বিনোদন

জ্যোতিকা জ্যোতির পরামর্শ

অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতি বিষন্নতা নিয়ে সম্প্রতি কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি জানতাম না বিষন্নতা এক ধরনের মানসিক রোগ। ব্যক্তিগত, সামাজিক ও ক্যারিয়ারের নানা কারণে আমার মধ্যে হতাশা কাজ করা শুরু করে ২০১০ থেকে। সেটা মাত্রাতিরিক্ত আকার ধারণ করে ২০১১ সালের শেষের দিকে। আমি ছিলাম খুব সহজ-সরল জীবনযাপন করা একটি মফস্বলের মেয়ে।
সেখান থেকে চলে এলাম লাইট-ক্যামেরা-অ্যাকশনের দুনিয়ায়। কিন্তু এই দুনিয়া বাইরে থেকে যতটা আলোকোজ্জ্বল, ভেতরে চিত্র আলাদা। প্রথম দিকে একটি নতুন মেয়ে কাজ করতে এলে কেউই কোনো সাপোর্ট করেন না। আমি দেখতাম, আমার যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও সেভাবে ক্যারিয়ারে জ্বলে উঠতে পারছি না। এটা বিষণèতার একটি অন্যতম কারণ ছিল। কিন্তু আমার ভেতর যে রোগটি ধীরে ধীরে বেড়ে অনেক জটিল পর্যায়ে চলে গেছে সেটা বুঝতে সময় লেগেছিল ৫ বছর।
২০১৭ সালে আমি সাধারণ চেকআপ করার জন্য চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে তিনি আমাকে সাইকোলজিস্টের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। পরে জানতে পারি, আমি গভীর ডিপ্রেশনে ভুগছি। তখন আমি একা থাকতে ভয় পেতাম। বিশেষ করে প্রতিদিন সন্ধ্যায় বিষন্নতা ঘিরে ধরত। আত্মহত্যা করার মানসিকতা তৈরি হয়ে গিয়েছিল। পরে কলকাতার মনোচিকিৎসকের পরমর্শে ওষুধ খেয়ে আস্তে আস্তে ভালো হই।
এটা বলতে এখন কোনো দ্বিধা নেই। কিন্তু ওই সময়টায় বলতেও ভয় লাগত। খুব ইনসিকিওর ছিলাম। আমি বলতে চাই, যারা এমন রোগে ভুগছেন তারা দেরি না করে চিকিৎসকের কাছে যান। এর ভালো চিকিৎসা আছে, আপনি ভালো হয়ে যাবেন। কিন্তু দেরি করলে বড় সর্বনাশ করে ফেলতে পারেন নিজের সঙ্গে।