারিতে

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে ২৫০ ফেসবুক ইউজারকে খুঁজছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে এ ভারইরাসের সংক্রমণ ও আক্রান্তদের মৃত্যু নিয়ে গুজব এবং পুলিশের পুরনো ছবি বিকৃত করে মাস্ক লাগিয়ে মানুষকে পেটানোর মিথ্যা তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ রয়েছে।
এ বিষয়ে ৩১ মার্চ ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার নাজমুল ইসলাম স্বদেশ খবরকে বলেন, আমরা সারাদেশের গুজব নিয়ে কাজ করছি। করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর গত চার সপ্তাহে ১২ জনের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ৩০ জনের ফেসবুক আইডি বন্ধ করা হয়েছে। ১৫ জনকে আটকের পর কাউন্সেলিং করিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এখনো গুজব ছড়াচ্ছে এমন আড়াইশো ফেসবুক আইডি শনাক্ত করার চেষ্টা করছি। নেত্রনিউজসহ বেশ কিছু নিউজ পোর্টালের মাধ্যমেও গুজব ছড়ানোর তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, তাদের কর্মকা- নজরদারিতে রয়েছে।
সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা জানান, গুজবকারীরা বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার করছেন মুসলমানরা করোনা ভাইরাসে মরে না। মারা যাচ্ছে অমুসলিমরা। এটি তাদের জন্যই গজব। করোনা বা ছোঁয়াচে রোগ বা সংক্রামক রোগ বলতে কিছু নেই, ছোঁয়াচে রোগ বিশ্বাস করা হারাম, কাট্টা কুফরী ও শিরকীর অন্তর্ভুক্ত। এছাড়া ইউরোপের বিভিন্ন দেশের মরদেহের ছবি আমাদের দেশের বলে প্রপাগান্ডা চালাচ্ছেন অনেকে। পুলিশের সঙ্গে মারামারির পুরনো ছবি ফটোশপে কারসাজি করে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করে ঘৃণা ছড়ানোর চেষ্টাও হচ্ছে। তারা জানান, করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীর এমন হুঁশিয়ারির পরও গুজবকারীরা থেমে নেই। অনলাইনে লিফলেট বিতরণের মাধ্যমেও গুজব ছড়াচ্ছে একটি চক্র। গত ২৭ মার্চ এ ধরনের একটি চক্রের ৬ সদস্যকে গ্রেপ্তারের পরও বিভিন্ন ফেসবুক পেজ, ইউটিউব লিঙ্ক ও ভুঁইফোড় নিউজ পোর্টালে ধর্মীয় গুজব ছড়ানো হচ্ছে।
এ বিষয়ে ডিএমপির রমনা জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) এসএম শামীম বলেন, বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরির উদ্দেশ্যে একাধিক সংঘবদ্ধ চক্র পরিকল্পিতভাবে গুজব ছড়ানোর কাজ করছে। কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছি। বাকিদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
পুলিশ সদর দপ্তরের আরেক কর্মকর্তা জানান, করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব প্রতিরোধে ডিএমপির আটটি ক্রাইম জোনের থানা-পুলিশের পাশাপাশি সারাদেশের প্রত্যেকটি জেলার সব থানার পুলিশকে সতর্কতামূলক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ও র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সব সংস্থা গুজব বন্ধে সাইবার প্যাট্রলিং করছে।