প্রতিবেদন

বাজেট বাস্তবায়নে টাস্কফোর্স গঠনের সুপারিশ বিশেষজ্ঞদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
করোনা সংকটের মধ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নে তিনটি খাতের ওপর জোর দিয়ে একটি টাস্কফোর্স গঠনের সুপারিশ করেছে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)। সংস্থাটির চেয়ারম্যান ও অর্থনীতিবিদ ড. রেহমান সোবহান বলেন, সরকারের পাশাপাশি সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে এই টাস্কফোর্স গঠন করা যেতে পারে। স্বাস্থ্য, সামাজিক সুরক্ষা ও অর্থনীতিকে টেনে তুলতে প্রণোদনা প্যাকেজের বাস্তবায়ন তদারকি করবে এই টাস্কফোর্স। ২০ জুন সিপিডি আয়োজিত প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর ভার্চুয়াল সংলাপ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
সংলাপে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিপিডির সম্মানীয় ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান। এতে রাজনীতিক, অর্থনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও বিশিষ্টজনরা অংশ নেন।
মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে যেমন ভালো দিক আছে, তেমনি মন্দ দিকও আছে। নতুন বাজেটে বেসরকারি বিনিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা দ্বিগুণেরও বেশি ধরা হয়েছে। কভিড-১৯ এখনো চলমান। সুতরাং এই অনুমতি আমাদের কাছে সঠিক মনে হয়নি। রপ্তানি প্রবৃদ্ধির টার্গেট করা হয়েছে ১৫ শতাংশ। এ বছর হয়তো ১৮ শতাংশ নেগেটিভ গ্রোথ হবে। তারপরও লো লেবেল থেকে ১৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি করা চ্যালেঞ্জিং হবে।
তিনি বলেন, মোবাইলের সিমের ক্ষেত্রে সম্পূরক শুল্ক আরোপ করায় ইন্টারনেটের ব্যবহার কমবে। খাদ্য নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আমরা খুব ভালো অবস্থানে আছি। এখানে ইন্টারনেট বড় ভূমিকা রেখেছে। সেদিক থেকে এটা রহিত করলেই ভালো হবে বলে আমাদের মনে হয়েছে। স্বাস্থ্য খাতে যেভাবে অগ্রাধিকার দেয়ার দরকার ছিল সেভাবে দেয়া হয়নি। আমরা বিশ্লেষণ করে দেখলাম, স্বাস্থ্য খাতে কভিড সম্পর্কিত প্রকল্প কেবলমাত্র একটা। এগুলো পুনরায় পর্যালোচনা করে দেখা যেতে পারে।
রুটিন বাজেট থেকে বেরিয়ে আসার পরামর্শ দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, এ ধরনের বাজেট থেকে বেরিয়ে এসে বিভিন্ন সংস্থা ও বিশেষজ্ঞের মতামত আমলে নিতে হবে। পাশাপাশি অর্থবহ বাজেটের জন্য ব্যাংক, পুঁজিবাজার ও রাজস্ব এ তিনটি খাত সংস্কারে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব রাখার আহ্বান জানান তিনি।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, প্রস্তাবিত বাজেট গৎবাঁধা হয়েছে। এতে করোনা পরিস্থিতি প্রাধান্য পায়নি। সাংসদ সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি নিয়ে এক ধরনের ঘোরের মধ্যে আছি। বৈষম্য বাড়লে এই জিডিপি প্রবৃদ্ধি দিয়ে কী করব?
রুটিন খাত জয়যুক্ত হয়েছে, রুটিন খাত জয়যুক্ত হয়েছে’ এবারের বাজেটকে এভাবেই মূল্যায়ন করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ।
পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, এখনই রাজস্ব খাতের সংস্কারে নজর না দিলে কিছুদিন পর টাকা ছাপিয়ে বেতন-ভাতা দিতে হবে। এটা হলে খুবই দুর্ভাগ্যজনক হবে। সেই পরিস্থিতি আসতে খুব বেশি দেরি নেই।
দেশে ভালো ব্যবসায়ী হওয়া ভালো নয় ক্ষোভ প্রকাশ করে মেট্রোপলিটান চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এমসিসিআই) সভাপতি নিহাদ কবির বলেন, কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়ে সৎ করদাতাদের প্রতি অন্যায় করা হয়েছে। এ সময় পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত সাড়ে তিনশ কোম্পানির মধ্যে দুইশর অধিক কার্যকর কোম্পানি নয় বলেও মন্তব্য করেন ব্যবসায়ীদের বনেদি এ সংগঠনটির সভাপতি। এ কারণে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার না কমিয়ে অতালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার কমানো সঠিক হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে সবশেষে বক্তব্য দেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, গত ১০ বছরে আমাদের অর্থনীতিতে ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে। আমাদের মাথাপিছু আয় বাড়ছে, প্রবৃদ্ধি ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে, বড় বড় মেগা প্রকল্পগুলো জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখছে। বর্তমানে বাংলাদেশের রিজার্ভ ৩৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ছে, কৃষিতে ফলন ভালো হয়েছে। তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটি কভিড-১৯ মোকাবিলায় নানা ধরনের বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বাজেটে কভিড-১৯ মোকাবিলার পাশাপাশি উন্নয়নের ধারাবাহিকতাকেও গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।
পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার নানা ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। পাশাপাশি বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ, এডিবিসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা বাংলাদেশকে অব্যাহতভাবে সহায়তা করছে। ফলে বাংলাদেশ এই পরিস্থিতি সফলভাবে মোকাবিলা করতে পারবে।